• বৃহস্পতিবার, জুলাই ১৮, ২০১৯
  • সর্বশেষ আপডেট : ১০:৫৩ রাত

নারীদের নজরবন্দি রাখতে অ্যাপ চালু হলো সৌদি আরবে

  • প্রকাশিত ০৬:৫১ সন্ধ্যা ফেব্রুয়ারি ১১, ২০১৯
ডেইলি মেইল
ছবি: ডেইলি মেইল

এই অ্যাপ নারীদের ওপর শুধু তদারকিই করবে না, একজন নারীর গন্তব্য কোথায় বা কতদূর হবে সেই সীমারেখাসহ ভ্রমনরত নারীদের পাসপোর্ট নাম্বারও জানাবে এটি

ক্রমেই বেড়ে চলেছে সৌদি আরব থেকে পালিয়ে যাওয়া নারীর সংখ্যা। সাম্প্রতিক সময়ে এ পালিয়ে যাওয়ার বিষয়গুলো বিভিন্ন গণমাধ্যমের কারণে উঠে আসায় সমালোচনা শুরু হয়েছে বিশ্বজুড়ে। চাঞ্চল্যকর এসব ঘটনায় যেমন বেরিয়ে আসছে সৌদি আরবের সমাজ-ব্যবস্থার জীর্ণদশার চিত্র, তেমনিভাবে আন্তর্জাতিক মহলেও দেশটি পড়ছে তীব্র সমালোচনার মুখে।

তবে নারীদের দেশত্যাগের বিষয়জনিত এ ‘সমস্যা’ থেকে বের হয়ে আসতে উপায়ও বের করে নিয়েছেন সৌদিরা। ‘অ্যাবশার’ এমন একটি অ্যাপ বানিয়েছে তারা, যেই অ্যাপ দেশত্যাগী যেকোনো নারীর সন্ধান দেবে মুহূর্তেই।

অ্যাবশার নামক এ অ্যাপের ট্র্যাভেল ফিচারটি নারীদের ওপর শুধু তদারকিই করবে না, একজন নারীর গন্তব্য কোথায় বা কতদূর হবে সেই সীমারেখাও টেনে দেবে। একইসাথে ভ্রমণরত নারীদের পাসপোর্ট নাম্বারও জানাবে এই অ্যাপ, কেবল তাই নয়, অ্যাপটি সন্ধান দেবে সংস্কারপন্থী কিংবা উদ্বাস্তুদের গন্তব্যও।

ইয়াসমিন মোহাম্মেদ নামে এক সংস্কারপন্থী এ অ্যাপের প্রতি কঠোর নিন্দা জানিয়ে বলেন, “প্রযুক্তিকে যখন সারাবিশ্বে জীবনমান কীভাবে উন্নত করা যায়, সেজন্য ব্যবহার করা হচ্ছে, সৌদি আরব উল্টো আরো নিজেদের শৃঙ্খলের মধ্যে রাখতে বদ্ধ পরিকর।”

অ্যামনেস্টি ইন্টারন্যাশনালে কর্মরত ডানা আহমেদ নামে একজন বলেন, “এভাবে নারীদের অগ্রযাত্রা থামিয়ে রাখার ফলাফল কখনোই সুখকর হবে না।”

সংস্কারপন্থীদের একটি দল অবশ্য এ ধরণের অ্যাপ নির্মাণের জন্য অ্যাপেল ও গুগলের কাছে জবাবদিহিতাও চেয়েছেন। যদিও এর আগে কট্টরপন্থীরা নারীদের পালিয়ে যেতে গুরুত্বপূর্ণ ভূমিকা পালন করছে এমন অভিযোগ তোলে অ্যাপেল ও গুগলের বিরুদ্ধে।