Monday, May 27, 2024

সেকশন

English
Dhaka Tribune

তালতলীতে বাঘ আতঙ্ক, ভীতসন্ত্রস্ত এলাকাবাসী

পরের রাতে নিশানবাড়িয়ার সোহরাব হাওলাদারের দুটি ছাগল খেয়ে ফেলে, আমখোলা গ্রামের খলিল খানের মুরগীর খোপে হামলা চালায়। ফলে বাঘ আতঙ্কে গ্রামের নারী-শিশু-বৃদ্ধ সন্ধ্যার পর বাড়ি থেকে বের হচ্ছে না।

আপডেট : ১৭ মে ২০১৯, ০৪:৩০ পিএম

বরগুনার তালতলীবাসী পাশ্ববর্তী সুন্দরবন থেকে আসা বাঘের অত্যাচারে অতিষ্ঠ হয়ে উঠেছেন। একের পর এক গৃহপালিত পশু খেয়ে ফেলছে বাঘ। এতে আর্থিক ক্ষতির পাশাপাশি চরম আতঙ্কে দিন কাটাচ্ছেন তারা। 

স্থানীয়রা জানান, ১৫ মে, বুধবার রাত ১টার দিকে মরানিদ্রা সরকারি প্রাইমারি বিদ্যালয় সংলগ্ন লালমিয়া ফরাজী বাড়ির একটি দু’বছরের বাছুর হত্যা করে অর্ধেক খেয়ে ফেলে। পরের রাতে নিশানবাড়িয়ার সোহরাব হাওলাদারের দুটি ছাগল খেয়ে ফেলে, আমখোলা গ্রামের খলিল খানের মুরগীর খোপে হামলা চালায়। ফলে বাঘ আতঙ্কে গ্রামের নারী-শিশু-বৃদ্ধ সন্ধ্যার পর বাড়ি থেকে বের হচ্ছে না।

এ ঘটনায় বাঘের আক্রমণ থেকে রক্ষা পেতে স্থানীয় লোকজন রাতে টর্চ লাইট ও লাঠি-সোটা নিয়ে রাত জেগে পাহারা দিচ্ছেন।

এ বিষয়ে তালতলী উপজেলা রেঞ্জ কর্মকর্তা নয়ন মিস্ত্রি বলেন, “পার্শ্ববর্তী সুন্দরবন থেকে তালতলীর মরানিদ্রা এলাকায় বাঘ ঢুকেছে। বাঘটি ঘূর্ণিঝড় ফণির প্রভাবে সাগরের পানির স্রোতের তোড়ে পার্শ্ববর্তী সুন্দরবন থেকে ভেসে আসতে পারে।”

বিষয়টি ঊর্ধ্বতন কর্তৃপক্ষকে জানিয়েছেন বলেও জানান তিনি।

About

Popular Links