• মঙ্গলবার, অক্টোবর ১৫, ২০১৯
  • সর্বশেষ আপডেট : ০৬:১৫ সন্ধ্যা

নুসরাত ফারিয়া: প্রেম আর ব্রেকআপ না থাকলে অভিনেত্রীর জীবন বোরিং

  • প্রকাশিত ০৮:২৫ রাত মে ১৩, ২০১৯
নুসরাত ফারিয়া
ছবি: নুসরাত ফারিয়ার ফেসবুক একাউন্ট থেকে নেওয়া

‘আমি মনে করি প্রেম, ভালবাসার প্রস্তাব আসলে ব্লেসিংস’

বাংলাদেশ ও কলকাতায় সমানতালে কাজ করে যাচ্ছেন জনপ্রিয় অভিনেত্রী নুসরাত ফারিয়া। ঢালিউড সুপারস্টার শাকিব খানের সঙ্গে ‘শাহেনশাহ, ওপার বাংলার চিত্রতারকা অঙ্কুশের সঙ্গে ‘বিবাহ অভিযান’ নামের দুটি চলচ্চিত্র নিয়ে ব্যাপক আশাবাদী এ অভিনেত্রীর এক বিশেষ সাক্ষাতকার নিয়েছে আনন্দবাজার। সেখানে বের হয়ে এসেছে তার সম্পর্কে জানা-অজানা অনেক তথ্য। 

ভোর সাড়ে ৪টায় দিন শুরু করা এ অভিনেত্রী দিনের মধ্যে ২৪ ঘণ্টাই বলতে গেলে ব্যস্ত থাকেন তার কাজ নিয়ে। স্টেজ শো-তে উপস্থাপনা দিয়ে শুরু করে রেডিও জকি সবই করেছেন তার ২৫ বছরের জীবনে। শুধু অভিনয়ই নয়, সমানতালে চালিয়ে যাচ্ছেন পড়াশোনাও। আইনের মতো কঠিন বিষয়েই পড়ছেন তিনি।

তবে বর্তমান সময়ে ব্যস্ত এ অভিনেত্রী আনন্দবাজারকে বললেন এভাবেই, “প্রথমে তো ভাবিনি অভিনেত্রী হব। স্টেজ শো করতাম। উপস্থাপিকা ছিলাম। সেখান থেকে আর জে। তার পর প্রথম ছবির প্রস্তাব এলো। আব্দুল আজিজ ভাই বললেন একটি ছবি করার কথা।” এভাবে শুরু হয় ‘আশিকী’ ছবির কার্যক্রম। এরপর থেকে আর বসে থাকতে হয়নি তাকে। একে একে ঝুলিতে যোগ হয়েছে সাতটি ছবি।

মোটা হওয়া একদম পছন্দ না সেজন্য প্রতিদিন জিম করাটা মোটামুটি তার লাইফস্টাইলেই রূপান্তরিত হলেও গান কিন্তু ছাড়েননি লাস্যময়ী এ তারকা। ‘পটাকা’ গানটি দুই বাংলাতেই সমান জনপ্রিয়। 

অসংখ্য প্রেমের প্রস্তাব কেমন করে সামলান এমন প্রশ্নের উত্তরে তিনি বলেন, “সামলানোর কিছু নেই। আমি মনে করি প্রেম, ভালবাসার প্রস্তাব আসলে ব্লেসিংস। আমি প্রপোজাল হিসেবে নিই না। মানুষ আমায় নিয়ে ভাবছে।” আর প্রেম, প্রেম নিয়ে খোলামেলা উত্তরে নুসরাত ফারিয়া বলেন, “তিন মাসের বেশি টেকে না। আবার ব্রেকআপ জোনে যাই। আবার প্রেম। অভিনেত্রীর জন্য এটা খুব হেলদি।”

 ‘আল্লাহ মেহেরবান’ গান নিয়ে সমালোচনা প্রসঙ্গে তিনি বলেন, “আমি জানি, অনেকে আমাকে এই গান নিয়ে যা নয় তাই বলেছিলেন। আমার মনে হয়, সবার এতটুকু বিবেকবোধ ও বিবেচনা থাকা উচিত যে এটা অভিনয়। কোনও কিছুকে আঘাত করার জন্য নয়। কখনওই শিল্পীর তাঁর নিজের পছন্দমতো গানের সঙ্গে পোশাক পরে নাচ শুরু করে দিতে পারে না। এটা কিন্তু পুরো টিমের সিদ্ধান্ত। গানটির জন্য প্রায় তিন মাস পরিশ্রম করেছি। নাচের দিকে মনোযোগ দিয়েছি। এটুকুই বলার।”