• মঙ্গলবার, অক্টোবর ২২, ২০১৯
  • সর্বশেষ আপডেট : ০৮:২০ রাত

সেনাবাহিনীর চাকরি এড়াতে ৮১ বছরের বৃদ্ধাকে বিয়ে করলেন ২৪ বছরের তরুণ!

  • প্রকাশিত ০৫:৫৫ সন্ধ্যা অক্টোবর ১, ২০১৯
ইউক্রেন
আলেক্সান্ডার কোন্ড্রাটিউক ও তার স্ত্রী। ছবি: সংগৃহীত

আইনগতভাবে সে তার অক্ষম স্ত্রীর দেখভালকারী। তাদের বিয়ের বৈধ কাগজপত্রও রয়েছে

দেশের নিয়মানুযায়ী সেনাবাহিনীর বাধ্যতামূলক চাকরি এড়াতে নিজের চেয়ে ৫৭ বছরের বড় এক নারীকে বিয়ে করেছেন ২৪ বছর বয়সী এক ইউক্রেনীয় যুবক। দুই বছর ধরে সংসারও করছেন তারা। এ ঘটনায় অনলাইনে ব্যাপক সমালোচনার শিকার হলেও দেশটির প্রচলিত আইনে কোনো বাধা নেই।

ব্রিটিশ গণমাধ্যম মেট্রো অনলাইনের এক প্রতিবেদনে বলা হয়েছে, ইউক্রেনের আইনানুযায়ী ২০১৭ সালের শেষদিকে বাধ্যমূলক সেনাবাহিনীতে যোগদানের নোটিশ পান ভিনিস্তা শহরের যুবক আলেক্সান্ডার কোন্ড্রাটিউক। সেদেশের নিয়মানুযায়ী ১৮ থেকে ২৬ বছর বয়সী প্রত্যেক নাগরিককে বাধ্যতামূলক সেনাবাহিনীতে কাজ করতে হয়। তবে একটি শর্তে এই নিয়মের ব্যতয় ঘটতে পারে। আর তা হলো কোনো ব্যক্তির ‘অক্ষম’ স্ত্রী তার ওপর নির্ভরশীল হলে ওই পুরুষের ক্ষেত্রে এ বাধ্যবাধকতা থাকে না।

আইনের এই ‘ফাঁকা’ গলেই বেরিয়ে গিয়েছেন আলেক্সান্ডার। এক বন্ধুর ৮১ বছর বয়সী দাদীকে বুঝিয়ে শুনিয়ে রাজি করান বিয়েতে। ওই নারী ছিলেন শারীরিকভাবে অক্ষম। তাদের দাম্পত্য জীবন অতিক্রম করেছে দুই বছর। বর্তমানে আলেক্সান্ডারের বয়স ২৪।

বিষয়টি প্রথম সামনে আসে ২০১৮ সালের শুরুর দিকে। এই অসম বিয়ে নাকচের জন্য প্রসিকিউটরের শরণাপন্ন হয়েছিল ভিনিস্তা শহরের মিলিটারি থানা। অভিযোগ ছিল জালিয়াতি করেছেন আলেক্সান্ডার। তবে তদন্তে বেরিয়ে আসে- কোনো জালিয়াতি নয়, আইনসম্মতভাবেই বিয়ে করেছেন তারা।

এরপর আর সেনাবাহিনীর কোনো জোর তার ওপর খাটেনি। 

এ বিষয়ে স্থানীয় মিলিটারি থানার ভারপ্রাপ্ত কর্মকর্তা আলেক্সান্ডার দানিলুয়ুক সাংবাদিকদের বলেন, আইনগতভাবে সে তার অক্ষম স্ত্রীর দেখভালকারী। তাদের বিয়ের বৈধ কাগজপত্রও রয়েছে। এখানে সেনাবাহিনীর আর কিছু করার নেই।

তবে শুধুমাত্র সেনাবাহিনীর চাকরি এড়াতেই তিনি ওই বৃদ্ধাকে বিয়ে করেছেন বলে মানতে নারাজ আলেক্সান্ডার। তার দাবি, স্ত্রীকে যথেষ্ট ভালোবাসেন তিনি। স্ত্রীও জানিয়েছেন, স্বামী তার যথেষ্ট খেয়াল রাখেন।

আর দুই বছর পেরোলেই সেনাবাহিনীর চাকরিতে প্রবেশের বয়সসীমা পেরিয়ে যাবে ২৪ বছর বয়সী আলেক্সান্ডারের।