• মঙ্গলবার, অক্টোবর ১৫, ২০১৯
  • সর্বশেষ আপডেট : ০৬:১৫ সন্ধ্যা

ছাত্রলীগ: পূর্ণাঙ্গ কমিটির ১৭ অভিযুক্ত শনাক্ত

  • প্রকাশিত ১০:২২ সকাল মে ১৬, ২০১৯
ছাত্রলীগ
পূর্ণাঙ্গ কমিটি ঘোষণার পর ঢাকা বিশ্ববিদ্যালয়ের মধুর ক্যান্টিনে সংঘর্ষে জড়িয়ে পড়ে ছাত্রলীগের দু'টি বিবাদমান পক্ষ। ছবি: ঢাকা ট্রিবিউন

'একটি বিশেষ শক্তি ছাত্রলীগকে বিতর্কিত করার জন্য কাজ করছে। তারা সাবেক সিন্ডিকেটের উদ্দেশ্য বাস্তবায়নে মাঠে নেমেছে।'

সংগঠনের সদ্য ঘোষিত পূর্ণাঙ্গ কমিটিতে পদ পাওয়া ১৭ জনের বিরুদ্ধে বিভিন্ন অভিযোগ পেয়েছে কেন্দ্রীয় ছাত্রলীগ। এসব অভিযোগ যাচাই-বাছাই করতে ২৪ ঘণ্টা সময় নিয়েছেন ছাত্রলীগ সভাপতি রেজওয়ানুল হক চৌধুরী শোভন ও সাধারণ সম্পাদক গোলাম রাব্বানী। সদ্য ঘোষিত ছাত্রলীগের পূর্ণাঙ্গ কমিটি থেকে বিতর্কিতদের বাদ দেওয়ার বিষয়ে প্রধানমন্ত্রী শেখ হাসিনার নির্দেশের কয়েক ঘণ্টার মধ্যেই এ ঘোষণা দেয় সংগঠনটি।

বাংলা ট্রিবিউনের এক প্রতিবেদনে বলা হয়, বুধবার (১৫ মে) দিবাগত রাত ১২টায় রাজধানীর ধানমন্ডিতে আওয়ামী লীগ সভাপতির রাজনৈতিক কার্যালয়ে আয়োজিত সংবাদ সম্মেলনে এসব তথ্য জানান শোভন-রাব্বানী।

সংবাদ সম্মেলনে রাব্বানী বলেন, একটি বিশেষ শক্তি ছাত্রলীগকে বিতর্কিত করার জন্য কাজ করছে। তারা সাবেক সিন্ডিকেটের উদ্দেশ্য বাস্তবায়নে মাঠে নেমেছে। বর্তমান কমিটির ১৭ জনের বিরুদ্ধে গঠনতন্ত্রবিরোধী অভিযোগ পাওয়া গেছে। ২৪ ঘণ্টার মধ্যে যাচাই-বাছাই করে তাদের বিষয়ে চূড়ান্ত সিদ্ধান্ত নেওয়া হবে। 

অভিযুক্তদের বিষয়ে তিনি বলেন, ‘‘অভিযোগ থেকে মুক্তি পেলে তাদের পদ থাকবে। অন্যথায় তাদের পদগুলো শূন্য ঘোষণা করে যোগ্যদের সেখানে স্থান দেওয়া হবে।’’

এ সময় ১৭ জন অভিযুক্তের মধ্যে দুই জন বাদে ১৫ জনের নাম ঘোষণা করেন গোলাম রব্বানী। তিনি বলেন, ‘‘এই ১৭ জনের বিরুদ্ধে বিভিন্ন ধরনের অভিযোগ পাওয়া গেছে।’’

রাব্বানি ঘোষিত ১৫ অভিযুক্ত হলেন–  তানজীল ভূঁইয়া তানভীর, আরেফিন সিদ্দিকী সুজন, সুরঞ্জন ঘোষ, আতিকুর রহমান খান, বরকত হোসেন হাওলাদার, শাহরিয়ার হোসেন বিদ্যুৎ, মাহমুদুল হাসান তুষার, আমিনুল ইসলাম বুলবুল, আহসান হাবীব, সাদিক খান, তৌফিক হাসান সাগর, সোহানী হাসান তিথি, রুশি চৌধুরী, আফরিন লাবণী এবং মুনমুন নাহার বৈশাখী।

রাব্বানী আরও অভিযোগ করেন, সদ্য সাবেক প্রেসিডেন্ট-সেক্রেটারি আমাদের সহযোগিতা করেননি বলেই কমিটি গঠনে বিলম্ব হয়েছে। বিষয়টি ছাত্রলীগের কমিটি গঠনে দায়িত্বপ্রাপ্ত আওয়ামী লীগের জাতীয় নেতারাও জানেন।

ছাত্রলীগের শৃঙ্খলা পরিপন্থী কাজ যারা করেছে তাদের বহিষ্কার করা হবে জানিয়ে সংবাদ সম্মেলনে ছাত্রলীগ সভাপতি শোভন বলেন, ‘‘ছাত্রলীগের কমিটি হওয়ার পর একটি মহল বিভিন্ন মাধ্যমের যে আক্রমণাত্মক ভাষায় ক্ষোভ প্রকাশ করেছে তা সংগঠনের শৃঙ্খলা পরিপন্থী। ক্ষোভ প্রকাশের জন্য দলীয় ফোরাম রয়েছে। যারা শৃঙ্খলা পরিপন্থী কাজের সঙ্গে যুক্ত ছিলেন তাদেরকেও খুঁজে বের করে বহিষ্কার করা হবে।’’

সংবাদ সম্মেলনে আরও উপস্থিত ছিলেন– ঢাবি শাখা ছাত্রলীগের সভাপতি সনজিত চন্দ্র দাস, সাধারণ সম্পাদক সাদ্দাম হোসেনসহ আরও অনেকে।