Thursday, May 23, 2024

সেকশন

English
Dhaka Tribune

জাবিতে শিক্ষার্থীদের সঙ্গে আন্দোলনকারীদের হাতাহাতি, সহকারী প্রক্টর আহত

আন্দোলনকারীদের সঙ্গে আলোচনার জন্য বিশ্ববিদ্যালয়ের পুরাতন কলাভবনে যান প্রক্টরিয়াল বডির সদস্যরা। এসময় সহকারী প্রক্টরের ওপর হামলা চালানো হলে আহত হন তিনি

আপডেট : ৩০ অক্টোবর ২০১৯, ০৩:২৮ পিএম

দুর্নীতির অভিযোগে জাহাঙ্গীরনগর বিশ্ববিদ্যালয়ের (জাবি) উপাচার্য অধ্যাপক ফারজানা ইসলামের অপসারণ দাবিতে টানা তৃতীয় দিনের মতো সর্বাত্মক ধর্মঘট পালন করছেন আন্দোলনকারী শিক্ষক-শিক্ষার্থীরা।

বুধবার (৩০ অক্টোবর) সকাল সাড়ে দশটার দিকে কিছু শিক্ষার্থী ক্লাস করার উদ্দেশ্যে পুরাতন কলা ভবনে প্রবেশ করতে চাইলে বাধা দেয় আন্দোলনরত শিক্ষার্থীরা। এ সময় বিশ্ববিদ্যালয়ের সহকারী প্রক্টর মহিবুর রৌফ শৈবাল ঘটনাস্থলে গেলে হাতাহাতির ঘটনা ঘটে।

এ প্রসঙ্গে মহিবুর রৌফ শৈবাল ঢাকা ট্রিবিউনকে বলেন, “ক্লাস-পরীক্ষা থাকায় সাধারণ শিক্ষার্থী ও শিক্ষকদের উপস্থিতিতে প্রক্টরিয়াল বডি এবং বিশ্ববিদ্যালয়ের নিরাপত্তা কর্মীদের নিয়ে পুরাতন কলাভবনে যাই আন্দোলনকারীদের সঙ্গে আলোচনা করতে। সেখানে পূর্ব-পরিকল্পনামাফিক আন্দোলনকারীরা আমার ওপর হামলা চালায়। হামলা থেকে বাঁচতে ছাত্র ইউনিয়নের বিশ্ববিদ্যালয় শাখা সভাপতি নজির আমিন চৌধুরী জয়কে নিয়ে সরে যাই।  সাধারণ শিক্ষার্থীরা তালা ভেঙে ভবনে প্রবেশ করে। এ সময় আমার শরীর থেকে রক্তক্ষরণ হতে থাকায় সাভারের এনাম মেডিকেল কলেজে ভর্তি হই। এ ঘটনার সঙ্গে শিবিরের সম্পৃক্ততা রয়েছে। হামলাকারীদের বিরুদ্ধে মামলার প্রস্তুতি নিচ্ছি।”   

বিশ্ববিদ্যালয়ের প্রক্টর (ভারপ্রাপ্ত) আ স ম ফিরোজ-উল-হাসান বলেন, “সাধারণ শিক্ষার্থীরা ভবনে প্রবেশের চেষ্টা করছিল। আন্দোলনরত শিক্ষার্থীরা ফটক থেকে সরছিল না। এ সময় সহকারী প্রক্টর গিয়ে তাকে (ছাত্র ইউনিয়নের সভাপতি) সরিয়ে নেয়। এখানে বল প্রয়োগের কোনও ঘটনা ঘটেনি।”

তিনি আরও বলেন, “ওই ঘটনার সময় কেউ একজন সহকারী প্রক্টর মহিবুর রৌফের তলপেটে হাঁটু দিয়ে আঘাত করে।”

তবে এ বিষয়ে আন্দোলনরত শিক্ষার্থী নজির আমিন চৌধুরী জয় বলেন, “কয়েকজন শিক্ষক-শিক্ষার্থী ভবনে প্রবেশ করতে চাইলে আমি তাদেরকে আন্দোলনের যৌক্তিকতা তুলে ধরে ক্লাস-পরীক্ষা থেকে বিরত থাকার অনুরোধ জানাই। অনেকেই অনুরোধ সাড়া দেন। পরে নাটক ও নাট্যতত্ত্ব বিভাগের প্রথম বর্ষের কয়েকজন শিক্ষার্থী এসে বল প্রয়োগের চেষ্টা করে। এ সময় সহকারী প্রক্টর মহিবুর রৌফ শৈবাল আমাকে টেনে হিঁচড়ে মাটিতে ফেলে দেন।”

About

Popular Links