• বৃহস্পতিবার, নভেম্বর ১৪, ২০১৯
  • সর্বশেষ আপডেট : ০৯:৩১ রাত

চলতি মাসেই আসছে ৫ টাকার স্যানিটারি ন্যাপকিন

  • প্রকাশিত ০৬:৫৪ সন্ধ্যা সেপ্টেম্বর ৩, ২০১৯
s

বাজারে আট পিসের এক প্যাকেট এমন ন্যাপকিনের দাম ৭০ থেকে ২৫০ টাকা পর্যন্ত।  

বাজারে ৫ টাকার স্যানিটারি ন্যাপকিন আনতে যাচ্ছে দাতব্য সংস্থা 'বিদ্যানন্দ'। পাশাপাশি নিম্ন-আয়ের মানুষের জন্য ৩ লাখ ন্যাপকিন বিনামূল্যে সরবরাহ করা হবে বলে জানিয়েছে সংস্থাটি।  

বিদ্যানন্দের প্রতিষ্ঠাতা কিশোর কুমার দাশ জানান, ২০১৭ সালের জানুয়ারিতে তারা কমমূল্যে স্যানিটারি ন্যাপকিন বাজারে আনার পরিকল্পনা নেন।

কিশোর কুমার বলেন, "তখন থেকেই আমরা প্যাডের নকশা নিয়ে পরীক্ষা চালাচ্ছি। প্রাথমিকভাবে আমরা নিজেদের নকশায় উৎপাদনে যাওয়ার পরিকল্পনা নেই, কিন্তু সেটি আরও বেশি মানানসই করার জন্য বাইরে থেকে ডিজাইন নেওয়া হয়।"    

প্রথম ৩ লাখ স্যানিটারি ন্যাপকিন প্রস্তুতের জন্য ৩ লাখ টাকার তহবিল এর মধ্যেই সংগ্রহ করা হয়েছে বলে জানান বিদ্যানন্দের প্রতিষ্ঠাতা। 

প্রকল্পের সমন্বয়কারী সালমান খান এবিষয়ে বলেন, "১২ সেপ্টেম্বরের মধ্যে আমাদের পণ্য বাজারে ছাড়ার বিষয়ে আমরা আশাবাদী। যে ৩ লাখ প্যাড বিনামূল্যে বিতরণ করা হবে তার মধ্যে কমপক্ষে ১ হাজার প্যাড শুরুর দিনে কিশোরী ও কম বয়সী নারী, বিশেষ করে যারা ঢাকার বিভিন্ন বস্তিতে বাস করে তাদের মাঝে বিতরণ করা হবে।"   

সালমান আরও জানান, প্রতিটি প্যাড প্রস্তুতে ৭ টাকা করে খরচ হচ্ছে। বাড়তি অর্থ বিদ্যানন্দ বহন করছে। পাঁচজন শ্রমিকের একটি দল দিনে ৫০০-এর মতো প্যাড উৎপাদন করতে পারে বলে জানান তিনি। 

কিশোর কুমার জানান, সম্প্রতি একটি হোস্টেলে পরিচ্ছন্নতা নিয়ে আলোচনার সময় স্যানিটারি প্যাডের বিষয়টি তার নজরে আসে। তখন এমন একটি প্রয়োজনীয় জিনিসের মূল্য দেখে উদ্বিগ্ন হন তিনি। এরপরই স্যানিটারি ন্যাপকিনের বাণিজ্যিক উৎপাদনের বিষয়ে পরিকল্পনা করেন তিনি। 

ন্যাশনাল হাইজিন বেসলাইনের প্রতিবেদন অনুযায়ী, বাংলাদেশের শহর অঞ্চলে মাত্র ৩৩ শতাংশ নারী একবার ব্যবহার করা যায় এমন স্যানিটারি ন্যাপকিন ব্যবহার করেন। বাজারে আট পিসের এক প্যাকেট এমন ন্যাপকিনের দাম ৭০ থেকে ২৫০ টাকা পর্যন্ত।  

বাংলাদেশে ৪০০ কোটি টাকার স্যানিটারি ন্যাপকিনের বাজার রয়েছে বলে জানা গেছে। আর প্রতি বছর ২০ শতাংশ করে এই বাজারের সম্প্রসারণ হচ্ছে।