Tuesday, May 21, 2024

সেকশন

English
Dhaka Tribune

ট্রাকের চাপা পড়া ফয়সালের বর্তমান পরিস্থিতি

গাড়ি চাপার ঘটনাটির ভিডিও সামাজিক যোগাযোগ মাধ্যমে ছড়িয়ে পড়ার পর বেশকিছু মহলে গুজব রটেছিল এই বলে, গাড়ি চাপা পড়া শিক্ষার্থী নিহত। জেনে নিন বিস্তারিত-

আপডেট : ০৩ আগস্ট ২০১৮, ১১:৪৪ এএম

রাজধানীর শনির আখড়া বাসস্ট্যান্ড এলাকায় পিকআপ ট্রাকের চাপায় আহত হওয়া নারায়ণগঞ্জ সরকারি তোলারাম কলেজের ছাত্র ফয়সাল মাহমুদ হাসপাতালে চিকিৎসাধীন রয়েছে। বর্তমানে সে ঢাকা মেডিক্যাল কলেজ হাসাপাতালে রয়েছে। এর আগে সাইনবোর্ড এলাকার প্রো-অ্যাকটিভ মেডিক্যাল কলেজ অ্যান্ড হাসপাতালে চিকিৎসাধীন ছিল ফয়সাল। বুধবার (১ আগস্ট) রাত পৌনে ১০টায় তাকে ঢাকা মেডিক্যাল কলেজ হাসপাতালের জরুরি বিভাগে নিয়ে আসা হয়।  

ডাক্তার সালাউদ্দিন ভুইয়া জানান, ‘ফয়সালের বাম পা, হিপ জয়েন্ট ও ঠোঁটে আঘাত লেগেছে। তাকে ১২টার দিকে হাসপাতালে ভর্তি করা হয়।

বর্তমানে ঢাকা মেডিক্যাল কলেজ হাসপাতালে চিকিৎসাধীন রয়েছে ফয়সাল

ঘটনার বিবরণ দিয়ে আহত ফয়সাল মাহমুদ জানান, ‘আমরা দুই পাশ দিয়ে চলাচলকারী গাড়ি থামিয়ে বৈধ কাগজ আছে কিনা তা চেক করছিলাম। এসময় পুলিশ আমাদের সহায়তা করছে। আমাদের পাশেই ছিলেন তারা। পিকআপ ভ্যানটি আসার পর আমরা থামাই। আমি ছিলাম সামনে। ড্রাইভারে পাশে ছিল আরও কয়েকজন। গাড়িটি থামিয়ে লাইসেন্স চাইতেই হুট করে টান দেয় ড্রাইভার। পাশে যারা ছিল তারা ছিটকে পড়ে। আর আমি ধাক্কা খেয়ে নিচে পড়ে যাই। পুলিশের সামনেই আমাকে চাপা দেয় পিকআপ ট্রাকের চালক।’ 

প্রসঙ্গত, বুধবার (১ আগস্ট) সকাল সাড়ে ৯টার দিকে শনির আখড়া বাসস্ট্যান্ড এর পাশে পিকআপ ট্রাকের চাপায় আহত হন নারায়ণগঞ্জ সরকারি তোলারাম কলেজে উচ্চমাধ্যমিক দ্বিতীয় বর্ষে পড়ুয়া ফয়সাল মাহমুদ। গাড়ি চাপার ঘটনাটির ভিডিও সামাজিক যোগাযোগ মাধ্যমে ছড়িয়ে পড়ে।

আহত হওয়ার পর তাকে খুব দ্রুত সাইনবোর্ড এলাকার প্রো অ্যাকটিভ মেডিক্যাল কলেজ অ্যান্ড হাসপাতালে নিয়ে যায় বন্ধু ও ঘটনাস্থলে উপস্থিত থাকা শিক্ষার্থীরা। 

গাড়ি চাপার ঘটনাটির ভিডিও সামাজিক যোগাযোগ মাধ্যমে ছড়িয়ে পড়ার পর বেশকিছু মহলে গুজব ছড়িয়েছিল। গাড়ি চাপা পড়া শিক্ষার্থী নিহত। কিন্তু পরবর্তীতে ফয়সালের বেশকিছু বন্ধুর ফেসবুক আইডি’র তথ্যের ভিত্তিতে জানা যায় সে বেঁচে আছে। 

শনির আখড়া বাসস্ট্যান্ডে ফয়সালকে চাপা দেওয়ার ঘটনায় তাৎক্ষণিক প্রতিবাদ জানায় ওই এলাকায় অবস্থান নেওয়া শিক্ষার্থীরা। দুই পাশের সড়কে অন্তত ১৫টি গাড়ি ভাঙচুর করে বিক্ষুব্ধ শিক্ষার্থীরা। 

উল্লেখ্য, গত ২৯ জুলাই দুপুরে বিমানবন্দর সড়কে রমিজ উদ্দিন ক্যান্টনমেন্ট স্কুল অ্যান্ড কলেজের দুই শিক্ষার্থী নিহত হওয়ার ঘটনায় গত ৪ দিন ধরে লাগাতার রাজপথ আটকে বিক্ষোভ করছে রাজধানীর বিভিন্ন স্কুলের ছাত্র-ছাত্রীরা। বুধবার সারাদিন রাস্তা আটকে প্রতিবাদ জানিয়েছে শিক্ষার্থীরা। এই বিক্ষোভে অংশ নিতে এসে গাড়ি চাপায় আহত হন ফয়সাল। 


About

Popular Links