• বুধবার, জুলাই ২৪, ২০১৯
  • সর্বশেষ আপডেট : ১২:৪৪ রাত

জমজ ভাইয়ের সঙ্গে বন্দিত্ব বদল!

  • প্রকাশিত ০৭:২৭ রাত জুলাই ১, ২০১৯
তুরস্ক জমজ
ছবি: সংগৃহীত

কারাকর্তৃপক্ষের অনুমতি নিয়ে সাক্ষাতের এক পর্যায়ে তারা বন্দিত্ব বিনিময়ের ফন্দি আঁটে

জমজ সহোদরদের চেহারা এবং বাহ্যিক গঠন এতোটাই সামঞ্জস্যপূর্ণ হয়ে থাকে যে, তাদের বাবা-মাকেও অনেক সময় খুঁজতে গিয়ে বিপদে পড়তে হয়। সেখানে বাইরের কারও পক্ষে সহজে জমজদের চিহ্নিত করা কখনো কখনো অসম্ভব। এবার এই সুবিধার সম্পূর্ণ ‘সদ্বব্যহার’ করেছে তুরস্কের এক বন্দি।

কারারক্ষীদের চোখে ধুলো দিয়ে জমজ সহোদরকে কারাগারে রেখে পালায় একটি হত্যা মামলায় বন্দি ১৯ বছর বয়সী তুর্কি যুবক মুরাত।

জানা যায়, হত্যার অপরাধে দীর্ঘদিন কারাভোগের সাজা হয় মুরাতের। তাকে রাখা হয়েছিল তুরস্কের দক্ষিণাঞ্চলীয় কারাগার ই টিপি কাপাসি-তে। গত বৃহস্পতিবার সেখানে দেখা করতে আসে জমজ ভাই হুসেইন। কারাকর্তৃপক্ষের অনুমতি নিয়ে সাক্ষাতের এক পর্যায়ে তারা বন্দিত্ব বিনিময়ের ফন্দি আঁটে। সেই মোতাবেক তারা কিছুক্ষণের জন্য একসঙ্গে হাঁটার আবেদন করে। কর্তৃপক্ষ তাদের আবদার মেনে নিলে মুরাতের পরিবর্তে বন্দিত্ব বরণ করে নেয় হুসেইন।

উল্লেখ্য, তারা দেখতে হুবহু একরকম না হলেও কারাকর্তৃপক্ষকে ধোঁকা দিতে সক্ষম হয়। তবে তাদের এই অদ্ভুত কাণ্ডের কারণ সম্পর্কে এখনও কিছু জানা যায়নি। এ বিষয়ে তদন্ত চলছে।

উল্লেখ্য, তুরস্কের ওই বন্দিশালায় কোনো আধুনিক ফেস রিকনিশন সিস্টেম নেই। তবে ভাইয়ের বদলে বন্দিত্ব বরণ করা হুসেইনের আচরণে সন্দেহ হয় কারারক্ষীদের। পরে ঘটনাটি জানানো হলে খোঁজ নিতে শুরু করে স্থানীয় পুলিশ। বাড়িতে গিয়ে মুরাতকে আবার ধরে এনে কারাগারে পাঠানো হয়।

বর্তমানে দুই ভাই-ই ওই কারাগারে বন্দি।

তবে মজার বিষয় হলো, এমন ঘটনা এবারই প্রথম নয়। বছর কয়েক আগে পেরুতেও দুই জমজ ভাই বন্দিত্ব বিনিময় করেছিল।