Tuesday, May 28, 2024

সেকশন

English
Dhaka Tribune

বগুড়ায় আ’লীগের জুয়াড়ি নেতাকর্মীদের ছাড়ালেন ইউপি চেয়ারম্যান

চেয়ারম্যান এর সত্যতা স্বীকার করলেও এসআই নান্নু মিয়া বলেছেন, তারা জুয়া খেলছিল না; তাদের এমনিতে থানায় আনা হয়েছিল।

আপডেট : ৩০ জুলাই ২০১৮, ১২:৩০ পিএম

বগুড়ার শেরপুরে জুয়ার আসর থেকে গ্রেফতার হওয়া স্থানীয় আওয়ামী লীগের ৪ নেতাকর্মীকে থানা থেকে ছাড়িয়ে নিলেন সুঘাট ইউনিয়নের দলীয় চেয়ারম্যান আবু সাঈদ। 

শনিবার রাতে পুলিশ বিনোদপুর গ্রামের একটি বাড়ি থেকে জুয়ার সরঞ্জাম ও টাকাসহ তাদের গ্রেফতার করে। 

রোববার দুপুরে এদের থানা থেকে ছেড়ে দেয়া হয়। জুয়াড়িদের ছেড়ে দেয়ায় সাধারণ জনগণের মাঝে বিরূপ প্রতিক্রিয়ার সৃষ্টি হয়েছে। চেয়ারম্যান এর সত্যতা স্বীকার করলেও এসআই নান্নু মিয়া বলেছেন, তারা জুয়া খেলছিল না; তাদের এমনিতে থানায় আনা হয়েছিল।

জুয়াড়ি আওয়ামী লীগ নেতাকর্মীরা হলেন বিনোদপুর গ্রামের মৃত শমসের আলীর ছেলে সুঘাট ইউনিয়ন আওয়ামী লীগের স্বাস্থ্য বিষয়ক সম্পাদক সাবেক সেনা সদস্য আবদুল আউয়াল (৫৫), একই গ্রামের শাহজাহান আলীর ছেলে ও ৪ নম্বর ওয়ার্ড আওয়ামী লীগের সাধারণ সম্পাদক হরফ আলীর ভাই আবদুল ওয়াহাব (২৫), আজিম উদ্দিনের ছেলে তনু (১৮) ও সাদেক আলীর ছেলে বশির উদ্দিন (২০)।

প্রত্যক্ষদর্শীরা জানান, আবদুল আউয়ালের স্ত্রী বেড়াতে যাওয়ায় শনিবার রাতে তার বাড়িতে জুয়ার আসর বসে। রাত ১১টার দিকে গোপনে খবর পেয়ে শেরপুর থানার এসআই নান্নু মিয়া সেখানে অভিযান চালিয়ে জুয়ার সরঞ্জাম ও কিছু টাকাসহ আউয়াল, ওয়াহাব, তনু ও বশিরকে গ্রেফতার করে। তাদের ছাড়িয়ে নিতে রোববার সকাল থেকে আওয়ামী লীগের নেতাকর্মীরা থানায় ভিড় ও ব্যাপক তদবির শুরু করেন। দুপুরে সুঘাট ইউনিয়নের আওয়ামী লীগ সমর্থিত চেয়ারম্যান আবু সাঈদ থানায় গিয়ে মুচলেকা দিয়ে তাদের ছাড়িয়ে আনেন। ঘটনাটি জানাজানি হলে সাধারণ জনগণের মাঝে পুলিশের ভুমিকা নিয়ে প্রশ্ন উঠে।

এ প্রসঙ্গে শেরপুর থানার এসআই নান্নু মিয়া জানান, শনিবার রাতে ওই ৪ জন রাস্তায় ঘোরাফেরা করছিল। তাই জিজ্ঞাসাবাদের জন্য থানায় আনা হয়েছিল। রোববার স্থানীয় চেয়ারম্যানের জিম্মায় তাদের ছেড়ে দেয়া হয়েছে। সুঘাট ইউনিয়নের চেয়ারম্যান আবু সাঈদ জানান, শনিবার রাতে মিলিটারী আউয়ালের বাড়িতে তাস খেলা চলছিল। পুলিশ আউয়ালসহ আওয়ামী লীগের ৪ নেতাকর্মীকে গ্রেফতার করে থানায় আনে। নিজ দলের নেতাকর্মী হওয়ায় রোববার মুচলেকা দিয়ে তাদের থানা থেকে ছাড়িয়ে আনা হয়েছে। তিনি বিরক্ত হয়ে এ প্রসঙ্গে আর কিছু বলতে রাজি হননি।


About

Popular Links