• শুক্রবার, এপ্রিল ১৯, ২০১৯
  • সর্বশেষ আপডেট : ১১:১৩ রাত

খাসোগির ‘রক্তের বিনিময়ে’ সন্তানদের বাড়ি-অর্থ দিচ্ছে সৌদি

  • প্রকাশিত ০৫:১৮ সন্ধ্যা এপ্রিল ২, ২০১৯
জামাল খাসোগি
গত বছরের ২ অক্টোবর তুরস্কের ইস্তানবুলে সৌদি কনস্যুলেটের ভেতর সাংবাদিক জামাল খাসোগিকে হত্যা করা হয়। ছবি: এএফপি।

গত বছরের অক্টোবরে খুন হন সৌদি রাজতন্ত্রের একজন কঠোর সমালোচক এবং ওয়াশিংটন পোস্টের সাংবাদিক জামাল খাসোগি। ইস্তান্বুলের সৌদি কনস্যুলেটে খুন করার পর তার লাশও গুম করা হয়।

হত্যাকাণ্ডের শিকার সৌদি সাংবাদিক জামাল খাসোগির সন্তানদেরকে বিলাসবহুল বাড়ি এবং হাজার হাজার ডলার দেওয়া হচ্ছে সৌদি সরকারের পক্ষ থেকে। সোমবার এমন তথ্যই জানিয়েছে মার্কিন গণমাধ্যম দ্য ওয়াশিংটন পোস্ট।

বার্তা সংস্থা এএফপির এক প্রতিবেদনে বলা হয়, গত বছরের অক্টোবরে খুন হন সৌদি রাজতন্ত্রের একজন কঠোর সমালোচক এবং ওয়াশিংটন পোস্টের সাংবাদিক জামাল খাসোগি। ইস্তান্বুলের সৌদি কনস্যুলেটে খুন করার পর তার লাশও গুম করা হয়। এই কাজের দায়িত্ব দেওয়া হয় রিয়াদ থেকে পাঠানো ১৫ সদস্যের একটি দলকে। শেষ পর্যন্ত তার লাশ আর খুঁজে পাওয়া যায়নি।

ওয়াশিংটন পোস্টের দাবি, জামাল খাসোগির দুই ছেলে এবং দুই মেয়ের সঙ্গে দীর্ঘমেয়াদী একটি চুক্তি এবং জনসমক্ষে তাদের বাবার হত্যাকাণ্ড সম্পর্কে মন্তব্য করতে বিরত রাখার জন্যই এই উদ্যোগ নিয়েছে সৌদি সরকার।

জানা যায়, খাসোগির সন্তানদের দেওয়া বাড়িটির অবস্থান বন্দর নগরী জেদ্দায়। যার আনুমানিক মূল্য ৪০ লাখ মার্কিন ডলার। খাসোগির জ্যেষ্ঠ্য সন্তান সালাহ সৌদি আরবেই থাকতে চান। কিন্তু মার্কিন যুক্তরাষ্ট্রে থাকা তার অন্য সন্তানরা চান ওই বাড়িটিকে বিক্রি করে দিতে।

এছাড়াও, খাসোগির সন্তানদেরকে প্রতি মাসে দশ হাজার ডলারের পাশাপাশি প্রত্যেককেই এককালীন বড় অঙ্কের অর্থ দেওয়া হবে বলেও জানায় ওয়াশিংটন পোস্ট।

উল্লেখ্য, জামাল খাসোগির নির্মম হত্যাকাণ্ডে সৌদি ক্রাউন প্রিন্স মোহাম্মদ বিন সালমানকে দায়ী করা হলেও বরাবরই এমন অভিযোগ প্রত্যাখ্যান করে আসছে দেশটির সরকার।

সৌদি আরব প্রাথমিকভাবে এই হত্যাকাণ্ডের বিষয়ে কিছুই জানা নেই বলে দাবি করলেও পরে কতিপয় ‘অসৎ গুপ্তচর’-এর ওপর ঘটনার দায় চাপায়। খাসোগি হত্যাকাণ্ডে ১১ সৌদি নাগরিককে দায়ী করেছেন সৌদির পাবলিক প্রসিকিউটর।