Saturday, May 25, 2024

সেকশন

English
Dhaka Tribune

সড়ক নিরাপত্তা: সিরাজগঞ্জে ৪’শতাধিক বাস হঠাৎ উধাও, বিপাকে যাত্রী

ট্রাফিক সপ্তাহ উপলক্ষে মহাসড়ক ও আঞ্চলিক সড়কে চলমান চেকিংএ সিরাজগঞ্জের ফিটনেসবিহীন ৪’শতাধিক লক্কর-ঝক্কর বাস উধাও হয়ে যাওয়ায় বিপাকে পড়েছে যাত্রীরা। 

আপডেট : ১০ আগস্ট ২০১৮, ০৯:০৬ পিএম

ঢাকায় দু’শিক্ষার্থী নিহতের ঘটনায় নিরাপদ সড়কের আন্দোলনের মধ্যেই গত ৫ আগষ্ট থেকে শুরু হয়েছে ট্রাফিক সপ্তাহ। রোভার স্কাউটের ছেলেমেয়েরা দেশব্যাপী সড়কে অবস্থান নিয়ে গত ক’দিন থেকেই ট্রাফিক পুলিশকে সাহায্যও করছেন। ট্রাফিক সপ্তাহ উপলক্ষে দেশের অন্যান্য স্থানের সাথে সিরাজগঞ্জের মহাসড়ক আঞ্চলিক সড়ক এবং আভ্যন্তরীন সড়কে ফিটনেস ও রেজিস্ট্রেশনবিহীন বাস ও চালকদের বৈধ লাইসেন্স আছে কি-না, দেখতে শুরু হয়েছে চেকিং। আর এ কারনে সিরাজগঞ্জ জেলার আভ্যন্তরীন রুটে চলাচলকারী প্রায় ৪’শতাধিক ফিটনেসবিহীন লক্কর-ঝক্কর বাসগুলো হঠাৎ করে উধাও। এদিকে, জেলার আভ্যন্তরীন বিভিন্ন রুটে হঠাৎ এসব বাস উধায় হওয়ায় বিপাকে পড়েছেন যাত্রীরা। 

সহসায় রাস্তায় দেখা যাচ্ছে না ওইসব ফিটনেস ও রেজিস্ট্রেশনবিহীন বাসগুলো। গত ক’দিন থেকে জেলা শহর থেকে উত্তরাঞ্চলের বিভিন্ন জেলায় চলচলকারী বাসের সংখ্যা অনেকটা কম। নিরাপদ সড়কের আন্দোলনের কারনে দেশের অন্যান্য স্থানে ফিটনেস ও রেজিস্ট্রেশনবিহীন বাস মালিকরা বাধ্য হয়ে বিআরটিএ অফিসে ভীড় করলেও সিরাজগঞ্জে অনেকটাই ব্যাতিক্রম। এখনও টনক নড়েনি জেলার ফিটনেস ও রেজিস্ট্রেশনবিহীন বাস মালিকদের।

সম্প্রতি জেলা রোড ট্রান্সর্পোট কমিটি (আরটিসি) সভায় জেলা প্রশাসক এসব ফিটনেস/রেজিস্ট্রেশনবিহীন যানবাহন সড়ক ও মহাসড়কে চলাচলে মালিক-শ্রমিক নেতাদের সতর্ক করেছেন। ভ্রাম্যমান আদালতের মাধ্যমে মালিকগনের পাশাপাশি লাইসেন্স না থাকা চালকেদের বিআরটিএ-মুখী করতে আইন শৃঙ্খলা বাহিনীর সদস্যদের পরামর্শ দেন ডিসি। কিন্তু, চালকরা সতর্ক হলেও ফিটনেস ও রেজিস্ট্রেশনবিহীন বাস মালিকগন স্থানীয় বিআরটিএ অফিসমুখী হচ্ছেন না বলেও জানা গেছে।

স্থানীয়ভাবে জানা গেছে, ট্রাফিক সপ্তাহের কড়াকড়ির কারনে এসব ফিটনেস ও লাইসেন্সবিহীন বাস সাময়িক বন্ধ থাকলেও কোরবানীর ঈদের  আগে ‘ঈদ স্পেশাল সার্ভিস’ নাম দিয়ে সিরাজগঞ্জ থেকে উত্তরাঞ্চল ও ঢাকাভিমুখে এসব চলার অপেক্ষায় রয়েছে। এর আগে বিগত বছরে ওয়াকশনের মাধ্যমে ডাম্পিং হিসেবে ক্রয়কৃত এবং মুন্সীগঞ্জ জেলা থেকে আনা প্রায় ৩০টি ফিটনেসবিহীন বাসও এসব কাতারে রয়েছে বলেও স্থানীয় সূত্রে জানা গেছে।

