• সোমবার, নভেম্বর ১৮, ২০১৯
  • সর্বশেষ আপডেট : ১২:৫৩ দুপুর

চাকরির প্রলোভন দেখিয়ে তরুণীদেরকে ঢাকায় এনে পাচার!

  • প্রকাশিত ০৮:১৬ রাত অক্টোবর ২৯, ২০১৯
নারায়ণগঞ্জ পাচার
মানবপাচারের অভিযোগে নারায়ণগঞ্জের সিদ্ধিরগঞ্জ থেকে এক নারীকে গ্রেফতার করেছে পুলিশ ঢাকা ট্রিবিউন

নারায়ণগঞ্জের সিদ্ধিরগঞ্জের একটি বাড়ি থেকে ১৮ থেকে ১৯ বছর বয়সী তিন তরুণীকে উদ্ধার করেছে পুলিশ

দেশের বিভিন্ন এলাকা থেকে দরিদ্র পরিবারের তরুণীদের লোভনীয় বেতনে চাকরির প্রলোভন দেখিয়ে ঢাকায় এনে একটি বাসায় আটকে রাখা হতো। পরে সুযোগমতো বিদেশে পাচার করে দিতো একটি সংঘবদ্ধ চক্র। এমন অপরাধে জড়িত এক নারীকে গ্রেফতারের পর প্রাথমিক জিজ্ঞাসাবাদে এসব তথ্য পাওয়া গেছে বলে জানিয়েছে পুলিশ।

সোমবার (২৮ অক্টোবর) দিবাগত গভীর রাতে নারায়ণগঞ্জের সিদ্ধিরগঞ্জ উপজেলার জালকুড়ি উত্তরপাড়া এলাকার একটি বাড়িতে অভিযান চালিয়ে জেবা আক্তার (৪৫) নামে এক নারীকে গ্রেফতার করে পুলিশ। তার বাড়ি থেকে উদ্ধার করা হয় তিন তরুণীকে। তাদের প্রত্যেকের বয়স ১৮ থেকে ১৯ এর মধ্যে।

এ ঘটনায় মঙ্গলবার দুপুরে উদ্ধার হওয়া এক ভুক্তভোগীর বড় বোন বাদী হয়ে জেবা আক্তারকে প্রধান আসামি করে তিন জনের নাম উল্লেখ ও ৪ জনকে অজ্ঞাত আসামি করে সিদ্ধিরগঞ্জ থানায় মামলা করেছেন। থানার ভারপ্রাপ্ত কর্মকর্তা (ওসি) কামরুল ফারুক ঢাকা ট্রিবিউনকে বিষয়টি নিশ্চিত করেন। 

মামলার অন্য আসামিরা হলেন- রাজধানীর পুরানা পল্টন এলাকার নিরুপম ইন্টারন্যাশনাল নামে একটি প্রতিষ্ঠানের ব্যবস্থাপক ম্যানেজার মুরাদ (৫৪) ও তার সহযোগী শাহাদত (৫৩)।

মামলা সূত্রে জানা যায়, মুন্সিগঞ্জ জেলার টঙ্গিবাড়ী উপজেলার হাসাইল বানারি ইউনিয়ন একটি বাড়ি থেকে গত ১৮ আগস্ট বিকেলে নিখোঁজ হন এক তরুণী। অনেক খুঁজেও সন্ধান না পেয়ে একটি সাধারণ ডায়েরি করেন স্বজনরা। সোমবার (২৮ অক্টোবর) সকালে মুঠোফোনের মাধ্যমে স্বজনদের কাছে নিজের অবস্থান জানান তিনি। 

বিষয়টি টঙ্গিবাড়ীর পুলিশকে জানানো হলে তারা বিষয়টি সিদ্ধিরগঞ্জ থানায় জানায়। সিদ্ধিরগঞ্জের ওসি রাত ১০টার দিকে ফোর্স পাঠিয়ে ওই বাড়ি থেকে তিন তরুণীকে উদ্ধার এবং জেবা আক্তারকে গ্রেফতার করে।

সিদ্ধিরগঞ্জ থানার ভারপ্রাপ্ত কর্মকর্তা (ওসি) কামরুল ফারুক জানান, প্রাথমিক জিজ্ঞাসাবাদে জানা গেছে, আসামি জেবা নিরুপম ইন্টারন্যাশনাল নামে প্রতিষ্ঠানের হয়ে কাজ করে। তাদের একটি ‘সংঘবদ্ধ চক্র’ রয়েছে। তারা দেশের বিভিন্ন এলাকা থেকে দরিদ্র পরিবারের তরুণীদেরকে লোভনীয় বেতনে চাকরি দেওয়ার প্রলোভন দেখিয়ে ঢাকায় নিয়ে সুযোগমতো বিদেশে পাচার করে দেয়। আরও তথ্যের জন্য জেবার রিমান্ড চেয়ে আদালতে পাঠানো হয়েছে। অন্য আসামিদের গ্রেফতারে চেষ্টা চলছে।