Wednesday, May 29, 2024

সেকশন

English
Dhaka Tribune

১৯৫৮: মারাকানার কান্না ভুলিয়ে ব্রাজিলের প্রথম শিরোপা

দরজায় কড়া নাড়ছে বিশ্বকাপ। রাশিয়ায় বসতে যাচ্ছে ফুটবল মহাযজ্ঞের ২১তম আসর। তার আগের প্রতিযোগিতাটিগুলো কেমন ছিল, কারাই বা চ্যাম্পিয়ন হয়েছিল- ফুটবল উৎসবের বানে ভেসে যাওয়ার আগে একটু চোখ বুলিয়ে নেওয়া যাক সেখানে-

আপডেট : ২৯ মে ২০১৮, ১২:১৭ পিএম

মারাকানোজো ভুলিয়ে ব্রাজিলিয়ানরা মেতেছিল বিশ্ব জয়ের উল্লাসে। আট বছর আগে ঘরের মাঠের বিশ্বকাপ ফাইনালে হেরে হাহাকারের দেশে স্বস্তির বাতাস ছড়িয়ে দিয়েছিলেন ১৭ বছর বয়সের এক তরুণ।সুইডেনে বসা ১৯৫৮ সালের ওই বিশ্বকাপেই বিশ্ব পেয়েছিল পেলের নামের এক ফুটবল সন্তানকে, যিনি তার জাদুতে শুধু ব্রাজিলকে নয়, দুহাত ভরে দিয়েছেন গোটা ফুটবল বিশ্বকে।

৮ থেকে ২৯ জুন সুইডেনে হওয়া ষষ্ঠ বিশ্বকাপে প্রথমবার শিরোপা উদযাপন করে ব্রাজিল।ফাইনালে স্বাগতিক সুইডেনকে ৫-২ গোলে হারায় লাতিন আমেরিকার দেশটি, যেখানে সেলেসাওদের হয়ে জোড়া লক্ষ্যভেদ করেছিলেন পেলে। ‘ফুটবলের রাজা’র হ্যাটট্রিকেই আবার সেমিফাইনালে ফ্রান্সকে ৫-২ গোলে হারিয়েছিল ব্রাজিল। 

তবে গোল সংখ্যায় বিশ্বকাপটা ছিল ফ্রান্সের জাস্ট ফন্টেইনের। এক আসরে এই ফরাসি স্ট্রাইকার করেছিলেন ১৩ গোল! এখন পর্যন্ত যা নির্দিষ্ট কোনও বিশ্বকাপে কোনও খেলোয়াড়ের করা সর্বোচ্চ গোলের রেকর্ড।

অন্য চোখে: সোভিয়েত ইউনিয়ন প্রথমবার ওঠে বিশ্বকাপের মূল পর্বে। দুইবারের বিশ্ব চ্যাম্পিয়ন উরুগুয়ে বাছাই পর্বের বাধা পেরোতে ব্যর্থ হয়।

একনজরে:

আয়োজক: সুইডেন

মোট দল: ১৬

ভেন্যু: ১২

চ্যাম্পিয়ন: ব্রাজিল

রানার্স-আপ: সুইডেন

মোট ম্যাচ: ৩৫

মোট গোল: ১২৬

সর্বোচ্চ গোলদাতা: জাস্ট ফন্টেইন (ফ্রান্স), ১৩ গোল।

সেরা উদীয়মান খেলোয়াড়: পেলে (ব্রাজিল)।

ফরম্যাট: আবারও বদল আসে বিশ্বকাপ ফরম্যাটে। ১৯৫৪ সালের আসরে গ্রুপ পর্বে খেলা হয়েছিল দলগুলোর বাছাই নির্ণয় করে। একই সঙ্গে গ্রুপে দুই দলের পয়েন্ট সমান হলে ছিল প্লে অফের ব্যবস্থা।তবে ১৯৫৮ সালের বিশ্বকাপে তা পাল্টে যায়। ১৬ দল চার গ্রুপে ভাগ হয়ে প্রত্যেক দল নিজ গ্রুপের প্রত্যেক দলের বিপক্ষে খেলেছে। জয়ের জন্য ছিল ২ পয়েন্ট, আর ড্রয়ের জন্য ১ পয়েন্ট। আগের বিশ্বকাপে গ্রুপ পর্বেই ছিল অতিরিক্ত সময়ের নিয়ম, তবে সুইডেনের আসরে সেটা উঠে যায়।

কোয়ার্টার ফাইনাল: গ্রুপ পর্বে পয়েন্ট টেবিলে শীর্ষে থাকা দুটি করে দল ‍জায়গা পায় কোয়ার্টার ফাইনালে।শেষ চার নিশ্চিত করে ব্রাজিল, ওয়েলস, ফ্রান্স, নর্দার্ন আয়ারল্যান্ড, সুইডেন, সোভিয়েত ইউনিয়ন, পশ্চিম জার্মানি ও যুগোস্লাভিয়া। ওয়েলসকে ১-০ গোলে হারিয়ে সেমিফাইনালে ওঠে ব্রাজিল, ওই ম্যাচেই প্রথমবার লক্ষ্যভেদ করেন পেলে।

সেমিফাইনাল: ব্রাজিলের সঙ্গে সেমিফাইনাল নিশ্চিত করা বাকি তিন দল হলো- ফ্রান্স, সুইডেন ও পশ্চিম জার্মানি। নর্দার্ন আয়ারল্যান্ডকে ৪-০ গোলে উড়িয়ে দিয়ে সেমিতে ওঠে ফ্রান্স।সোভিয়েত ইউনিয়নকে ২-০ গোলে হারিয়ে সুইডেন ও যুগোস্লাভিয়াকে ১-০ গোলে হারিয়ে শেষ চার নিশ্চিত করে পশ্চিম জার্মানি।

ফাইনাল: সেমিফাইনালে পেলের হ্যাটট্রিকে ফ্রান্সকে সহজেই হারায় ব্রাজিল। ৫-২ গোলের জয়ে প্রথম শিরোপা জেতার সুযোগ তৈরি হয় সেলেসাওদের সামনে। অন্য সেমিফাইনালে আগেরবারের চ্যাম্পিয়ন পশ্চিম জার্মানিকে ৩-১ গোলে হারায় সুইডেন। স্বাগতিক বলে সুইডেনের সামনেও সুযোগ ছিল প্রথম বিশ্বকাপ জেতার।

তবে তা হয়নি। নক আউট পর্বে দুর্দান্ত পারফর্ম করা তরুণ পেলের সামনে উড়ে যায় সুইডেন। চতুর্থ মিনিটে তারা এগিয়ে গেলেও ব্রাজিল ঘুরে দাঁড়ায় নবম মিনিটেই। ভাবার জোড়া লক্ষ্যভেদের সঙ্গে পেলের জোড়া গোলে প্রথমবার বিশ্ব জয়ের আনন্দে মাতে সাম্বার দেশ। একই সঙ্গে ১৯৫০ সালের মারাকানোজোর দুঃখে কিছুটা হলেও প্রলেপ দিতে পারে তারা। 

About

Popular Links