Wednesday, May 22, 2024

সেকশন

English
Dhaka Tribune

আন্দোলনকারীরা দেখালেন লাল কার্ড, পদত্যাগের ‘ইচ্ছে নেই’ জাবি উপাচার্যের

আন্দোলনরতদের দাবিকে ‘অযৌক্তিক’ অ্যাখ্যা দিয়ে পদত্যাগের ইচ্ছা পোষণ করছেন না বলে জানিয়ে দিয়েছেন উপাচার্য

আপডেট : ০১ অক্টোবর ২০১৯, ০৬:৫৪ পিএম

জাহাঙ্গীরনগর বিশ্ববিদ্যালয়ের (জাবি) উপাচার্য অধ্যাপক ফারজানা ইসলামের উদ্দেশ্যে লাল কার্ড দেখিয়েছেন আন্দোলনরত শিক্ষক-শিক্ষার্থীরা। 

মঙ্গলবার (১ অক্টোবর) দুপুরে বিশ্ববিদ্যালয়ের শহীদ মিনারের পাদদেশে ‘দুর্নীতির বিরুদ্ধে জাহাঙ্গীরনগর’ প্ল্যাটফর্মের ব্যানারে উপাচার্যের পদত্যাগ দাবিতে টানা অষ্টম দিনের মতো কর্মসূচি পালন করেন তারা।

প্রসঙ্গত, পদত্যাগের জন্য উপাচার্য ফারজানা ইসলামকে মঙ্গলবার পর্যন্ত সময় বেধে দিয়েছিলেন আন্দোলনকারীরা। এসময়ের মধ্যে স্বেচ্ছায় পদত্যাগ না করলে বুধ ও বৃহস্পতিবার সর্বাত্মক ধর্মঘটের ডাক দিয়েছেন তারা। সোমবার এমন ঘোষণা দেওয়া হয়।

তবে মঙ্গলবার এক সংবাদ সম্মেলনে উপাচার্য আন্দোলনরতদের দাবিকে ‘অযৌক্তিক’ অ্যাখ্যা দিয়ে তিনি পদত্যাগের ইচ্ছা পোষণ করছেন না বলে জানিয়ে দিয়েছেন।

এদিকে উপাচার্যের অনুসারী আওয়ামী লীগপন্থী শিক্ষকদের সংগঠন ‘বঙ্গবন্ধু শিক্ষক পরিষদ’ বুধ ও বৃহস্পতিবার পাল্টা কর্মসূচির ঘোষণা দিয়েছে। ‘উপাচার্যের বিরুদ্ধে মিথ্যা অভিযোগকারী চিহ্নিত দুর্নীতিবাজদের’ শাস্তির দাবিতে বুধবার শহীদ মিনারে মানববন্ধন করবেন তারা। পরদিন বৃহস্পতিবার রয়েছে জনসংযোগ কর্মসূচি।   

উপাচার্য অধ্যাপক ফারজানা ইসলাম সংবাদ সম্মেলনে বলেছেন, ‘‘প্রত্যেকেরই আন্দোলন করার অধিকার আছে। যে যেভাবে, যেখানে চায় আন্দোলন করুক। তবে দু’পক্ষ যাতে মুখোমুখি অবস্থানে না যায় সেই আহ্বান জানাবো।’’

এর আগে উপাচার্যের উদ্দেশ্যে লাল কার্ড প্রদর্শন কর্মসূচিতে ‘দুর্নীতির বিরুদ্ধে জাহাঙ্গীরনগর’ এর অন্যতম মুখপাত্র অধ্যাপক রায়হান রাইন বলেন, ‘‘উপাচার্যকে আজকের মধ্যে পদত্যাগের আল্টিমেটাম দেওয়া হলেও তিনি তা করেননি। তিনি বিশ্ববিদ্যালয় পরিচালনায় ব্যর্থ হয়েছেন। আজকের মধ্যে পদত্যাগ না করলে আগামী বুধ ও বৃহস্পতিবার সর্বাত্মক ধর্মঘট করা হবে।’’

কর্মসূচিতে বিভিন্ন বিভাগের শিক্ষক, জাহাঙ্গীরনগর সাংস্কৃতিক জোট, বাংলাদেশ ছাত্র ইউনিয়ন, সমাজতান্ত্রিক ছাত্র ফ্রন্ট ও বাংলাদেশ সাধারণ ছাত্র অধিকার সংরক্ষণ পরিষদের বিশ্ববিদ্যালয় শাখার নেতাকর্মীরা উপস্থিত ছিলেন। 

মঙ্গলবার বিকালে সংবাদ বিজ্ঞপ্তির মাধ্যমে কর্মসূচি ঘোষণা করে উপাচার্যপন্থী শিক্ষকদের সংগঠন ‘বঙ্গবন্ধু শিক্ষক পরিষদ’। সংগঠনটি মনে করে, শিক্ষকদের কেউ কেউ নিজস্ব এজেন্ডা বাস্তবায়নে আন্দোলনকে ভিন্ন দিকে প্রবাহিত করার চেষ্টা করছেন। 

এক বিজ্ঞপ্তিতে তারা দাবি করেন, ‘‘শিক্ষার্থীদের একাংশের আন্দোলন বিবেচনায় নিয়ে বিশ্ববিদ্যালয় প্রশাসন যখন তাদের দুটি দাবি মেনে নিয়ে সমাধানের পথে এগোচ্ছিলো তখন আন্দোলনকে ভিন্ন দিকে মোড় ঘুরিয়ে শিক্ষকদের কেউ কেউ শিক্ষকদের নিজস্ব এজেন্ডা বাস্তবায়ন শুরু করেন।’’

About

Popular Links