• বৃহস্পতিবার, ডিসেম্বর ১৩, ২০১৮
  • সর্বশেষ আপডেট : ১২:০৭ রাত

তবে কি শিক্ষার্থীরা ওবায়দুল কাদেরের অনুসারী?

  • প্রকাশিত ১০:১০ রাত আগস্ট ২, ২০১৮
kader-1532533317721.jpg
সড়ক পরিবহন ও সেতুমন্ত্রী ওবায়দুল কাদের। ফাইল ছবি

নতুন সড়ক পরিবহন আইন পাস হলে রাস্তায় পাখির মতো মানুষ মারার যে প্রবণতা তা কমবে-ওবায়দুল কাদের।  

সড়ক পরিবহনের শৃঙ্খলা ফিরিয়ে আনতে এ সংক্রান্ত বিচার সেতুমন্ত্রী জানান, ‘এ বিষয়টি আমরা কেবিনেটে ও পরবর্তীতে সংসদে আলোচনা করবো। রাস্তায় রাস্তায় গাড়ি দাঁড় করিয়ে লাইসেন্স ফিটনেস চেক করার ইতিহাস আমিই শুরু করেছি।’ 

আদালতের নির্দেশে সড়ক পরিবহনের হতে যাচ্ছে নতুন আইন এবং ছাত্রদের সব দাবির সমাধান ওই আইনের মধ্যে আছে এমন মন্তব্য করেছেন, সড়ক পরিবহন ও সেতুমন্ত্রী ওবায়দুল কাদের। 

নতুন আইনের বিধান এবং দুর্ঘটনা সম্পর্কে ওবায়দুল কাদের জানান, ‘সংসদের আগামী অধিবেশনে আইনটি পাস হলে রাস্তায় পাখির মতো মানুষ মারার যে প্রবণতা তা কমবে। এই আইনে কঠিন শাস্তির বিধান রাখা হয়েছে। শাস্তি কঠিন হলে সতর্কতা বাড়বে। ’

বৃহস্পতিবার (২ আগস্ট) সচিবালয়ের নিজ কার্যালয়ে বাংলাদেশে নিযুক্ত ভারতীয় হাইকমিশনার হর্ষবর্ধন শ্রিংলার সঙ্গে সৌজন্য সাক্ষাৎ শেষে গণমাধ্যম কর্মীদের এইসব কথা জানান, ওবায়দুল কাদের। 

ছাত্রদের দাবি প্রসঙ্গে ওবায়দুল কাদের জানান, ‘ছাত্রদের ট্রাফিক আইন সম্পর্কে সচেতন করতে শিক্ষা মন্ত্রণালয়ের দায়িত্ব আছে। সব বিষয় আইনে অন্তর্ভুক্ত করা রয়েছে।’ 

নতুন সড়ক আইন প্রণয়ন প্রসঙ্গে মন্ত্রী জানান, ‘নতুন সড়ক পরিবহন আইন পাস হলে আমি শক্তি পাবো। শুধু তাই নয়, এই আইনটি পাস হলে ওভারঅল এই মন্ত্রণালয়ের দায়িত্বে যিনি মন্ত্রী থাকবেন তিনি শক্তিশালী হবেন। এটি অনেক বড় আইন। সর্বোচ্চ শাস্তির বিধান রেখেই এই আইনটি প্রণয়ন করা হচ্ছে। মালিকরা অধিক মাত্রায় জমা নেন বলে সেই জমা তোলার জন্যে যাত্রী পরিবহনের বাসের হেলপার ও ড্রাইভাররা রাস্তায় পারাপার করে। এই আইনে তাদের উভয়ের পক্ষের বিষয়টি অন্তর্ভুক্ত করা আছে।’ 

নতুন আইন পাসের বিষয়ে গণমাধ্যম কর্মীদের তিনি জানান, ‘ভেটিংয়ের জন্য আইনটি আইন মন্ত্রণালয়ে ছিল, এখনও আছে। পরিবহনের সঙ্গে যুক্ত সংশ্লিষ্ট সব পক্ষের সঙ্গে বসে এই আইনটি চূড়ান্ত করছিল আইন মন্ত্রণালয়ে। এটি একটি লম্বা প্রসেস। আইনটি পাস হলে সড়ক পরিবহন ব্যবস্থাপনায় শৃঙ্খলা ফেরাতে সহায়ক হবে।’