• শনিবার, ডিসেম্বর ০৭, ২০১৯
  • সর্বশেষ আপডেট : ০৫:২১ সন্ধ্যা

ছেলেকে চার বিয়ে করিয়ে গ্রেফতার বাবা

  • প্রকাশিত ০৮:৪৯ রাত জুলাই ২৫, ২০১৮
unnamed-1532329409500.jpg
১৬ বছর বয়সী কিশোর রানা।ছবি: সংগৃহীত

কথায় আছে ‘পাপ বাপকেও ছাড়েনা’। এবার সে প্রবাদের সত্যতা মিলছে অক্ষরে অক্ষরে। কুষ্টিয়ার মিরপুরে দেড় বছরে ৪ বিয়ের ঘটনায় দেশজুড়ে আলোচিত সেই মো. রানা মন্ডলের বাবা রাশেদুল ইসলাম অবশেষে ছেলের কর্মের জন্য পুলিশের হাতে গ্রেফতার হোন। পরে অবশ্য মুচলেকা দিয়ে ছাড়া পেয়েছেন তিনি।

বুধবার (২৫ জুলাই) বিকেলে স্থানীয় ফুলবাড়ীয়া ইউনিয়ন পরিষদ কার্যালয়ে বাল্য বিবাহ থেকে বিরত রাখতে উপজেলা প্রশাসনের আয়োজনে এক অবহিতকরণ সভা অনুষ্ঠিত হয়। সভা শেষে রানা মন্ডলের বাবা রাশেদুল ইসলাম ছেলের কর্মের জন্য সবার কাছে হাতজোড় করে ক্ষমা চান এবং তিনি নিজের ভুল শিকার করে বলেন, ‘আমার ছেলের বিয়ে দিয়ে ভুল করেছি। আপনারা কেউ এভাবে বিয়ে দেবেন না। বাল্য বিবাহ অন্যায় এবং আপরাধ।’ 

তিনি আরো বলেন, ‘ছেলেদের ২১ বছরের নিচে কারো বিয়ে দেবেন না। বিয়ে দিয়ে এমন সাজা ভোগ করতে হবে।’

 

প্রসঙ্গত, কুষ্টিয়ার মিরপুরে দেড় বছরে ৪ বিয়ে করে মো. রানা মন্ডল নামে এক কিশোর। মিরপুর উপজেলার ফুলবাড়িয়া ইউনিয়নের ফুলবাড়িয়া গ্রামের রাশেদুল ইসলামের ছেলে রানা মন্ডল গত বছরের জানুয়ারি মাসে পাশ্ববর্তী ভেড়ামারা উপজেলায় প্রথম বিয়ে করেন। সে বিয়ের দেড় মাসের মাথায় বিবাহ বিচ্ছেদ ঘটে। এর একমাস পরে মিরপুর উপজেলার কচুবাড়িয়া গ্রামে দ্বিতীয় বিয়ে করেন। দ্বিতীয় বিয়ের একমাসের মাথায় বিচ্ছেদ ঘটে। এরপর তার কিছুদিন পরে তৃতীয় বিয়ে করে দৌলতপুর উপজেলার খলিসাগুন্ডি এলাকায়। তবে সে বিয়েও দীর্ঘস্থায়ী হয়নি বেশিদিন। 


সবশেষ চলতি মাসের ২০ জুলাই শুক্রবার চতুর্থ বিয়ে করেন। দেড় বছরে ৪ বিয়ে ঘটনায় দেশজুড়ে আলোচিত হলে সম্প্রতি গত ২৩ জুলাই রানা মন্ডলের রাশেদুল ইসলামকে আটক করে পুলিশ। এরপর বুধবার (২৫ জুলাই) বিকেলে স্থানীয় ফুলবাড়ীয়া ইউনিয়ন পরিষদ কার্যলয়ে বাল্য বিবাহ থেকে বিরত রাখতে উপজেলা প্রশাসনের এক অবহিতকরণ সভায় ছেলের কর্মের জন্য লিখিত মুচলেকা দিয়ে ক্ষমা পান। তবে রানা মন্ডল এখনো পলাতক রয়েছে।