• শনিবার, নভেম্বর ১৬, ২০১৯
  • সর্বশেষ আপডেট : ১০:৩২ রাত

মিয়ানমারে ফের রোহিঙ্গাদের বিরুদ্ধে সেনা অভিযান

  • প্রকাশিত ০৫:২৬ সন্ধ্যা ডিসেম্বর ২১, ২০১৮
মিয়ানমার সেনাবাহিনী
মিয়ানমার সেনাবাহিনী। ফাইল ছবি: এএফপি

অধিকার, নাগরিকত্ব ও নিরাপত্তার নিশ্চয়তা ছাড়া মিয়ানমারে ফিরতে রাজি নয় রোহিঙ্গারা। এমন সময় সেখানে আবারও সেনাবাহিনীর কথিত শুদ্ধি অভিযান শুরু হয়েছে

মিয়ানমারের রাখাইন প্রদেশে ফের রোহিঙ্গাদের বিরুদ্ধে কথিত শুদ্ধি অভিযান শুরু করেছে দেশটির সেনাবাহিনী। উত্তর রাখাইনে পৃথক দুটি হামলায় দুই বৌদ্ধ ধর্মাবলম্বী নিহত এবং দু'জন আহত হওয়ার জেরে এ অভিযান শুরু করা হয়েছে বলে জানিয়েছে মিয়ানমার সেনাবাহিনীর ‘কমান্ডার-ইন-চিফ’-এর কার্যালয়। ওই দুই হামলার অন্তত একটিতে রোহিঙ্গা মুসলিমরা জড়িত ছিল বলে তাদের দাবি। খবর- রয়টার্সের।

গত ১৭ ডিসেম্বর উত্তর রাখাইনের মংডু শহরের উপকূলীয় পিয়ুমা খালে রাখাইন বৌদ্ধদের ওপর হামলার ঘটনা ঘটে। ওই দিন পৃথক দুটি হামলার শিকার হন চার বৌদ্ধ ধর্মাবলম্বী। উল্লেখ্য, গত বছর একই এলাকায় রোহিঙ্গাদের বিরুদ্ধে জাতিগত নিধনযজ্ঞ শুরু করেছিল দেশটির সেনাবাহিনী। সেনাবাহিনীর অত্যাচার থেকে বাঁচতে সাত লাখেরও বেশি রোহিঙ্গা পালিয়ে আশ্রয় নেয় বাংলাদেশে। ২০১৭ সালের ওই অভিযানকে জাতিসংঘের তদন্তকারীরা জাতিগত নিধনের পাঠ্যপুস্তকীয় উদাহরণ হিসেবে চিহ্নিত করেছেন।

গত সোমবার বৌদ্ধদের ওপর হামলার ঘটনায় মিয়ানমারের সেনা প্রধানের কার্যালয় তাদের ওয়েবসাইটে প্রকাশিত এক বিবৃতিতে গতকাল বলেছে, নিরাপত্তা বাহিনীগুলো আবারও সক্রিয় হয়েছে এবং পিয়ুমা খাল এলাকাজুড়ে ‘শুদ্ধি অভিযান’ পরিচালিত হচ্ছে। সেখানে আরও বলা হয়, ওই এলাকায় দুই জাতিগত রাখাইন বৌদ্ধ নিহত হওয়ার পর এই অভিযান শুরু হয়েছে। একই দিন আরো দুজন জাতিগত রাখাইন বৌদ্ধ সংখ্যালঘু মাছ শিকারে গিয়ে ‘বাংলাভাষী’ ছয় ব্যক্তির হামলার শিকার হয়। কিন্তু হামলাকারীরা পালিয়ে যেতে সক্ষম হয়। পরে আহতদের স্থানীয় হাসপাতালে চিকিৎসা দেওয়া হয়। বিবৃতিতে আরো বলা হয়, কর্তৃপক্ষ হামলাকারীদের চিহ্নিত করতে পারেনি।

প্রসঙ্গত, বিভিন্ন সময় রাখাইন রাজ্য থেকে পালিয়ে বাংলাদেশে আশ্রয় নিয়েছে ১০ লাখেরও বেশি রোহিঙ্গা। তাদের প্রত্যাবাসনে জোর প্রচেষ্টা চালাচ্ছে বাংলাদেশ সরকার। তবে অধিকার, নাগরিকত্ব ও নিরাপত্তার নিশ্চয়তা ছাড়া মিয়ানমারে ফিরতে রাজি নয় রোহিঙ্গারা। এমন সময় সেখানে আবারও সেনাবাহিনীর কথিত শুদ্ধি অভিযান শুরু হয়েছে।