• রবিবার, জুলাই ২১, ২০১৯
  • সর্বশেষ আপডেট : ০১:৫১ দুপুর

ঘরের খুঁটিনাটি কাজের জন্য স্বামীকে বিরক্ত করায় স্ত্রী'র কারাদণ্ড!

  • প্রকাশিত ০৬:৩৯ সন্ধ্যা জুন ২৮, ২০১৯
বিচ্ছেদ
ছবি: সংগৃহীত

২০১২ সালে অনলাইনে পরিচয়ের পর বিয়ে করেছিলেন তারা।

ংসারের বিভিন্ন বিষয় নিয়ে স্বামী-স্ত্রীর মধ্যে মান-অভিমান বা ঝগড়াঝাটি হয়েই থাকে। খুব বেশি খারাপ পরিস্থিতি না হলে পরে আবার সবকিছু ঠিকও হয়ে যায়। কিন্তু ঘরের কাজের জন্য স্বামীকে বিরক্ত করায় এক ব্রিটিশ নারীকে কারাভোগের সাজা দিয়েছে দেশটির পুলিশ।

ঘটনার শুরু গত বছরের এপ্রিলে। ভ্যালেরি নামের ওই নারীর স্বামীর কর্মস্থল পরিদর্শনে গিয়ে তাকে বিরক্তমুখে দেখতে পান জবসেন্টার ইউকে নামের একটি প্রতিষ্ঠানের এক কর্মকর্তা। কারণ জানতে চাইলে তিনি বলেন, স্ত্রী তার ‘কাজকর্ম নিয়ন্ত্রণের চেষ্টা’ করছেন। ব্রিটেনের আইনানুসারে কোনো প্রাপ্তবয়স্ক মানুষকে তার পছন্দের কাজে বাধা দেওয়া অপরাধ হিসেবে বিবেচিত হয়।

ঘটনাটি জানতে পেরে ক্যাটেরিক শহরের পুলিশ ওই নারীকে আটক করে ১৭ ঘণ্টার কারাবাস দেয় এবং তাকে আদালতের শরণাপন্ন হতে বাধ্য করে।

ওই নারী জানান, “আমাকে আটক করে কারাগারে নিয়ে যাওয়া হয়। জীবনে এমন পরিস্থিতির সম্মুখীন হইনি। নিজেকে অপরাধী মনে হচ্ছিল। আমি তাকে কেবল ঘর পরিষ্কারের জন্য বলেছিলাম। সে চার ঘণ্টা ধরে নিজের গাড়ি পরিষ্কার করছিল। এটা কোনোভাবেই নিয়ন্ত্রণ চেষ্টা নয়। এমন হলে প্রত্যেক দম্পতিকেই তো আদালতে আসতে হবে।”

তবে পেশায় শরীরচর্চাবিদ মাইকেল জানান, স্ত্রীকে কারাভোগ করানো তার উদ্দেশ্য ছিল না। তবে তিনি ভুলটা ধরিয়ে দিতে চেয়েছিলেন।

তার অভিযোগ, “আমাদের মধ্যে আর কোনো ভালোবাসা অবশিষ্ট নেই। সে তার কুকুরগুলোকে চুমু খায়, জড়িয়ে ধরে। আমাকে নয়।”

তবে পাল্টা অভিযোগ করে ভ্যালেরি বলেন, তার স্বামী জিম ম্যানেজারের চাকরি শুরুর পর কেবল কসরৎ আর ডায়েট নিয়েই পড়ে থাকতেন। যা তাদের সম্পর্কে তিক্ততার সৃষ্টি করে। একসঙ্গে বাইরে বেড়ানোও বন্ধ হয়ে গিয়েছিল।

উল্লেখ্য, ২০১২ সালে অনলাইনে পরিচয়ের পর বিয়ে করেন মাইকেল ও ভ্যালেরি। তবে এ ঘটনার পর বিচ্ছেদের সিদ্ধান্ত নিয়েছেন ভ্যালেরি।