সিরাজগঞ্জ বিআরটিএ অফিস সূত্রে জানা যায়, সিরাজগঞ্জ-ঢাকা কাউন্টার সার্ভিস এবং আভ্যন্তরীন রুট সহ জেলায় প্রায় সাড়ে ৫’শ বাস চলাচল করছে। কাউন্টার বাস সার্ভিসের রেজিসেট্রশন ও ফিটনেস মোটামুটি থাকলেও আভ্যন্তরীন রুটে চলাচলকারী এসব বাসের ৪’শ বেশীরভাগেরই ফিটনেস নেই। সরকারীভাবে বার বার সুযোগ দেয়া সত্বেও দীর্ঘদিন থেকেই বাস মালিকগন বিআরটিএ মুখী হননি। গত ২০১৭ সালের ডিসেম্বর পর্যন্ত লাইসেন্স নবায়নসহ ফিটনেস আপটুডেট করার সুযোগ দেয়া হলেও জেলার বাস মালিকগন সে সুযোগ মোটেই গ্রহন করেননি। জেলা আরটিসি সভায়ও এসব বিষয়ে বার বার সতর্ক করা হলেও বাম মালিকগন মোটেই কর্ণপাত করেননি বলেও জানা যায়।

সিরাজগঞ্জ বিআরটিএ’র সহকারী পরিচালক মোঃ আলতাব হোসেন বৃহস্পতিবার (৮ আগষ্ট) বলেন, দীর্ঘদিন থেকেই রেজিসেট্রশন ও ফিটনেসবিহীন বাস মালিকগন খেলাপী রয়েছেন। ৪ শতাধিক বাসের লাইসেন্স ও ফিটনেস আপটুডেট করা হলেও প্রায় ৭ থেকে ৮ কোটি টাকার রাজস্ব সরকারী কোষাগারে জমা হতে পারে।  দেশব্যাপী নিরাপদ সড়কের আন্দোলনের কারনে লাইসেন্সের জন্য চালকগন আমাদের অফিসমুখী হলেও বাস মালিকগন আসছেন না। সম্প্রতি আরটিসি সভায় জেলা প্রশাসক বাস মালিকগনকে আবারো সতর্ক করেছেন। তাপরেও তাদের টনক নড়ছে না।

জেলা পুলিশ সুপার কার্যালয়ের জনসংযোগ কর্মকর্তা মোঃ আবু ইউসুফ বলেন, এসব বিষয়ে আমাদের নিয়মিত অভিযান চলছে। ফিটনেসবিহীন বাসের বিপরিতে মামলা ও জরিমানা করা হচ্ছে। হাটিকুমরুল হাইওয়ে থানার ওসি আব্দুল কাদের জিলানী বৃহস্পতিবার বিকেলে বলেন, সিরাজগঞ্জ জেলার অধিকাংশ বাসেরই বৈধ কাগজপত্র নেই। ট্রাফিক সপ্তাহ উপলক্ষে মহাসড়কের হাটিকুমরুল মোড়ে নিয়মিত চেকিং চলছে। যে কারনে সিরাজগঞ্জ থেকে চলাচলকারী বাসের সংখ্যাও কম।

জেলা বাস শ্রমিক ইউনিয়নের সাধারন সম্পাদক আনসার আলী বলেন, সারাদেশেই চেকিং চলছে। শুধু সিরাজগঞ্জ নয় সবজেলার মালিকগন যাদের বৈধ কাগজপত্র নেই, জরিমানা ও মামলার ভয়ে তারা সড়কে গড়ি বের করছেন না।

জেলা বাস মালিক সমিতির সাধারন সম্পাদক মেজবাহুল ইসলাম লিটন বলেন, অধিকাংশ বাসেরই রেজিস্ট্রেশন আছে। কিন্তু নিয়মিত নবায়ন না করায় ডেট ফেল হয়েছে। বাস মালিকদের বার বার তাগিদও দেয়া হচ্ছে। বর্তমানেও বলা হচ্ছে।

সমিতির সভাপতি আব্দুল হাদি আলমাজি জিন্নাহ বলেন অধিকাংশরই রেজিস্ট্রেশন থাকলেও সময়মত নবায়ন না করায় জরিমানাও ধার্য হয়েছে অনেক। আগের মত ব্যবসা না থাকায় বর্তমানে অধিকাংশ মালিকগনই দৈন্যতায় পড়েছেন। ইচ্ছে থাকা সত্বে জরিমানার কারনে কাগজপত্র আপটুডেট করা সম্ভব হয়নি। জরিমানা মওকুফের জন্য আরটিসি সভার মাধ্যমে সরকারের নিকট বার বার অনুরোধ জানিয়েছি। জরিমানা মওকুফ করা হলেও সবকিছুই আপটুটেড করা সম্ভব হবে।

অতিরিক্ত জেলা ম্যাজিস্টেট (এডিএম) মোঃ ফিরোজ মাহমুদ বলেন, মহাসড়ক ও আঞ্চলিক সড়কে যত্রতত্র যাত্রী উঠনামা এবং ফিটনেস-রেজিস্ট্রেশনবিহীন বাস ও লাইসেন্স বিহীন চালকদের বিরুদ্ধে অভিযান পরিচালনা নিয়ে গত ৭ আগষ্ট আরটিসি সভায় সিদ্ধান্ত হয়েছে। এছাড়া, মহাসড়কে সিএনজি চালিত থ্রি-হুইলার, নসিমন-করিমন, ভুটভুটি ও মাইক্রোবাস কেটে তৈরী হিউম্যান হুইলার চলাচলেও নিষেধাজ্ঞা আরোপিত হয়। আদেশ অমান্যকারীদের বিরুদ্ধে নিয়মিত ভ্রাম্যমান আদালত পরিচালনার মাধ্যমে উপযুক্ত সাজা ও জরিমানা নিশ্চিত করনের জন্যও সিদ্ধান্ত হয় ওই সভায়। 


About

Popular Links