Monday, May 27, 2024

সেকশন

English
Dhaka Tribune

নামে মিল, অপরাধীর বদলে চা বিক্রেতাকে ধরে নিয়ে গেল পুলিশ

বন মামলায় পরোয়ানাভুক্ত এক আসামির নামের সাথে মিল থাকায় গত ১৭ জানুয়ারি বিকেলে রফিকুল ইসলামকে তার চায়ের দোকান থেকে গ্রেফতার করে শ্রীপুর থানা পুলিশ

আপডেট : ২৩ জানুয়ারি ২০২০, ০৭:৫২ পিএম

অপরাধীর সাথে নামে মিল থাকায় বিনা অপরাধে ৭ দিন কারাভোগ করতে হয়েছে রফিকুল ইসলাম নামে এক চা বিক্রেতাকে। বৃহস্পতিবার (২৩ জানুয়ারি) সন্ধ্যায় জেল থেকে ছাড়া পেয়েছেন তিনি।

গাজীপুর আদালতের পুলিশ পরিদর্শক মীর রকিবুল হক এই তথ্য নিশ্চিত করেছেন। তিনি জানান, গাজীপুর জেলা বন আদালতের জুডিশিয়াল ম্যাজিস্ট্রেট শেখ নাজমুন্নাহার বৃহষ্পতিবার রফিকুল ইসলামকে মুক্তির আদেশ দেন। এর আগে বুধবার ২৪ ঘন্টার সময় বেঁধে দিয়ে শ্রীপুর থানা পুলিশের কাছে এ সংক্রান্ত প্রতিবেদন দাখিলের নির্দেশ দেয় আদালত। এর প্রেক্ষিতে বৃহস্পতিবার চা বিক্রেতা রফিকুল ইসলামের সাথে মামলার কোনো সম্পর্ক নেই মর্মে থানা পুলিশ প্রতিবেদন জমা দিলে আদালত তাকে মুক্তি দেওয়ার নির্দেশ দেয়।

এর আগে বন মামলায় পরোয়ানাভুক্ত এক আসামির নামের সাথে মিল থাকায় গত ১৭ জানুয়ারি বিকেলে রফিকুল ইসলামকে তার চায়ের দোকান থেকে গ্রেফতার করে শ্রীপুর থানা পুলিশ। 

রফিকুল ইসলামের বাবা নূর মোহাম্মদ বলেন, আমি আল্লাহতায়ালা ও আদালতের কাছে কৃতজ্ঞ। শুধু পুলিশ নয় কারও ভুলের কারণে কোনো নিরপরাধ মানুষ যেন দুর্ভোগের শিকার না হয়।

এসময় রফিকুল ইসলামের স্বজন ও এলাকাবাসী চা বিক্রেতা রফিকুল ইসলাম প্রকৃত আসামি নয় বলে অবহিত করলেও পুলিশ সদস্যরা কোনো যাচাই-বাছাই না করেই তাকে গ্রেফতার করে নিয়ে যায়। 

শ্র্রীপুর বন বিভাগ সুত্রে জানা গেছে, লাইসেন্সবিহীন করাতকলে গজারি গাছ চেরাই করার অভিযোগে ২০১৫ সালের ৮ জুলাই শ্রীপুর সদর বন বিট অফিসার সহিদুর রহমান কেওয়া পশ্চিম খন্ডের বেগুন বাড়ি এলাকার রফিকুল ইসলামকে আসামি করে সিনিয়র জুডিশিয়াল ম্যাজিস্ট্রেট (বন) আদালতে একটি মামলা করেন। এ মামলায় রফিকুলের বিরুদ্ধে পরোয়ানা জারি করে শ্রীপুর থানাকে গ্রেফতারের নির্দেশ দেয় বন আদালত। এই মামলাতেই ভুলক্রমে চা বিক্রেতা রফিকুল ইসলামকে গ্রেফতার করে পুলিশ।

About

Popular Links