Saturday, May 25, 2024

সেকশন

English
Dhaka Tribune

বজ্রপাতের সময় কী করবেন, কী করবেন না

বজ্রপাতের সময় মাটিতে শোওয়া যাবে না।

আপডেট : ০৬ জুলাই ২০১৯, ০১:৩৮ পিএম

দিনদিন বেড়েই চলেছে বজ্রপাতে নিহতের ঘটনা। গত দুইমাসে এতে সারাদেশে ১২৬ জনের প্রাণহানি ঘটেছে। এসময় বজ্রপাতের ঘটনায় আহত হয়েছে আরও ৫৩ জন।

`সেভ দ্য সোসাইটি অ্যান্ড থান্ডারস্টর্ম অ্যাওয়ারনেস ফোরাম'র এক প্রতিবেদনে এ তথ্য জানানো হয়েছে।

প্রতিবেদন অনুযায়ী, ধান কাটার সময় বজ্রপাতে নিহতের ঘটনা সবচেয়ে বেশি ঘটেছে। এরপর সবচেয়ে বেশি মৃত্যু হয়েছে মাছ ধরতে গিয়ে। এছাড়া মাঠে গরু আনতে গিয়ে, টিন ও খড়ের ঘরে অবস্থান ও ঘুমানোর সময় বজ্রপাতে মৃত্যুর ঘটনা ঘটেছে।

সেভ দ্য সোসাইটি অ্যান্ড থান্ডারস্টর্ম অ্যাওয়ারনেস ফোরামের প্রতিবেদনে বজ্রপাতের সময় করণীয় সম্পর্কে ধারণা দেওয়া হয়েছে। সেখানে বলা হয়, যারা ক্ষেত-খামারে কাজ করেন তারা বেশি বজ্রপাতের ঝুঁকিতে থাকেন। একারণে আকাশে মেঘ দেখলে আগে থেকে সাবধান হতে হবে এবং নিরাপদ আশ্রয়ে যেতে হবে। এক্ষেত্রে পাকা বাড়িতে আশ্রয় নেওয়া বেশি নিরাপদ। বৃষ্টির আগে বাড়ির ছাদ বা উঁচু স্থানে থাকলে দ্রুত সেখান থেকে নেমে যেতে হবে। 

ভবন সুউচ্চ হলে সেখানে বজ্রনিরোধকের ব্যবস্থা থাকতে হবে। বজ্রপাতের সময় জানালা থেকে দূরে অবস্থান করতে হবে। এছাড়া এসময় পায়ে রাবারে স্যান্ডেল ব্যবহার করতে হবে। 


আরও পড়ুন : দুই মাসে বজ্রপাতে নিহত ১২৬


বজ্রপাতের সময় পানি ও যেকোনো ধাতব বস্তু যেমন-পানির কল, সিঁড়ি বা বারান্দার রেলিং স্পর্শ করা যাবে না। বিদ্যুৎ পরিবাহী কোনো বস্তু থেকে নিরাপদ দূরত্বে থাকতে হবে। বজ্রপাতের সময় ইলেকট্রিক সংযোগ ও ডিশের সংযোগ বিচ্ছিন্ন করে দিতে হবে। সেগুলো বন্ধ থাকলেও স্পর্শ করা থেকে বিরত থাকতে হবে। 

মাঠের মধ্যে ফাঁকা স্থানে থাকলে বজ্রপাতের সময় কানে আঙুল দিয়ে চোখ বন্ধ করে নিচু হয়ে বসে থাকতে হবে। তবে মাটিতে শোওয়া যাবে না। কারণ, মাটিতে শুলে বিদ্যুৎপৃষ্ট হওয়ার সম্ভাবনা থাকে। বজ্রপাতের সময় গাড়ির ভেতরে থাকা নিরাপদ। তবে গাড়ির ধাতব কোনো অংশ স্পর্শ করা যাবে না। 

বজ্রপাতে আহতদের চিকিৎসা বৈদ্যুতিক শকে আক্রান্ত ব্যক্তিদের মতো। তাদের শরীর থেকে যত দ্রুত সম্ভব বৈদ্যুতিক চার্জ অপসরণ করতে হবে। এক্ষেত্রে আহত ব্যক্তির শরীরে ম্যাসাজ করতে হবে। এছাড়া যত তাড়াতাড়ি সম্ভব হাসপাতালে নেওয়ার ব্যবস্থা করতে হবে।

About

Popular Links