• শনিবার, আগস্ট ২৪, ২০১৯
  • সর্বশেষ আপডেট : ০৮:০৬ রাত

মুক্তিযুদ্ধের প্রামাণ্যচিত্র দিয়ে বাজেট উপস্থাপন শুরু

  • প্রকাশিত ০৩:১০ বিকেল জুন ১৩, ২০১৯
বাজেট উপস্থাপন
২০১৯-২০ অর্থবছরের বাজেটে স্বাক্ষর করছেন প্রধানমন্ত্রী শেখ হাসিনা ও অর্থমন্ত্রী আ হ ম মুস্তফা কামাল ফোকাস বাংলা

শারীরিকভাবে অসুস্থ থাকার কথা জানিয়ে বসে বাজেট বক্তব্য দেওয়ার অনুরোধ জানান অর্থমন্ত্রী আ হ ম মুস্তফা কামাল। স্পিকার ড. শিরীন শারমিন চৌধুরী অর্থমন্ত্রীর অনুরোধে সম্মতি দেন। এরপরেই শুরু হয় মুক্তিযুদ্ধের প্রমাণচিত্র।

মুক্তিযুদ্ধের প্রামাণ্যচিত্র দিয়ে বাজেট উপস্থাপন শুরু প্রামাণ্যচিত্র দিয়ে জাতীয় সংসদে ২০১৯-২০ অর্থবছরের বাজেট উপস্থাপন শুরু করেছেন অর্থমন্ত্রী আ হ ম মুস্তফা কামাল। 

১৩ জুন, বৃহস্পতিবার বেলা ৩টায় স্পিকার শিরীন শারমিন চৌধুরীর সভাপতিত্বে জাতীয় সংসদের বাজেট অধিবেশন শুরু হয়।

এ সময় শারীরিকভাবে অসুস্থ থাকার কথা জানিয়ে বসে বাজেট বক্তব্য দেওয়ার অনুরোধ জানান অর্থমন্ত্রী আ হ ম মুস্তফা কামাল। স্পিকার ড. শিরীন শারমিন চৌধুরী অর্থমন্ত্রীর অনুরোধে সম্মতি দেন। এরপরেই শুরু হয় মুক্তিযুদ্ধের প্রমাণচিত্র।

এর আগে বৃহস্পতিবার বেলা আড়ইটার দিকে জাতীয় সংসদ ভবনে মন্ত্রিপরিষদের বৈঠকে ২০১৯-২০ অর্থ বছরের প্রস্তাবিত বাজেটের অনুমোদন দেওয়া হয়। 

বেলা পৌনে ১টা থেকে প্রধানমন্ত্রী শেখ হাসিনার সভাপতিত্বে মন্ত্রিপরিষদের বৈঠক শুরু হয়। অর্থমন্ত্রী প্রায় আধাঘণ্টা দেরিতে,  দুপুর ১টা ২১ মিনিটে বৈঠকে যোগ দেন। মন্ত্রিপরিষদের বৈঠকে যোগ দিতে আসা অর্থমন্ত্রীকে বেশ দুর্বল দেখা গেছে। সংসদ সচিবালয়ের কর্মকর্তারা তাকে হাত ধরে ভেতরে নিয়ে যান। তিনি সাদা পায়জামা-পাঞ্জাবি, ওপরে কালো মুজিব কোট পরে সংসদ ভবনে যান। 

প্রস্তাবিত নতুন ২০১৯-২০ অর্থবছরের বাজেটের আকার চলতি ২০১৮-১৯ অর্থবছরের মূল বাজেটের তুলনায় ৫৮ হাজার ৬১৭ কোটি টাকা বেশি। চলতি অর্থবছরের মূল বাজেটের আকার ছিল ৪ লাখ ৬৪ হাজার ৫৭৩ কোটি টাকা। লক্ষ্যমাত্রা অনুযায়ী রাজস্ব আদায় করতে না পারা ও উন্নয়ন প্রকল্পে পরিকল্পনা অনুযায়ী অর্থ খরচ করতে না পারায় চলতি অর্থবছরের সংশোধিত বাজেটের আকার নির্ধারণ করা হয়েছে ৪ লাখ ৪২ হাজার ৫৪১ কোটি টাকা। বর্তমান সরকারের তৃতীয় মেয়াদের প্রথম বাজেটের আকার চলতি অর্থবছরের সংশোধিত বাজেটের আকারের চেয়ে ৮০ হাজার ৬৪৯ কোটি টাকা বেশি। চলতি অর্থবছরের মূল বাজেটের চেয়ে ১২ দশমিক ৬২ শতাংশ ও সংশোধিত বাজেটের আকারের চেয়ে ১৮ দশমিক ২২ শতাংশ বড়।

অর্থ মন্ত্রণালয় সূত্রে জানা গেছে, প্রস্তাবিত বাজেটে রাজস্ব আয় ধরা হয়েছে তিন লাখ ৭৭ হাজার ৮১০ কোটি টাকা। এর মধ্যে কর বহির্ভূত আয় ধরা হয়েছে ৩৭ লাখ ৭১০ কোটি টাকা। নতুন বছরে মূল্যস্ফীতি ৫ দশমিক ৫ শতাংশের মধ্যে ধরে রাখার চেষ্টার কথা বলা হয়েছে। নতুন বাজেটে ঘাটতি ধরা হয়েছে ১ লাখ ৪৫ হাজার ৩৮০ কোটি টাকা। এই ঘাটতি মেটাতে অভ্যন্তরীণ সূত্র থেকে ৭৭ হাজার ৩৬৩ কোটি টাকা ঋণ নেওয়ার পরিকল্পনা করা হয়েছে। 

এবার অর্থমন্ত্রী হিসেবে প্রথমবারের মতো বাজেট পেশ করছেন আ হ ম মুস্তফা কামাল। এটি দেশের ৪৮তম ও আওয়ামী লীগ সরকারের ২০তম বাজেট। এর আগে পরিকল্পনামন্ত্রী হিসেবে গত পাঁচ বছরের বাজেটে তৈরির কাজে সাবেক অর্থমন্ত্রী আবুল মাল আবদুল মুহিতকে সহযোগিতা করছেন বর্তমান অর্থমন্ত্রী আ হ ম মুস্তফা কামাল।