• মঙ্গলবার, আগস্ট ২০, ২০১৯
  • সর্বশেষ আপডেট : ১০:৫০ রাত

তরুণ উদ্যোক্তাদের জন্য সুখবর, শিক্ষা প্রতিষ্ঠান হবে এমপিওভুক্ত

  • প্রকাশিত ১২:২০ দুপুর জুন ১৩, ২০১৯
স্টার্টআপ
তরুণ উদ্যোক্তাদের জন্য বিশেষ তহবিলের ঘোষণা দেবেন অর্থমন্ত্রী। ছবি: পিক্সাবে

শিক্ষা প্রতিষ্ঠান এমপিও ভুক্তির দাবিতে শিক্ষকেরা আন্দোলন করছেন দীর্ঘদিন ধরেই। নির্বাচনি প্রতিশ্রুতি অনুযায়ী ২০১০ সালের পর যেসব শিক্ষা প্রতিষ্ঠান এমপিও ভুক্তির যোগ্য কিন্তু এমপিও করা হয়নি, এমন শিক্ষা প্রতিষ্ঠান এমপিওভুক্ত করার ঘোষণা থাকছে বাজেটে।

একাদশ জাতীয় সংসদের তৃতীয় অধিবেশনে নতুন অর্থবছরের (২০১৯-২০) বাজেট ঘোষণা করা হবে।

১৩ জুন, বৃহস্পতিবার বিকেল ৩টায় জাতীয় সংসদে অর্থমন্ত্রী আ হ ম মুস্তফা কামাল ‘সমৃদ্ধ আগামীর পথযাত্রায় বাংলাদেশ, সময় এখন আমাদের, সময় এখন বাংলাদেশের’ শিরোনামে খসড়া বাজেট ঘোষণা করবেন। 

এই বাজেট প্রধানমন্ত্রী শেখ হাসিনার ১৭তম, আওয়ামী লীগ সরকারের ২০তম এবং দশের ৪৮তম বাজেট। তবে অর্থমন্ত্রী হিসেবে মুস্তফা কামালের প্রথম বাজেট।

বাজেটের সম্ভাব্য আকার ধরা হয়েছে ৫ লাখ ২৩ হাজার ১৯০ কোটি টাকা। আগামী ৩০ জুন এই বাজেট পাস হবে। 

বাজেটে কয়েকটি বিষয় নতুন যোগ করা হচ্ছে। একইসঙ্গে থাকছে বেশ কিছু সংশোধনী প্রস্তাবও। এবারের বিশেষ আকর্ষণীয় হিসেবে বিবেচনা করা হচ্ছে বেকার ও তরুণ উদ্যোক্তাদের জন্য বিশেষ তহবিল। তরুণ উদ্যোক্তারা যেন ব্যবসা শুরু করতে পারেন এবং টাকার অভাবে সেটি যেন স্তিমিত হয়ে না যায় সে জন্য বাজেটে ‘স্টার্টআপ ফান্ড’ নামের বিশেষ তহবিল ঘোষণা করবেন অর্থমন্ত্রী। তরুণ উদ্যোক্তরা সহজ শর্তে স্বল্প সুদে এই তহবিল থেকে ঋণ নিয়ে ব্যবসা পরিচালনা করতে পারবেন। 

শিক্ষা প্রতিষ্ঠান এমপিও ভুক্তির দাবিতে শিক্ষকেরা আন্দোলন করছেন দীর্ঘদিন ধরেই। নির্বাচনি প্রতিশ্রুতি অনুযায়ী ২০১০ সালের পর যেসব শিক্ষা প্রতিষ্ঠান এমপিও ভুক্তির যোগ্য কিন্তু এমপিও করা হয়নি, এমন শিক্ষা প্রতিষ্ঠান এমপিওভুক্ত করার ঘোষণা থাকছে বাজেটে। এ ঘোষণা আগামী অর্থ বছরেই বাস্তবায়ন করা হবে বলে জানা গেছে। 

প্রান্তিক কৃষকদের বাঁচাতে দেশে প্রথমবারের মতো শস্যবীমা চালুর ঘোষণা দেওয়া হবে। প্রবাসীদের জন্যও থাকছে রেমিটেন্স দেশে পাঠানোর ক্ষেত্রে ভর্তুকি প্রস্তাব। 

এ ছাড়া সামাজিক নিরাপত্তা বেষ্টনির আওতায় মুক্তিযোদ্ধা ভাতা, বিধবা ভাতা, প্রতিবন্ধী ভাতা,বৃদ্ধ ভাতাসহ সব ধরণের ভাতা বৃদ্ধির প্রস্তাবও থাকছে। দেশের দরিদ্র ১৫ হাজার ক্যান্সার, কিডনি, লিভার সিরোসিস, স্ট্রোক ও প্যারালাইসিসে আক্রান্ত রোগীর আর্থিক সুবিধা দ্বিগুণ করার ঘোষণা থাকবে এই বাজেটে। 

আওয়ামী লীগের নির্বাচনি ইশতেহার অনুসারে ‘আমার গ্রাম আমার শহর’ নামক কর্মসূচি বাস্তবায়নের জন্য বিশেষ তহবিল ঘোষণা করা হবে।

তৈরি পোশাক পণ্য রফতানির ক্ষেত্রে যেভাবে প্রনোদনা পেয়ে আসছে, আরো কয়েকটি পণ্যের ক্ষেত্রে এ ধরনের প্রনোদনা দেওয়ার প্রস্তাব করা হয়েছে। এদিকে, পুঁজিবাজারের ক্ষতিগ্রস্ত ক্ষুদ্র বিনিয়োগকারীদের জন্য বিশেষ ঋণ ব্যবস্থার প্রস্তাব থাকবে এবারের বাজেটে।

প্রস্তাবিত বাজেটে রাজস্ব আহরণের সম্ভাব্য লক্ষ্যমাত্রা ৩ লাখ ৭৭ হাজার ৮১০ কোটি টাকা, যা জিডিপির ১৩ দশমিক ১ শতাংশ। এর মধ্যে জাতীয় রাজস্ব বোর্ড (এনবিআর) নিয়ন্ত্রিত কর ৩ লাখ ২৫ হাজার ৬০০ কোটি টাকা, এনবিআর-বহির্ভূত কর ১৪ হাজার ৫০০ কোটি, কর ব্যতীত প্রাপ্তি ৩৭ হাজার ৭১০ কোটি এবং বৈদেশিক অনুদানের পরিমাণ ধরা হচ্ছে ৪ হাজার ১৬৮ কোটি টাকা।

প্রস্তাবিত বাজেটের পরিচালন ব্যয় ধরা হচ্ছে ৩ লাখ ১০ হাজার ২৬২ কোটি টাকা। উন্নয়ন ব্যয় ধরা হচ্ছে ২ লাখ ১১ হাজার ৬৮৩ কোটি টাকা। এর মধ্যে বার্ষিক উন্নয়ন কর্মসূচির (এডিপি) ২ লাখ ২ হাজার ৭২১ কোটি টাকা।

আসন্ন বাজেটে জিডিপি প্রবৃদ্ধির লক্ষ্য ধরা হচ্ছে ৮ দশমিক ২ শতাংশ। এছাড়া নতুন বাজেটে মূল্যস্ফীতির চাপ ৫ দশমিক ৫ শতাংশে রাখার পরিকল্পনা করা হচ্ছে।