Saturday, May 18, 2024

সেকশন

English
Dhaka Tribune

ঈদের সময় ভারী বৃষ্টির আশঙ্কা

বাংলাদেশ ও ভারতের আবহাওয়া অধিদপ্তরের তথ্যানুযায়ী, এ বৃষ্টিপাতের ফলে তিস্তা নদীর পানি সমতল দ্রুত বৃদ্ধি পেতে পারে।

আপডেট : ০৬ আগস্ট ২০১৯, ০৫:৫৬ পিএম

চলতিমাসের দ্বিতীয় সপ্তাহে ঈদুল আজহার সময় দেশের উত্তরাঞ্চল এবং তৎসংলগ্ন উত্তর-পশ্চিমবঙ্গে মাঝারি থেকে ভারী বৃষ্টিপাতের সম্ভাবনা রয়েছে।

বাংলাদেশ ও ভারতের আবহাওয়া অধিদপ্তরের তথ্যানুযায়ী, বৃষ্টিপাতের ফলে তিস্তা নদীর পানি সমতল দ্রুত বৃদ্ধি পেতে পারে।

অন্যদিকে চলতিমাসের শেষ সপ্তাহে ব্রক্ষ্মপুত্র-যমুনা নদীর পানি বৃদ্ধি পেতে পারে। ফলে কোনো কোনো জায়গায় সাময়িকভাবে বিপদসীমা অতিক্রম করতে পারে। এছাড়া দেশের উত্তর ও উত্তর-মধ্যাঞ্চলের কুড়িগ্রাম, গাইবান্ধা, জামালপুর ও বগুড়া জেলার কিছুস্থানে স্বল্পমেয়াদী (৩-৫ দিন) বন্যা পরিস্থিতির সৃষ্টি হবে।

বাংলাদেশ আবহাওয়া অধিদপ্তরের তথ্য অনুসারে, চলতি সপ্তাহের শেষার্ধে বঙ্গোপসাগরে সৃষ্ট লঘুচাপের কারণে দেশের দক্ষিণ-পূর্বাঞ্চলে মাঝারী থেকে ভারী বৃষ্টিপাতের সম্ভাবনা রয়েছে। 

বাংলাদেশ ও ভারতের আবহাওয়া অধিদপ্তরের তথ্য অনুযায়ী দ্বিতীয় সপ্তাহের মাঝামাঝি দেশের উত্তর-পূর্বাঞ্চল এবং তৎসংলগ্ন মেঘালয় ও ত্রিপুরা অঞ্চলে মাঝারি থেকে ভারী বৃষ্টিপাতের সম্ভাবনা রয়েছে।

ফলে চলতি সপ্তাহের শেষার্ধে দেশের দক্ষিণ-পূর্বাঞ্চলের নদীসমূহের পানি সমতল এবং আগামী সপ্তাহের শেষার্ধে দেশের উত্তর-পূর্বাঞ্চলের নদীসমূহের পানি সমতল দ্রুত বৃদ্ধি পেতে পারে। ফলে এ অঞ্চলের সিলেট, সুনামগঞ্জ, মৌলভীবাজার, নেত্রকোণা ও হবিগঞ্জ জেলার কোথাও কোথাও স্বল্পমেয়াদী (১-৩ দিন) বন্যা পরিস্থিতির সৃষ্টি হতে পারে।

দেশের প্রধান প্রধান নদ-নদীর যেমন-ব্রক্ষ্মপুত্র-যমুনা এবং গঙ্গা-পদ্মার অববাহিকায় চলতি মাসের তৃতীয় সপ্তাহ পর্যন্ত বন্যার ঝুঁকি নেই। তবে, চলতি মাসের ১৬ বা ১৭ তারিখ থেকে ব্রক্ষ্মপুত্র-যমুনা এবং গঙ্গা নদ-নদীর পানিবৃদ্ধি শুরু হতে পারে।

About

Popular Links