Monday, May 20, 2024

সেকশন

English
Dhaka Tribune

যে মহিলা মাদ্রাসার তিন পরীক্ষার্থীর সবাই ফেল!

মাদ্রাসার স্বীকৃতি পাওয়ার জন্য ১২০ শিক্ষার্থীর জায়গায় ২৫০ জন দেখানো হয়েছিল।

আপডেট : ১০ মে ২০১৯, ০৫:০৬ পিএম

মাদ্রাসা থেকে এসএসসি পরীক্ষায় অংশ নিয়েছিল মাত্র তিন শিক্ষার্থী। তাদের কেউই আবার দেখেনি পাশের মুখ। জেলার অন্য কোনো শিক্ষাপ্রতিষ্ঠানে এমন বিপর্যয় না হলেও গত সোমবার এসএসসি ও দাখিল পরীক্ষা-২০১৯ এর ঘোষিত ফলাফলে দেখা যায়, মুন্সীগঞ্জের টংগিবাড়ী উপজেলার কাইচমালধা ওয়াহেদ আলী হাওলাদার মহিলা দাখিল মাদ্রাসা থেকে কোনো পরীক্ষার্থী পাশ করেনি।

জানা যায়, ২০০৬ সালে প্রতিষ্ঠিত মাদ্রাসাটির মোট শিক্ষার্থীর সংখ্যা ১২০ জন এবং ১০ জন শিক্ষকের দু'জন শিক্ষক স্থায়ী ও বাকিরা খণ্ডকালীন।

মাদ্রাসার তত্ত্বাবধায়কের সঙ্গে কথা বলে জানা গেছে, স্বীকৃতি পাওয়ার জন্য ১২০ শিক্ষার্থীর জায়গায় ২৫০ জন দেখানো হয়েছিল।

তবে কী কারণে ২০১৯ সালের দাখিল পরীক্ষায় মাত্র ৩ জন পরীক্ষার্থী অংশ নিয়ে সবাই ফেল করলো এমন প্রশ্নের কোনো সদুত্তর দিতে পারেননি মাদ্রাসা তত্ত্বাবধায়ক মো. কাউসার হামিদ।

ঢাকা ট্রিবিউনকে তিনি বলেন, ২০০৬ সালে প্রতিষ্ঠিত হলেও মাদ্রাসাটি স্বীকৃতি পায়নি। ফলে ভাল শিক্ষক পাওয়া যায়না। তাই দিনে দিনে শিক্ষার্থীর সংখ্যা কমতে শুরু করেছে। তবে আশা করি সামনে ভালো করা যাবে। 

এদিকে, মাদ্রাসা পরিচালনা কমিটির সদস্য দুলাল হাওলাদার বলেন, "মাদ্রাসা থেকে কয়জন পরীক্ষা দিয়েছিল ও কয়জন ফেল করেছে তা জানা নেই। তত্ত্বাবধায়ক এর সঙ্গে কথা বলে বিস্তারিত বলা যাবে। তবে গত বছর এই মাদ্রাসা থেকে দাখিল পরীক্ষায় ১৬ জন পরিক্ষার্থী অংশ নিয়ে সবাই পাস করেছিল। কী কারণে এ বছর শিক্ষার্থী কম বা তারা সবাই কেন ফেল করলো তা বলতে পারছিনা।"

এ বিষয়ে মুন্সীগঞ্জ জেলা শিক্ষা কর্মকর্তা মো. ইউনুছ ফারুকী বলেন, "ওয়াহেদ আলী হাওলাদার মহিলা দাখিল মাদ্রাসা থেকে ৩ জন পরীক্ষার্থী অংশ নিয়ে কেউ পাস করতে পারেনি। এই মাদ্রাসার বিষয়ে খোঁজ নিয়ে ব্যবস্থা নেওয়া হবে।"

About

Popular Links