Tuesday, May 28, 2024

সেকশন

English
Dhaka Tribune

শ্লীলতাহানির বিচার না পেয়ে অপমানে স্কুলছাত্রীর আত্মহত্যা

অভিযুক্তের পরিবারকে শ্লীলতাহানির বিষয় অভিযোগ করলে উল্টো ফাতিমাকেই দোষারোপ করে তারা, এ অপমান সইতে না নিজ ঘরে গিয়ে আত্মহত্যা করেন তিনি

আপডেট : ২৮ আগস্ট ২০১৯, ১০:০৮ এএম

কুষ্টিয়ার জগতি এলাকায় শ্লীলতাহানির বিচার না পেয়ে অপমানে আত্মহত্যা করেছেন ফাহিমা খাতুন। 

মঙ্গলবার (২৮ আগস্ট) সকালে আত্মহত্যা করেন তিনি। নিহত ফাহিমা ওই এলাকার ফারুক খানের মেয়ে এবং বাড়াদী মাধ্যমিক বিদ্যালয়ের নবম শ্রেণির স্কুল ছাত্রী। 

এবিষয়ে কুষ্টিয়া মডেল থানায় মামলা দায়ের হলেও গ্রেফতার হয়নি কেউ। অভিযুক্ত সুজ্জল একই এলাকার বদর শাহের ছেলে। 

স্থানীয়রা জানান, মঙ্গলবার সকালে ফাহিমা তার বোনের ছেলের জন্য দুধ আনতে পার্শ্ববর্তী একটি বাড়িতে যায়। এসময় একই এলাকার সুজ্জল নামে একব্যক্তি তার গায়ে হাত দেয় এবং অশ্লীল কথাবার্তা বলে। বিষয়টি বাড়িতে ফিরে আত্মীয়-স্বজনকে জানিয়ে ফাহিমা স্কুলে চলে যায়। পরে ওই স্কুলছাত্রীর মা বিচারের দাবিতে ওই অভিযুক্তের বাড়িতে যান। সেখানে স্কুল থেকে ফাহিমাকে ডেকে নিয়ে আসা হয়। সেসময় উল্টো ফাতিমাকে দোষারোপ করলে বিচারের নামে প্রকাশ্যে এমন অপমান সইতে না পেরে বাড়ি ফিরে নিজ ঘরে ওড়না পেঁচিয়ে ফাহিমা আত্মহত্যা করেন। 

ফাহিমার বাবা জানান, “প্রায়ই সুজ্জল রাস্তাঘাটে আমার মেয়েকে উত্যক্ত করতো। মান-সন্মানের দিকে তাকিয়ে আমরা সব সহ্য করেছি।” এসময় অভিযুক্ত সুজ্জলের শাস্তি দাবি করেন তিনি। 

কুষ্টিয়া মডেল থানার ভারপ্রাপ্ত কর্মকর্তা (ওসি) জাবিদ হোসেন জানান, “মেয়ের বাবার কাছ থেকে এমন অভিযোগ শুনেছি। আত্মহত্যার বিষয়ে পরিবারের পক্ষ থেকে এখনো কোনো লিখিত অভিযোগ পাইনি। পেলে আইনগত ব্যবস্থা নেওয়া হবে।”

About

Popular Links