• শুক্রবার, নভেম্বর ১৫, ২০১৯
  • সর্বশেষ আপডেট : ১০:৪৬ রাত

ভুক্তভোগীর বড়ভাই সেজে ঘুষখোর ভূমি কর্মকর্তাকে ধরলেন ডিসি

  • প্রকাশিত ১২:০৩ দুপুর অক্টোবর ১৮, ২০১৯
সাতক্ষীরা ভূমি কর্মকর্তা
ঘুষ নেওয়ার অপরাধে বৃহস্পতিবার সাতক্ষীরা সদর উপজেলার ধুলিহর ইউনিয়ন ভূমি সহকারী কর্মকর্তা মোকলেস আলীকে সাময়িক বরখাস্তের নির্দেশ দেন জেলা প্রশাসক ঢাকা ট্রিবিউন

জেলা প্রশাসক বলেন, ভাই চার হাজার টাকা নেন, আমরা গরীব মানুষ কাজটা করে দেন

ভুক্তভোগী এক ব্যক্তির বড়ভাই সেজে ইউনিয়ন সহকারী ভূমি কর্মকর্তাকে ঘুষ নেওয়ার প্রমাণ পেয়ে তাৎক্ষণিক বরখাস্তের নির্দেশ দিয়েছেন সাতক্ষীরা জেলা প্রশাসক এসএম মোস্তফা কামাল।

বৃহস্পতিবার (১৭ অক্টোবর) বিকেলে সদর উপজেলার ধুলিহর ইউনিয়ন ভূমি সহকারী কর্মকর্তা মোকলেস আলীকে সাময়িক বরখাস্তের নির্দেশ দেন জেলা প্রশাসক।

ভুক্তভোগী ব্যক্তি জানান, বৃহস্পতিবার দুপুরে তিনি বাবাকে সঙ্গে ইউনিয়ন ভূমি অফিসে জমির মিউটেশন (নামজারি) করতে যান। এজন্য সরকার নির্ধারিত ফি এক হাজার ১৭০ টাকা হলেও তাদের কাছে পাঁচ হাজার টাকা ঘুষ দাবি করা হয়। এক টাকা কম হলেও কাজ হবে না বলে তাদের জানিয়ে দেন অভিযুক্ত ভূমি কর্মকর্তা।

বিষয়টি মুঠোফোনের মাধ্যমে সাতক্ষীরা জেলা প্রশাসক এসএম মোস্তফা কামালকে জানান ভুক্তভোগী ব্যক্তি। জেলা প্রশাসক মুঠোফোনেই তার ‘বড়ভাই’ পরিচয়ে ওই কর্মকর্তার সঙ্গে কথা বলিয়ে দেওয়ার জন্য বলেন।

ডিসির পরামর্শ অনুযায়ী ওই ব্যক্তি ঘুষ দাবি করা ভূমি কর্মকর্তা মোকলেস আলীকে মুঠোফোনটি দেন। অন্যপ্রান্ত থেকে ‘বড়ভাই’ পরিচয় দেওয়া জেলা প্রশাসক বলেন, “ভাই চার হাজার টাকা নেন, আমরা গরীব মানুষ কাজটা করে দেন।” জবাবে ওই ভূমি কর্মকর্তা, “ঠিক আছে দেখবো” বলে আশ্বস্ত করেন।

কিছুক্ষণ পরেই ডিসির নির্দেশে ঘটনাস্থলে যান সদর উপজেলা সহকারী কমিশনার (ভূমি) মো. আসাদুজ্জামান। অভিযোগের সত্যতা এবং ভূমি অফিসে সেবা নিতে আসা একাধিক ব্যক্তির সঙ্গে কথা বলে মোকলেসের নিয়মিত ঘুষ নেওয়ার বিষয়ে নিশ্চিত হন তিনি।

এরপরেই অভিযুক্ত ভূমি কর্মকর্তা মোকলেস আলীকে সাময়িক বরখাস্তের আদেশ দেন জেলা প্রশাসক এসএম মোস্তফা কামাল।

প্রসঙ্গত, গত ১৩ অক্টোবর সাতক্ষীরা রাজস্ব প্রশাসনের কর্মকর্তা-কর্মচারীদের শপথ বাক্য পাঠ করিয়ে জেলা প্রশাসনকে ‘দুর্নীতিমুক্ত’ ঘোষণা করেছিলেন জেলা প্রশাসক।