• রবিবার, মার্চ ২৪, ২০১৯
  • সর্বশেষ আপডেট : ১১:০১ রাত

কী খাবেন হার্টঅ্যাটাকের ঝুঁকি এড়াতে?

  • প্রকাশিত ০৮:৪০ রাত মার্চ ৪, ২০১৯
jjdjjd
ছবি: সংগৃহীত

মাঝেমধ্যে খেতে পারেন একটু আধটু ডার্ক চকোলেটও, কারণ এতে রয়েছে ফ্ল্যাভনয়েড নামক অ্যান্টিঅক্সিড্যান্ট যা হার্টকে সুস্থ রাখে

হার্টের স্বাস্থ্য তখনই ভাল থাকে, যখন নিয়ম মেনে চলার পাশাপাশি ডায়েটেও থাকে ভারসাম্য। হার্টের অসুখকে ঠেকাতে গেলে যেমন জীবনযাপনে বেশ কিছু পরিবর্তন আনতে হয়, তেমনই বদল ঘটাতে হয় খাওয়ার তালিকাতেও। তেল-মশলা-ঘি-মাখন কেবল বাদ দিলেই হয় না, বরং কী কী খেলে হৃদযন্ত্রের কার্যকারিতা বাড়বে তাও জেনে রাখা জরুরি। সম্প্রতি আনন্দবাজারের এক প্রতিবেদনে জানা গেছে এমন তথ্য।

প্রতিবেদনটির দেয়া তথ্যানুযায়ী বার্লি, ওটস, গমের আটা, ব্রাউন ব্রেড, ব্রাউন রাইস বা হোল গ্রেন ও ফাইবার সমৃদ্ধ খাবার নিজেকে সুস্থ রাখার জন্য অত্যন্ত গুরুত্বপূর্ণ।

এছাড়াও স্ট্রবেরি, আমলকি, ব্লুবেরি, আঙুর জাতীয় ফল ইত্যাদিও রাখুন প্রতিদিনের খাবারে।যেকোনো রোগ প্রতিরোধসহ রক্ত পরিশোধন এমনকি এনার্জিবাড়াতেও ভূমিকা রাখে এসব ফল।

ভাজাপোড়া বা তেল জাতীয় খাবার খাবেন না, তাই বলে কিন্তু মাছের তেল খাওয়া বন্ধ করা যাবে না। কারণ এতে রয়েছে ওমেগা থ্রি ফ্যাটি অ্যাসিড। যা খারাপ কোলেস্টেরল, ট্রাইগ্লিসারাইড, সিস্টোলিক ব্লাড প্রেশারের মাত্রা কম রাখে।

এছাড়াও হার্ট অ্যাটাক ও স্ট্রোককে ঠেকিয়ে রাখতে পারে টমেটো।কারণ এতে রয়েছে লাইকোপিনযা হার্ট অ্যাটাক ও স্ট্রোক রুখতে গুরুত্বপূর্ণ ভূমিকা রাখে।

পর্যাপ্ত ভিটামিন, খনিজ ও অ্যান্টিঅক্সিড্যান্টের ভাঁড়ার সবুজ শাক। রক্তচাপকে নিয়ন্ত্রণে রেখে ধমনীর কার্যকারিতা বাড়ায় নাইট্রেট সমৃদ্ধ এই সব শাক। তবে রাতে বিপাকহার রেট কম থাকে তাই রাতে এড়িয়ে চলুন শাক খাওয়া, এতে বদহজমের সম্ভাবনা থেকে যায়।

আর স্ট্রোক বা হার্ট অ্যাটাক থেকে নিজেকে মুক্ত রাখতে মাঝেমধ্যে খেতে পারেন একটু আধটু ডার্ক চকোলেটও। কারণ ডার্ক চকোলেটে রয়েছে ফ্ল্যাভনয়েড নামক অ্যান্টিঅক্সিড্যান্ট যা স্বাস্থ্যকে সুস্থ রাখে।তবে কিছুটাচিনি থাকায় এটি অতিরিক্ত ক্যালোরিও বহন করে। ফলে সবসময় এটি না খাওয়াই ভাল।