Wednesday, May 29, 2024

সেকশন

English
Dhaka Tribune

“ডাক্তারের উচিত অভিযুক্ত ডাক্তারদের সঙ্গ ত্যাগ করে তাদের শাস্তি দেওয়া”

অনেক রোগীকেই ভর্তি না করে ফেরত পাঠিয়ে দেয় হাসপাতাল কর্তৃপক্ষ। আগে করা রোগ নির্ণয়ের পরীক্ষা-নিরীক্ষার রিপোর্টও দেওয়া হয়নি।

আপডেট : ০৯ জুলাই ২০১৮, ১১:০৩ পিএম

অপরাধের দায়ে যদি সাধারণ মানুষের শাস্তি হতে পারে তবে চিকিৎসকরা ভুল করলে তারা কেন শাস্তির আওতায় আসবে না এমন প্রশ্ন ছুঁড়ে দিয়েছেন ভুক্তভোগী এক রোগী। 

ডায়াবেটিস পরীক্ষার রিপোর্ট নিতে সোমবার (৯ জুলাই) সকালে নগরীর শেভরন হাসপাতালে আসা চট্টগ্রাম নগরীর সুগন্ধা আবাসিক এলাকার বাসিন্দা ভুক্তভোগী সেলিম উদ্দিন  বলেন, ‘যারা এখন ডাক্তারি করছেন, তারা একসময় মেডিক্যাল কলেজের ছাত্র ছিলেন। তারা মেডিক্যাল কলেজে নিজের টাকায় পড়েনি। আমাদের দেওয়া (জনগণের) ভ্যাটের টাকায় পড়াশোনা করে আজ তারা আমাদেরকেই চিকিৎসা সেবা দিচ্ছে না। তারা আমাদের জিম্মি করে রাখছে।’ 

সেলিম উদ্দিন ক্ষোভ প্রকাশ করে বলেন, ‘সব ডাক্তার খারাপ নয়। একশ ডাক্তারের মধ্যে যদি দুইজন অপরাধ করে থাকে, বাকি ৯৮ জন ডাক্তারই ভালো। এই ৯৮ জন ডাক্তারের উচিত অভিযুক্ত ডাক্তারদের সঙ্গ ত্যাগ করে তাদের শাস্তি দেওয়া, অথচ ডাক্তাররা সেটি করেননি।’

চিকিৎসকের অবহেলায় সাংবাদিক কন্যা রাইফার মৃত্যুর অভিযোগে আলোচনায় আছে চট্টগ্রামের মেহেদীবাগে অবস্থিত ম্যাক্স হাসপাতাল। রবিবার (৮ জুলাই) হাসপাতালটিতে অভিযান চালায় র্যা বের ভ্রাম্যমাণ আদালত। অভিযানে হাসপাতালের ড্রাগ লাইসেন্স নবায়ন না করাসহ বিভিন্ন অনিয়ম পাওয়া যায়। ফলে ভ্রাম্যমাণ আদালত হাসপাতালটিকে তৎক্ষণাৎ ১০ লাখ টাকা জরিমানা করে। একই দিন নগরীর প্রবর্তক মোড়স্থ সিএসসিআর হাসপাতালেও অভিযান চালিয়ে অনিয়মের অভিযোগে ওই হাসপাতালকে ৪ লাখ টাকা জরিমানা করা হয়।

এ ঘটনার প্রতিবাদে রবিবার বিকাল ৩টা থেকে বেসরকারি চিকিৎসা প্রতিষ্ঠান সমিতি নামে একটি সংগঠন চট্টগ্রামের সব বেসরকারি হাসপাতাল ক্লিনিকে সেবা বন্ধ ঘোষণা করে। এরপর সোমবার দুপুর সাড়ে ১২টা পর্যন্ত নগরীর সব বেসরকারি হাসপাতালে চিকিৎসাসেবা বন্ধ ছিল। এতে চরম দুর্ভোগ পোহাতে হয় রোগী ও তাদের স্বজনদের। অনেককেই ভর্তি না করে ফেরত পাঠিয়ে দেয় হাসপাতাল কর্তৃপক্ষ। আগে করা রোগ নির্ণয়ের পরীক্ষা-নিরীক্ষার রিপোর্টও দেওয়া হয়নি।

শেভরন হাসপাতালে কিডনি রোগের ডায়ালাইসিস করাতে আসা হাজী মোহাম্মদ ইসহাক বলেন, ‘সপ্তাহে দুই দিন ডায়ালাইসিস করতে হয়। ডায়ালাইসিস করতে আজ সকালে এসে হাসপাতালের সামনে দাঁড়িয়ে আছি। কর্তৃপক্ষ আমাদের ভেতরে ঢুকতে দিচ্ছে না। ডায়ালাইসিস করতে পারবো কিনা সেটিও নিশ্চিত নই।’

সিএসসিআর হাসপাতালে চিকিৎসাসেবা নিতে আসা বোয়ালখালীর বাসিন্দা মহিউদ্দিন সংবাদমাধ্যমকে বলেন, ‘একজন মেডিসিন বিশেষজ্ঞর কাছ থেকে চিকিৎসাসেবা নিতে সকাল ৭টায় হাসপাতালে এসেছি। শহরে এসে জানলাম ডাক্তাররা অবরোধ ডেকেছেন, চিকিৎসাসেবা দেবেন না।’

চিকিৎসার নামে যেসব চিকিৎসক রোগীদের জিম্মি করে দুর্ভোগে ফেলেছেন তাদের শাস্তি দাবি করে মহিউদ্দিন। ক্ষোভ প্রকাশ করে বলেন, ‘পৃথিবীর আর কোনও সভ্য দেশে এ ধরনের কোনও নজির খুঁজে পাবেন না। যারা চিকিৎসা প্রদানের শপথ নিয়েছেন সেই ডাক্তাররাই চিকিৎসাসেবা বন্ধ করে দিয়েছেন।’ 


About

Popular Links