Thursday, May 30, 2024

সেকশন

English
Dhaka Tribune

শূন্য শূন্য লাগছে: প্রধানমন্ত্রীকে উহান প্রবাসী শিক্ষার্থীর ধন্যবাদ জ্ঞাপন

চীনের করোনাভাইরাসে বিপর্যস্ত উহান শহরে আটকে পড়া বাংলাদেশি শিক্ষার্থী ইমশিয়াত শরীফের আবেগময় স্ট্যটাসটি ঢাকা ট্রিবিউনের পাঠকদের জন্য তুলে ধরা হলো

আপডেট : ২৭ জানুয়ারি ২০২০, ০৯:৪২ পিএম

প্রাণঘাতী করোনাভাইরাস ব্যাপকভাবে ছড়িয়ে পড়া ঠেকাতে চীনের হুবেই প্রদেশের রাজধানী উহানসহ ১৪টি শহরের প্রবেশদ্বার কার্যত “তালাবদ্ধ” করে দিয়েছে চীন প্রশাসন।

সরকারের কঠোর নির্দেশ, এসব শহর থেকে বাইরের কেউ শহরে এবং ভেতরের কেউ বাইরে যেতে পারবে না। এছাড়া শহরগুলোর সব সিনেমা হল, রেস্তোরা, বার (মদের দোকান), সুপারশপ ইত্যাদিও বন্ধ করে দেওয়া হয়েছে। পাশাপাশি নিষিদ্ধ করা হয়েছে সব ধরনের গণজমায়েত।

চীন সরকারের ব্যাপক কড়াকড়ির মধ্যেই যুক্তরাষ্ট্র, কানাডা, জাপান, দক্ষিণ কোরিয়া, সিঙ্গাপুর, ভারতসহ ১৩ দেশে ছড়িয়ে পড়ার খবর পাওয়া গেছে। আন্তর্জাতিক গণমাধ্যমগুলোর খবর অনুযায়ী, করোনাভাইরাসে আক্রান্ত হয়ে এ পর্যন্ত ৮১ জনের মৃত্যু হয়েছে। এছাড়া নতুন এই ভাইরাসে দেশটিতে আক্রান্ত হয়েছে ২ হাজার ৭৪৪ জন।

এমন পরিস্থিতিতে উহানে আটকে পড়েছে ২৪৫ বাংলাদেশি শিক্ষার্থী। ফলে তারা যেমন করোনাভাইরাসের আতঙ্কে রয়েছেন, একইভাবে দেশে তাদের স্বজনেরা যেমন উদ্বিগ্ন হয়ে পড়েছেন। তবে চীনে অবস্থানরত বাংলাদেশিদের জন্য আশার খবর হচ্ছে, প্রধানমন্ত্রী শেখ হাসিনার নির্দেশে সেখানে আটকে পড়া বাংলাদেশিদের ফিরিয়ে আনতে ইতোমধ্যেই চীনের সাথে দেনদরবার শুরু করেছে পররাষ্ট্র মন্ত্রণালয়।


আরও পড়ুন - চীনে করোনাভাইরাস: উহানে আটকা ২৪৫ বাংলাদেশি শিক্ষার্থী


উহানে আটকে পড়া ইমশিয়াত শরীফ নামের এক বাংলাদেশি শিক্ষার্থী সেখানকার পরিস্থিতি সম্পর্কে ফেসবুকে স্ট্যটাস দিয়েছেন। ঢাকা ট্রিবিউনের পাঠকদের জন্য ইমশিয়াত শরীফের স্ট্যাটাসটি হুবহু তুলে ধরা হলো-

“আমি ইমশিয়াত শরীফ। চীনের হুবেই প্রদেশের উহান শহরে হোয়াজং ইউনিভার্সিটি সাইন্স অ্যান্ড টেকনোলজি সাংবাদিকতায় পিএইচডি করছি।”

“পরিবার-পরিজন ছাড়া আছি দীর্ঘদিন যাবৎ। বিশ্ববিদ্যালয়ে চলছে শীতকালীন ছুটি। ভেবেছিলাম দেশে যাবো। কিন্তু ছুটির পর  Phd oral defense থাকায় যাওয়া হয়নি। পড়ালেখা, রান্না-বান্না, ফটোগ্রাফি আর বিনোদন ভালোই চলছিল। বেশ হাসি-খুশি ছিলাম।”

“হঠাৎ করেই করোনাভাইরাসের উৎপত্তি। তাও আবার আমার এই শহরে। প্রথম দিকে বুঝতে পারি নাই। গত ২৩ তারিখে উহান শহরটাকে যখন লকড ডাউন (যাতায়াত নিষিদ্ধ) করে দেওয়া হলো, তখন হয়তো বুঝতে পারলাম হয়তো বড় আকার ধারণ করবে।”

“সেই করোনাভাইরাস এখন ছড়িয়ে পড়ছে বিশ্বে। ফলাও করে নিউজ করা হচ্ছে গনমাধ্যমগুলোতে। এই ভাইরাসে চীনেই এ পর্যন্ত মারা গেছে ৮০ জনের মতো। অসুস্থ আছে ৩ হাজারেরও বেশি।”


আরও পড়ুন - চীনে করোনাভাইরাসে মৃতের সংখ্যা ৮০, আক্রান্ত ৩ হাজার


“এই পরিস্থিতিতে এখানে প্রায় ৪ শতাধিক আটকেপরা বাংলাদেশি শিক্ষার্থীদের মাঝে আতংক-উৎকণ্ঠা বাড়ছেই। সপ্তাহব্যাপী দোকান-পাট, সুপারশপ বন্ধ থাকায় ইতোমধ্যে অনেকেই খাবারের সংকটে পড়েছে।”

“এদিকে চলমান পরিস্থিতিতে আটকে পরা বাংলাদেশিদের দেশে ফেরত নেওয়ার নির্দেশনা দিয়েছেন মাননীয় প্রধানমন্ত্রী। অসংখ্য ধন্যবাদ প্রধানমন্ত্রী আপনাকে সেই সাথে অনেক কৃতজ্ঞতা প্রকাশ করছি এই উহান বাংলাদেশিদের পক্ষ থেকে।”

“পাশাপাশি আমার অসংখ্য বন্ধুবান্ধব, আত্বীয়-স্বজন, শুভাকাঙ্খী, সাংবাদিক বন্ধুগণ ও পরিচিতজন আমার খোঁজ খবর নিচ্ছেন। ধন্যবাদ ও কৃতজ্ঞতা সবাইকে।”

“অনেকে আমার সাথে যোগাযোগ করার চেষ্টা করছেন। উইচ্যাট (Wechat) এবং ইমো (Imo)-তে পাবেন আমাকে। এছাড়াও +৮৬১৫৬০৭১৮৯২৪৩ এটা আমার চীনা নাম্বার।”

“শূন্য শূন্য লাগছে উহান। অন্ধকারময় হয়ে আসছে জীবন। সবাই দোয়া করবেন।”


আরও পড়ুন - করোনাভাইরাস: লক্ষণ, প্রতিরোধ ও আরও তথ্য

About

Popular Links