• মঙ্গলবার, আগস্ট ২০, ২০১৯
  • সর্বশেষ আপডেট : ১০:৫০ রাত

আমীর খসরু: এই বাজেট ঋণনির্ভর

  • প্রকাশিত ০৫:৫৮ সন্ধ্যা জুন ১৩, ২০১৯
আমীর খসরু
বিএনপি নেতা আমীর খসরু মাহমুদ চৌধুরী। ফাইল ছবি/ঢাকা ট্রিবিউন

বিএনপির এই নেতা বলেন, ‘এই বাজেটে মানুষের প্রত্যাশা পূরণ হয়নি। দেশের সামষ্টিক অর্থনীতি নষ্ট হয়ে গেছে।’

বর্তমান সরকারকে দক্ষিণ এশিয়ার একমাত্র অনির্বাচিত সরকার বলে আখ্যায়িত করেছেন সাবেক বাণিজ্যমন্ত্রী ও বিএনপির স্থায়ী কমিটির সদস্য আমীর খসরু মাহমুদ চৌধুরী। তিনি বলেন, “এই সরকারের বাজেট দেওয়ার নৈতিক অধিকার নেই। এটি একটি ঋণনির্ভর বাজেট।”

১৩ জুন, বৃহস্পতিবার বিকালে রাজধানীর হোটেল সারিনায় সাংবাদিকদের ব্রিফ করার সময় আমীর খসরু এসব কথা বলেন। খবর বাংলা ট্রিবিউনের।  

বিএনপির এই নেতা বলেন, “এই বাজেটে মানুষের প্রত্যাশা পূরণ হয়নি। দেশের সামষ্টিক অর্থনীতি নষ্ট হয়ে গেছে।”

বিএনপির দলীয় দায়িত্বশীল একাধিক সূত্র বলছে, সংসদে বাজেট অধিবেশনের পর দলীয় এমপিরা কথা বলতে পারেন সংবাদমাধ্যমে। এছাড়া, দলীয়ভাবে আনুষ্ঠানিকভাবে আগামী ১৪ জুন, শুক্রবার বিএনপির মহাসচিব মির্জা ফখরুল ইসলাম আলমগীরসহ সিনিয়র নেতারা দলীয় প্রতিক্রিয়া জানাবেন।

এর আগে জাতীয় সংসদ ভবনে প্রধানমন্ত্রীর সভাপতিত্বে মন্ত্রিপরিষদের বৈঠকে ২০১৯-২০ অর্থবছরের প্রস্তাবিত বাজেটে অনুমোদন দেওয়া হলেও সে বৈঠকেও আধঘণ্টা দেরিতে পৌঁছান অর্থমন্ত্রী। দুপুর ১টা ২১ মিনিটে বৈঠকে যোগ দেন তিনি। এবার অর্থমন্ত্রী হিসেবে আ হ ম মুস্তাফা কামালের এটিই প্রথমবারের মতো বাজেট পেশ। এটি দেশের ৪৮তম ও আওয়ামী লীগ সরকারের ২০তম বাজেট। বাজেট পেশ করার সময় অর্থমন্ত্রী আ হ ম মুস্তাফা কামাল অসুস্থ হয়ে পড়লে তার পক্ষ থেকে সংসদে বাজেট বক্তৃতা পেশ করেন প্রধানমন্ত্রী শেখ হাসিনা।

উল্লেখ্য, বৃহস্পতিবার (১৩ জুন) নতুন ২০১৯-২০ অর্থবছরের জন্য ৫ লাখ ২৩ হাজার ১৯০ কোটি টাকার বাজেট সংসদে পেশ করা হয়েছে। প্রস্তাবিত নতুন ২০১৯-২০ অর্থবছরের বাজেটের আকার চলতি ২০১৮-১৯ অর্থবছরের মূল বাজেটের তুলনায় ৫৮ হাজার ৬১৭ কোটি টাকা বেশি। চলতি অর্থবছরের মূল বাজেটের আকার ছিল ৪ লাখ ৬৪ হাজার ৫৭৩ কোটি টাকা। লক্ষ্যমাত্রা অনুযায়ী রাজস্ব আদায় করতে না পারা ও উন্নয়ন প্রকল্পে পরিকল্পনা অনুযায়ী অর্থ খরচ করতে না পারায় চলতি অর্থবছরের সংশোধিত বাজেটের আকার নির্ধারণ করা হয়েছে ৪ লাখ ৪২ হাজার ৫৪১ কোটি টাকা। বর্তমান সরকারের তৃতীয় মেয়াদের প্রথম বাজেটের আকার চলতি অর্থবছরের সংশোধিত বাজেটের আকারের চেয়ে ৮০ হাজার ৬৪৯ কোটি টাকা বেশি। আর চলতি অর্থবছরের মূল বাজেটের চেয়ে ১২ দশমিক ৬২ শতাংশ ও সংশোধিত বাজেটের আকারের চেয়ে ১৮ দশমিক ২২ শতাংশ বড়।