Sunday, May 19, 2024

সেকশন

English
Dhaka Tribune

মন্ত্রী: রাজাকারদের তালিকা তৈরিতে কারচুপি হয়ে থাকতে পারে

'আমার নাম এই তালিকায় আসলে যেমন কষ্ট পেতাম, তালিকায় মুক্তিযোদ্ধাদের নাম আসায় একই কষ্ট পাচ্ছি'

আপডেট : ১৮ ডিসেম্বর ২০১৯, ০৪:৪৭ পিএম

রাজাকারদের তালিকায় কারচুপির মাধ্যমে মুক্তিযোদ্ধাদের নাম ঢুকিয়ে দেওয়া হয়ে থাকতে পারে বলে মন্তব্য করেছেন মুক্তিযুদ্ধবিষয়ক মন্ত্রী আ খ ম মোজাম্মেল হক। বুধবার (১৮ ডিসেম্বর) দুপুরে মানিকগঞ্জ শহরের বিজয় মেলা মাঠে জেলা মুক্তিযোদ্ধা সংসদ আয়োজিত সমাবেশে তিনি এই মন্তব্য করেন।

মন্ত্রী বলেন, "ওরা (অন্যান্য সরকার) ৩০ বছর ক্ষমতায় ছিল। হয়তো ক্ষমতায় থাকার সময় তারা স্বরাষ্ট্র মন্ত্রণালয়ে রক্ষিত কাগজপত্রে কারচুপি করে রাজাকারদের জায়গায় মুক্তিযোদ্ধাদের নাম লিখে রাখেন। এটা আমাদের কল্পনার বাইরে ছিল। সেই কারণে ভুলটা হয়ে গেছে। আমি দুঃখ প্রকাশ করছি।"


আরও পড়ুন - এমপি: প্রকাশিত রাজাকারের তালিকা পাকিস্তানিদের করা


"এই তালিকায় ইচ্ছাকৃত ভুল ছিল না। রাজাকারদের তালিকায় যাদের নাম ছিল, তা সঠিক বলে বিশ্বাস করা হয়েছিল। এই কারণে যাচাই-বাছাই না করেই তালিকা প্রকাশ করায় আমরা এই হোঁচট খেলাম। কাজ করতে গেলে ভুল তো হতেই পারে। ৬৪ জেলায় ৪৬০টি উপজেলার যে সম্পূরক তালিকা আসবে তা পূর্ণ সতর্কতার সঙ্গে যাচাই-বাছাই করে প্রকাশ করা হবে। ত্রুটিপূর্ণ তালিকা মন্ত্রণালয়ের নিজ উদ্যোগে সংশোধন করা হবে", যোগ করেন তিনি।

আ খ ম মোজাম্মেল হক আরও বলেন, "দুই-চারজন মুক্তিযোদ্ধাদের নাম রাজাকারের তালিকায় আসায় তারা দুঃখ পেয়েছেন। আমার নাম এই তালিকায় আসলে যেমন কষ্ট পেতাম, তালিকায় তাদের নাম আসায় একই কষ্ট পাচ্ছি। প্রকৃত মুক্তিযোদ্ধাদের নাম থাকলে আমরা অচিরেই যাচাইবাছাই করে সে নামগুলো প্রত্যাহার করে নেব। তবে রাজাকার, আল-বদর ও আল-শামসদের নাম থাকবেই।"

মুক্তিযুদ্ধকালীন মানিকগঞ্জের জেলা কমাণ্ডার তোবারক হোসেনের সভাপতিত্বে সমাবেশে আরও বক্তব্য দেন শিক্ষা অধিদপ্তরের প্রধান প্রকৌশলী দেওয়ান হানজালা, জেলা আওয়ামী লীগের সভাপতি গোলাম মহীউদ্দীন, মানিকগঞ্জ পৌরসভার মেয়র গাজী কামরুল হুদা এবং জেলা আইনজীবী সমিতির সভাপতি আবদুল মজিদ।

About

Popular Links