• রবিবার, জুলাই ২১, ২০১৯
  • সর্বশেষ আপডেট : ০২:১৮ রাত

ছাত্রলীগের কমিটি থেকে বিতর্কিতদের বাদ দেওয়ার নির্দেশ প্রধানমন্ত্রীর

  • প্রকাশিত ০৮:৩৩ রাত মে ১৫, ২০১৯
শেখ হাসিনা
ফোকাস বাংলা

৩০১ সদস্যের কেন্দ্রীয় কমিটিতে অছাত্র, ছাত্রদলের কর্মী, বিবাহিত ও বিতর্কিতদের স্থান দেওয়া হয়েছে, এমন অভিযোগ করে ঢাকা বিশ্ববিদ্যালয়ের মধুর ক্যান্টিনে সংবাদ সম্মেলনের সময় ছাত্রলীগ নেতাকর্মীদের ওপর হামলার ঘটনা ঘটে।

ছাত্রলীগের সদ্য ঘোষিত পূর্ণাঙ্গ কমিটি থেকে বিতর্কিতদের বাদ দেওয়ার নির্দেশ দিয়েছেন প্রধানমন্ত্রী শেখ হাসিনা। বুধবার (১৫ মে) দুপুরে ছাত্রলীগের সভাপতি রেজওয়ানুল হক চৌধুরী শোভন ও সাধারণ সম্পাদক গোলাম রাব্বানী সাক্ষাৎ করতে গেলে তিনি এ নির্দেশ দেন।

বাংলা ট্রিবিউনকে বিষয়টি নিশ্চিত করেছেন ছাত্রলীগ সভাপতি রেজওয়ানুল হক চৌধুরী শোভন। 

তিনি বলেন, ‘‘আমরা প্রধানমন্ত্রীর সঙ্গে দেখা করেছি। হামলায় জড়িত ও কমিটিতে পদ পাওয়া বিতর্কিতদের বিষয়ে প্রধানমন্ত্রীর সঙ্গে কথা হয়েছে। তদন্ত করে হামলায় জড়িত ও বিতর্কিতদের বিষয়ে অভিযোগের সত্যতা পাওয়া গেলে সেসব পদ শূণ্য ঘোষণা করা হবে।’’

শোভন আরও বলেন, কমিটি নিয়ে যারা সামাজিক যোগাযোগ মাধ্যমে বিভিন্ন পোস্ট দিচ্ছেন ও অভিযোগ করছেন তাদেরকে বলবো, আপনারা সেসব তথ্য আমাদেরকে দিন। আমরা ব্যবস্থা নেবো।

ছাত্রলীগের সাধারণ সম্পাদক গোলাম রাব্বানী বলেন, ‘‘ঘোষিত কমিটিতে যারা রয়েছে তাদের বিরুদ্ধে কেউ প্রমাণসহ লিখিত অভিযোগ উপস্থাপন করলে তাদের কমিটি থেকে বাদ দিতে আপা (প্রধানমন্ত্রী) আমাদের নির্দেশনা দিয়েছেন। কেউ যদি উপযুক্ত প্রমাণসহ অভিযোগ দেন তাহলে আমরা অবশ্যই ব্যবস্থা নেবো। তবে এখন পর্যন্ত কেউ আমাদের কাছে কোনো অভিযোগ উপস্থাপন করেননি।’’

তিনি আরও বলেন, “আপার (প্রধানমন্ত্রী শেখ হাসিনা) সঙ্গে সাবেক সভাপতি ও সাধারণ সম্পাদকসহ আমরা সাক্ষাৎ করেছিলাম। তারা প্রধামন্ত্রীর কাছে অভিযোগ করেছেন যে তাদের সর্মথনকারীদের কমিটিতে রাখা হয়নি। এর জবাবে আপা আমাদের পক্ষে কথা বলেছেন। প্রধানমন্ত্রী বলেছেন ‘সাবেকদের অনুসারীদের ৯০ জনকে রাখা হয়েছে, যা ৩০১ সদস্যদের কমিটির জন্য অনেক বেশি’।”

এদিকে ছাত্রলীগের ‘পদবঞ্চিতদের ওপর হামলা’র ঘটনা তদন্তের কাজ শেষ পর্যায়ে রয়েছে। আজ রাতে বা আগামীকাল বৃহস্পতিবার (১৬ মে) সকালের মধ্যেই তদন্তের প্রতিবেদন দফতর সেলে জমা হবে বলে জানিয়েছেন কমিটির সদস্য ও ছাত্রলীগের সিনিয়র সহ-সভাপতি আল নাহিয়ান খান জয়। এরআগে, ঘটনার দিন তিন সদস্যের একটি তদন্ত কমিটি গঠন করা হয়। কমিটিকে ঘটনার দিন হতে ৪৮ ঘণ্টার মধ্যে তদন্ত প্রতিবেদন জমা দেওেয়ার নির্দেশ দেওয়া হয়েছিল।

উল্লেখ্য, ৩০১ সদস্যের কেন্দ্রীয় কমিটিতে অছাত্র, ছাত্রদলের কর্মী, বিবাহিত ও বিতর্কিতদের স্থান দেওয়া হয়েছে, এমন অভিযোগ করে ঢাকা বিশ্ববিদ্যালয়ের মধুর ক্যান্টিনে সংবাদ সম্মেলনের সময় ছাত্রলীগ নেতাকর্মীদের ওপর হামলার ঘটনা ঘটে।