• সোমবার, সেপ্টেম্বর ১৬, ২০১৯
  • সর্বশেষ আপডেট : ১০:২৪ রাত

মোদির সেই ধ্যানের গুহায় হোটেলের সব সুবিধা

  • প্রকাশিত ০২:১১ দুপুর মে ২০, ২০১৯
মোদির গুহার বহির্ভাগ
মোদির গুহার বহির্ভাগ। ছবি: সংগৃহীত

মোদির গুহায় থাকতে হলে আপনাকে গুনতে হবে ৯৯০ রুপি

ভারতের লোকসভা নির্বাচনের শেষ পর্যায়ের ভোটগ্রহণের আগের দিন কেদারনাথের একটি গুহায় ধ্যানে বসে আলোচনার জন্ম দেন দেশটির প্রধানমন্ত্রী নরেন্দ্র মোদি। এবার জানা গেলো মোদির সে ধ্যানের গুহায় রয়েছে একটি আধুনিক হোটেলের সব ধরণের সুযোগ সুবিধা।

ভারতের বিভিন্ন গণমাধ্যমের খবরে এসব তথ্য বেরিয়ে এসেছে। জানা যায়, মোদি যে গুহায় ধ্যানমগ্ন হয়েছিলেন সেটি প্রাকৃতিক গুহা হলেও গুহার বাইরের দেয়ালটি কৃত্রিমভাবে পাথর দিয়ে তৈরি করা। গুহায় রয়েছে একটি শক্তপোক্ত কাঠের দরজা। গুহায় আরও রয়েছে বিদ্যুৎ সংযোগ, পানি গরম করার জন্য গিজার, গুহা গরম করার জন্য রয়েছে রুম হিটার। এমনকি প্রাতঃকৃত্য কিংবা গোসলের জন্য ওই গুহায় সুসজ্জিত বাথরুম এবং টয়লেটের ব্যবস্থাও রয়েছে। এছাড়া প্রাতঃরাশ, মধ্যাহ্নভোজন এবং নৈশভোজেরও ব্যবস্থা রয়েছে গুহাটিতে। অন্যদিকে জরুরি প্রয়োজনে ব্যবহারের জন্য একটি টেলিফোন সংযোগ রয়েছে ওই গুহায়। এরপরও যেকোনো সমস্যায় বেয়ারাকে ডাকার জন্য গুহাতে একটি বিশেষ ঘন্টার ব্যবস্থাও রয়েছে।






 


 


 

মোদির ধ্যানের সেই গুহায় রয়েছে হোটেলের বিভিন্ন সুযোগ সুবিধা। ছবি: সংগৃহীত

মূলত এটি একটি পর্যটন কেন্দ্র। চাইলে আপনিও সেখানে থাকতে পারবেন। তার জন্য আপনাকে গুনতে হবে ৯৯০ রুপি। তবে শুধু রুপি দিলেও ওই গুহায় থাকার অনুমতি মিলবেনা। গুহায় প্রবেশের আগে ডাক্তারি পরীক্ষায় উত্তীর্ণ হলে তবেই মিলবে থাকার অনুমতি। এছাড়াও রাত্রিযাপনের কমপক্ষে তিন দিন আগে থেকে দিতে হবে বুকিং।

গত বছরের সেপ্টেম্বরে বিশেষ এই গুহাটি পর্যটকদের জন্য চালু করে গঢ়বাল মণ্ডল বিকাশ নিগম (জিএমবিএন)। মোদি যে গুহায় অবস্থান করেছিলেন সেটি কেদারনাথ মন্দির থেকে এক কিলোমিটার উপরে বাঁ দিকের একটি পাহাড়ের উপর অবস্থিত। ওই গুহাটির বিপরীতে রয়েছে কেদারনাথ মন্দির এবং ভৈরবনাথ মন্দির। 


আরও পড়ুন: হেলিকপ্টারে করে কেদারনাথে ধ্যান করতে গেলেন মোদি


এদিকে নিগম কর্মকর্তাদের দাবি, এমন গুহার পরিকল্পনা প্রধানমন্ত্রী নরেন্দ্র মোদিরই মস্তিষ্কপ্রসূত। মূলত ধ্যানের প্রতি আগ্রহ বাড়াতেই এমন পরিকল্পনা বলেও জানান তারা।

তবে নিগম কর্তৃপক্ষ যাই বলুক না কেন মোদির গুহার আধুনিক সুযোগ সুবিধার খবর প্রকাশিত হওয়ার পর থেকেই সারা ভারতেই মোদিকে নিয়ে ব্যাঙ্গ-বিদ্রূপের ঝড় উঠেছে।