• শনিবার, আগস্ট ২৪, ২০১৯
  • সর্বশেষ আপডেট : ০৮:০৬ রাত

মোটরসাইকেল নিয়ে বাজেটে যা প্রস্তাব হলো

  • প্রকাশিত ০৭:০৮ রাত জুন ১৩, ২০১৯
মোটরসাইকেল
ঢাকার রাস্তায় মোটরসাইকেল। ছবি : সৈয়দ জাকির হোসেন/ ঢাকা ট্রিবিউন

শুল্ক কমবে এয়ার ফিল্টার ও ব্রেকের।

২০১৯-২০ অর্থবছরের জন্য জাতীয় সংসদে প্রস্তাবিত বাজেটে মোটরসাইকেলের যন্ত্রাংশের আমদানি ও সম্পূরক শুল্কের ওপর কিছু পরিবর্তন আনা হয়েছে। আজ বৃহস্পতিবার জাতীয় সংসদে ২০১৯-২০ অর্থবছরের প্রস্তাবিত বাজেটে এমন ঘোষণা এসেছে। 

প্রস্তাবিত বাজেটে বলা হয়, স্থানীয় মোটরসাইকেল উৎপাদনকে উৎসাহিত করার জন্য ২০১৭-১৮ অর্থবছর হতে শর্তসাপেক্ষে রেয়াতি সুবিধা দেওয়া হচ্ছে। মোটরসাইকেল ও এর যন্ত্রাংশ উৎপাদনে তিনটি উপকরণের শুল্ক সুবিধা কমানো হয়েছে। এ ছাড়া দেশিয় টায়ার-টিউব উৎপাদনকারী প্রতিষ্ঠানের ১৬ ইঞ্চি রিম সাইজ এলভিসি টায়ার, মোটরসাইকেল টায়ার, সিএনজিচালিত অটোরিকশার টায়ার এবং হালকা যানবাহনে ব্যবহৃত রাবারের টিউবের ওপর সম্পূরক শুল্ক বাড়ানো হয়েছে। 

বাজেটে উল্লেখ করা হয়, মোটরসাইকেলে ব্যবহৃত কার্বুরেটর ওপর আমদানি শুল্ক অপরিবর্তিত থাকবে। শুল্ক কমবে এয়ার ফিল্টার ও ব্রেকের। ১৬ ইঞ্চি আকৃতির রিমের টায়ারের ওপর সম্পূরক শুল্ক বাড়বে। নতুন করে সম্পূরক শুল্ক আরোপ করা হবে সব ধরনের টিউবের। 

এদিকে প্রস্তাবিত বাজেটে ক্যানসার প্রতিরোধক ওষুধ উৎপাদনে ব্যবহৃত কাঁচামালে কর অব্যাহতি সুবিধা দেওয়া হয়েছে। এ ছাড়া অগ্নিনির্বাপণ ব্যবস্থায় ব্যবহৃত উপকরণের শুল্ক কমানো হয়েছে।

পাউরুটি, বনরুটি, হাতে তৈরি কেক প্রতি কেজি ১৫০ টাকা পর্যন্ত মূল্য সংযোজন কর (মূসক) অব্যাহতি দেওয়া হয়েছে। দাম কমবে দেশে উৎপাদিত মোটরসাইকেলের।

কৃষি যন্ত্রপাতি পাওয়ার রিপার, পাওয়ার টিলার অপারেটেড সিডার, কম্বাইন্ড হারভেস্টর, লোরোটারি টিলার, লিস্ট পাম্পের স্থানীয় উৎপাদন পর্যায়ে মূসক অব্যাহতি দেওয়া হয়েছে।