• রবিবার, মে ২৬, ২০১৯
  • সর্বশেষ আপডেট : ০৮:৫৭ রাত

আরব দেশ ও ইসরায়েলের গোপন বাণিজ্য

  • প্রকাশিত ০৫:১১ সন্ধ্যা আগস্ট ২৪, ২০১৮
Israel and Jerusalem
ইসরায়েলকে আরব দেশগুলো বাস্তবে বয়কট করছে না। ছবি: রয়টার্স

সৌদি আরব ও ইসরায়েলের মধ্যে বছর দুয়েক আগে অস্ত্রচুক্তি স্বাক্ষরিত হয়েছে।

সম্প্রতি সৌদি আরবসহ উপসাগরীয় (জিসিসি) দেশগুলোর কাছে পণ্য রফতানির করার কথা প্রকাশ করেছে তথ্য-বাণিজ্য ও নিরাপত্তা সরঞ্জামে বিশেষজ্ঞ ইসরায়েলের গোয়েন্দা ও বাণিজ্যিক প্রতিষ্ঠানগুলো। প্রতিষ্ঠানগুলোর তথ্য অনুযায়ী, প্রতিষ্ঠানগুলোর সঙ্গে মধ্যপ্রাচ্যের জর্ডান ও মিসরেরও ব্যবসা হয়েছে। 

সংবাদমাধ্যম মিডল ইস্ট মনিটর-এর বরাতে জানা গেছে, ইসরায়েলকে আরব দেশগুলো বাস্তবে বয়কট করছে না এমনটাই সম্প্রতি জানিয়েছেন গোয়েন্দা তথ্যভিত্তিক হিব্রু ভাষার ওয়েবসাইট ভালাহ এফএম ইসরায়েলের ব্যবসায়ী ও ইন্টুভিউ-এর মালিক স্যামুয়েল বারে। 

স্যামুয়েল আরও জানিয়েছেন, ইসরায়েলের নিরাপত্তা মন্ত্রণালয় তাকে সৌদি আরবে রফতানির অনুমতি দিয়েছে।

সৌদি আরবের কর্মকর্তারা দুই বছর আগে স্যামুয়েলের প্রতিষ্ঠান পরিদর্শনেও এসেছেন কয়েকবার। সৌদি কর্মকর্তারা সৌদি বাদশার পক্ষে গোয়েন্দা তথ্য কিনতে আগ্রহী ছিলেন।

তেল আবিবে ইসরায়েলি বসতি হারজিলা অঞ্চলে অবস্থিত ইন্টুভিউ মূলত একটি ইসরায়েলি ইন্টেলিজেন্স প্রতিষ্ঠান। প্রতিষ্ঠানটি যুক্তরাষ্ট্র ও ইউরোপের কাছেও নিরাপত্তা সরঞ্জাম বিক্রি করেছে।

নিজ ওয়েবসাইটে ভালাহ এফএম লিখেছে, সৌদি আরব ও ইসরায়েলের মধ্যে দুই বছর আগে একটি অস্ত্রচুক্তি স্বাক্ষরিত হয়েছে। চুক্তি মোতাবেক ইসরায়েলি ড্রোন সৌদি আরবের বিক্রি করা হয়। কিন্তু তা দক্ষিণ আফ্রিকার মাধ্যমে পাঠানো হয়, যাতে করে বিক্রেতা দেশের পরিচয় প্রকাশ না পায়।

অন্যদিকে ইসরায়েলি প্রতিষ্ঠান আরব মার্কেটের সিইও আইরিন মেলোউল জানান, জিসিসি দেশ এবং জর্ডান ও মিসরের সঙ্গে বাণিজ্যিক সম্পর্ক রয়েছে তাদের। সৌদি আরব তাদের বড় বাজার বলেও জানিয়েছেন তিনি।

এদিকে সংবাদমাধ্যম ব্লুমবার্গ জানিয়েছে, ইসরায়েল উপসাগরীয় দেশগুলোতে ব্যক্তিগত দেহরক্ষী থেকে শুরু করে সৌদি আরবের কাছে সামরিক সেবা বিক্রি করছে এবং অর্থের বিনিময়ে তেলের নিরাপত্তা নিশ্চিত করার দায়িত্বও পালন করছে।