• রবিবার, নভেম্বর ১৭, ২০১৯
  • সর্বশেষ আপডেট : ০৭:৪১ রাত

শীঘ্রই বাংলাদেশে আসবে ‘পেপ্যাল’

  • প্রকাশিত ০২:১৩ দুপুর সেপ্টেম্বর ২৪, ২০১৮
জুনাইদ আহমেদ পলক
বাংলাদেশে শীঘ্রই আসবে অনলাইন পেমেন্ট গেটওয়ে। ছবি: ঢাকা ট্রিবিউন

আউটসোর্সিংয়ে বড় প্রতিবন্ধকতা হিসেবে ইন্টারনেটে দ্রুতগতির অভাব ও বৈদেশিক মুদ্রা লেনদেনে নানা বিধিনিষেধের ব্যাপারে নানা সময় সংশ্লিষ্ট কর্তৃপক্ষের কাছে অভিযোগ জানিয়ে দৃষ্টি আকর্ষণের চেষ্টা করেছেন আউটসোর্সিং সম্পৃক্তরা।

২০২১ সালের মধ্যে অনলাইন মার্কেটপ্লেসে বা আউটসোর্সিং খাতে অন্তত ২০ লাখ তরুণ-তরুণীকে নিয়ে আসতে চায় সরকার, বলেছেন বাংলাদেশ সরকারের তথ্য ও যোগাযোগ প্রযুক্তি প্রতিমন্ত্রী জুনাইদ আহমেদ পলক। 

রবিবার (২৩ সেপ্টেম্বর) বেলা সাড়ে দশটার দিকে রাজশাহী বিশ্ববিদ্যালয়ের সিনেট ভবনে আয়োজিত এক আলোচনা সভায় এসব কথা বলেন তিনি।  

বর্তমানে এই খাতে বাংলাদেশের ৬ লাখ তরুণ কাজ করছে বলেও জানান আইটি প্রতিমন্ত্রী।

তবে আউটসোর্সিংয়ে বড় প্রতিবন্ধকতা হিসেবে ইন্টারনেটে দ্রুতগতির অভাব ও বৈদেশিক মুদ্রা লেনদেনে নানা বিধিনিষেধের ব্যাপারে নানা সময় সংশ্লিষ্ট কর্তৃপক্ষের কাছে অভিযোগ জানিয়ে দৃষ্টি আকর্ষণের চেষ্টা করেছেন আউটসোর্সিং সম্পৃক্তরা। 

বাংলাদেশে অনলাইনে লেনদেনে নানাবিধ বিধিনিষেধ থাকায় এর ব্যবহার বিকশিত হচ্ছেনা। একইসাথে নানান বাধার সম্মুখীন হচ্ছেন আউটসোর্সাররা।

তবে অনলাইনে অর্থনৈতিক লেনদেনের বিষয়টি সহজ করতে এরই মধ্যে সংশ্লিষ্ট বিভিন্ন পক্ষের সাথে আলোচনার কথা জানিয়েছেন জুনাইদ আহমেদ পলক। তিনি বলেন, "অনলাইনের মাধ্যমে ইনওয়ার্ড রেমিট্যান্স হচ্ছে অর্থাৎ দেশের বাইরে থেকে টাকা আসছে। আউটওয়ার্ড রেমিট্যান্স বা দেশ থেকে বিদেশে টাকা পাঠানোর বিষয় নিয়ে নির্বাচন কমিশনের সাথে আমরা আলোচনা করছি"

"আমার আশা করছি অল্পদিনের মধ্যে 'ইলেকট্রনিক নো ইওর কাস্টমার' সার্ভিসটি চালু করতে পারলে পে-প্যাল, স্ক্রি-প্যাল, পে-ওনিয়ারের মত ইন্টারন্যাশনাল পেমেন্ট গেটওয়ের ওয়ালেট বাংলাদেশে খোলা সম্ভব হবে।"

বর্তমান সরকার ফোরজি মোবাইল নেটওয়ার্ক জেলা-উপজেলা পর্যায়ে পৌঁছে দিতে সক্ষম হয়েছে, হাইস্পিড ফাইবার অপটিক কেবল ইউনিয়ন পর্যায়ে নিয়ে গেছে বলেও মন্তব্য করেন তিনি।