• মঙ্গলবার, এপ্রিল ০৭, ২০২০
  • সর্বশেষ আপডেট : ১১:২৮ রাত

‘হুমায়ুন’হীন ছয় বছর

  • প্রকাশিত ১২:১৩ রাত জুলাই ২০, ২০১৮
  • সর্বশেষ আপডেট ০৪:৫৮ বিকেল জুলাই ২০, ২০১৮
humayun-ahmed-1531992841927-1532023694294.jpg
হুমায়ুন আহমেদের প্রয়াণের ষষ্ঠ বছর।

বৃহস্পতিবার সকাল সাড়ে এগারোটায় প্রয়াত লেখকের পরিবারবর্গ তাঁর কবর জিয়ারত করেন। দেশের বেশকটি প্রতিষ্ঠানেও প্রিয় লেখকের স্মরণে শ্রদ্ধা জ্ঞাপন করা হয়।

'ডাক্তার সাহেব তুমি আমার জন্য দুফোঁটা চোখের জল ফেলেছ- তার প্রতিদানে আমি 'জনম জনম কাঁদিব'।'

‘তেতুল বনে জোছনা’র এই লাইনটি পড়ে ক’বার কেঁদেছেন?জিজ্ঞেস করলেই নিশ্চিত বলবেন, অগুনিতবার!

ছয়টা একুশে বইমেলা পার হল, তবু অপেক্ষার প্রহর আর শেষ হবার না জেনেও, বারবার গিয়েছেন। নাহ, হুমায়ুন আহমেদ স্যারের নতুন কোন বই-ই আর প্রকাশ পাচ্ছেনা। আর আসছে না হিমু, কিম্বা মিসির আলি। 

ছয় বছর আগে আজকের দিনে জনপ্রিয় লেখক হুমায়ুন আহমেদ ঘাতকব্যাধি ক্যানসারের সাথে লড়াই করে শেষ নিঃশ্বাস ত্যাগ করেন। কথার যাদুকর, প্রিয় লেখকের প্রয়াণ দিবসে বিনম্র শ্রদ্ধা আর ভালোবাসার সাথে তাঁকে স্মরণ করা হয়েছে গাজীপুরের নুহাশ পল্লীতে। 

বৃহস্পতিবার সকাল সাড়ে এগারোটায় প্রয়াত লেখকের পরিবারবর্গ তাঁর কবর জিয়ারত করেন। দেশের বেশকটি প্রতিষ্ঠানেও প্রিয় লেখকের স্মরণে শ্রদ্ধা জ্ঞাপন করা হয়। 

পরবর্তীতে প্রয়াত লেখকের স্ত্রী মেহের আফরোজ শাওন বলেন, ‘আমরা আশা করছি বাংলাবাজার অথবা বাংলা অ্যাকাডেমি চত্বরের মতো কোন একটি বিশেষ স্থানের নামকরণ হুমায়ুনের নামে হবে’।

দিনটিকে স্মরণে রেখে লেখকের আত্মার শান্তির জন্য নুহাশ পল্লীতে দুয়া মাহফিলের আয়োজন করা হয়।

অসম্ভব গুনি এই লেখক ১৯৪৮ সালের ১৩ই নভেম্বর জন্মগ্রহণ করেন। ২০১১ সালে তাঁর শরীরে ঘাতক ক্যানসার ধরা পরে। চিকিৎসা চলাকালীন অবস্থায় ২০১২ সালের জুলাইয়ে যুক্তরাষ্ট্রে তিনি শেষ নিঃশ্বাস ত্যাগ করেন। পরবর্তীতে নুহাশ পল্লীতে তাঁকে সমাহিত করা হয়।