• রবিবার, মার্চ ২৪, ২০১৯
  • সর্বশেষ আপডেট : ১১:০১ রাত

আইএসে যোগ দেওয়া শামীমার এই সন্তানটিও বাঁচল না

  • প্রকাশিত ১০:২৩ সকাল মার্চ ৯, ২০১৯
শামীমা বেগম
সন্তান কোলে শামীমা বেগম। ছবি : বিবিসি

গত ফেব্রুয়ারি মাসে সিরিয়ার উত্তর-পূর্বাঞ্চলের একটি শরণার্থীশিবিরে ছেলে সন্তানের জন্ম দেন শামীমা।

জঙ্গি সংগঠন ইসলামিক স্টেটে (আইএস) যোগ দেওয়া বাংলাদেশি বংশোদ্ভূত ব্রিটিশ তরুণী শামীমা বেগমের (১৯) শিশু সন্তানের মৃত্যু হয়েছে।  গত বৃহস্পতিবার সিরিয়ায় ছেলে শিশুটির মৃত্যু হয়ে বলে জানিয়েছে দেশটির  কুর্দি নেতৃত্বাধীন সিরিয়ান ডেমোক্রেটিক ফোর্সেস (এসডিএফ)। 

সংবাদমাধ্যম বিবিসির খবরে বলা হয়, নিউমোনিয়ায় আক্রান্ত হয়ে ২০ দিন বয়সী শিশুটির মৃত্যু হয়। এর আগেও অসুখ ও অপুষ্টির কারণে শামীমার দুই শিশু সন্তান মারা যায়। 

গত ফেব্রুয়ারি মাসে সিরিয়ার উত্তর-পূর্বাঞ্চলের একটি শরণার্থীশিবিরে ছেলের জন্ম দেন শামীমা। 

ব্রিটিশ সরকারের এক মুখপাত্র বলেন, সন্তানের মৃত্যুর খবর পরিবারের কাছে 'দুঃখ ও গভীর পীড়ার' বিষয়।  ব্রিটিশ সরকার বার বার সবাইকে সিরিয়ায় ভ্রমণ না করতে পরামর্শ দিয়েছে। সন্ত্রাসবাদের সঙ্গে জড়াতে ও যুদ্ধক্ষেত্রে যাওয়া থেকে ঠেকাতে সরকার যা যা করার সব করে যাবে। 

এ বিষয়ে এক চিকিৎসাকর্মী জানান, মৃত্যুর আগে শিশুটিতে একজন চিকিৎসক ও হাসপাতালে নেওয়া হয়। তবে তাকে বাঁচানো সম্ভব হয়নি। সেদিনই শিশুটিকে কবর দেওয়া হয়েছে। সন্তানের মৃত্যুর পর শামীমা আবার শরণার্থী শিবিরে ফিরে গেছেন।  

এর আগে শামীমা বেগম নিজ দেশ যুক্তরাজ্যে ফিরে যাওয়ার ইচ্ছা প্রকাশ করেন। তবে তাকে যুক্তরাজ্যে ফিরে যেতে দেওয়া হবে না বলে জানিয়েছেন ব্রিটিশ স্বরাষ্ট্রমন্ত্রী সাজিদ জাভেদ।

২০১৫ সালের ১৭ ফেব্রুয়ারি গেটউইক বিমনবন্দর দিয়ে তুরস্কে পাড়ি দেন তিন নারী-শামীমা বেগম, আমিরা আবাসি ও খাদিজা সুলতানা। সেখান থেকে সীমান্ত অতিক্রম করে সিরিয়া যান। আইএস জঙ্গিরা সিরিয়া ও ইরাকের বিশাল একটি অংশ দখল করে ইসলামি খেলাফত রাষ্ট্র ঘোষণা করেছিল, যার রাজধানী ছিল সিরিয়ার রাকা শহর।

সিরিয়ায় পাড়ি দেওয়ার সময় বেথনাল গ্রিন একাডেমির তিন ছাত্রীর মধ্যে শামীমা বেগম ও আমিরা আবাসির বয়স ছিল ১৫ বছর। অপর ছাত্রী খাদিজা সুলতানা ছিলেন ১৬ বছর বয়সী। তাদের তিন মাস আগে একই বিদ্যালয়ের ছাত্রী শারমিনা বেগম সিরিয়ায় পাড়ি দিয়েছিলেন। শারমিনার সঙ্গে যোগাযোগের সূত্র ধরেই তিন মেয়ে একসঙ্গে সিরিয়ায় পাড়ি দেন বলে ধারণা। শামীমা বেগম, খাদিজা সুলতানা ও শারমিনা বেগম—এই তিনজন বাংলাদেশি পরিবারের সন্তান। খাদিজা সুলতানা ২০১৬ সালে বোমা হামলায় নিহত হন বলে খবর পাওয়া গিয়েছিল।