• শুক্রবার, নভেম্বর ১৫, ২০১৯
  • সর্বশেষ আপডেট : ১০:৪৬ রাত

১০ শিক্ষার্থী ৫ শিক্ষক দিয়ে চলছে একটি স্কুল

  • প্রকাশিত ০৪:৫৮ বিকেল সেপ্টেম্বর ২, ২০১৮
১০ শিক্ষার্থী ৫ শিক্ষক দিয়ে চলছে একটি স্কুল
চন্দ্রা সরকারি প্রাইমারি স্কুল।ঠাকুরগাঁওয়ের পীরগঞ্জ উপজেলা। ঢাকা ট্রিবিউন

ক্লাস হয় না নিয়মিত। ক্লাস ফাঁকি দিচ্ছেন শিক্ষকরা এমন অভিযোগ কোমলমতি শিশু শিক্ষার্থীদের।

শিশুদের প্রাইমারি পর্যায়ের একটি শিক্ষা প্রতিষ্ঠান। আর এই প্রতিষ্ঠানে রয়েছে মাত্র ১০ শিক্ষার্থী। এদিয়ে  চলছে স্কুলটি। তারপর ও ক্লাস হয় না নিয়মিত। ক্লাস ফাঁকি দিচ্ছেন শিক্ষকরা এমন অভিযোগ কোমলমতি শিশু শিক্ষার্থীদের। 

স্থানীয়রা জানিয়েছে, ২০১২ সালে ঠাকুরগাঁওয়ের পীরগঞ্জ উপজেলার জাবরহাট ইউনিয়নের চন্দ্রা সরকারি প্রাইমারি স্কুলটি স্থাপিত হয়। শুরু থেকে ১০ থেকে ১২ জন শিক্ষার্থী দিয়ে চলছে এই শিক্ষাপ্রতিষ্ঠানটি। এতে কর্মরত রয়েছেন ১ জন প্রধান শিক্ষকসহ ৫ শিক্ষক।  

প্রধান শিক্ষক মনজুর মোরশেদের দেয়া তথ্য মতে, বিদ্যালয়টির প্রথম শ্রেণীতে ২ জন, দ্বিতীয় শ্রেণীতে ১ জন, তৃতীয় শ্রেণীতে ১ জন, চতুর্থ শ্রেণীতে ১ জন ও পঞ্চম শ্রেণীতে ৪ জন ছাত্র-ছাত্রী রয়েছে। এর মধ্যে দ্বিতীয় শ্রেণীর এক শিক্ষার্থীর এই বিদ্যালয় ছেড়ে ঢাকার একটি শিক্ষাপ্রতিষ্ঠানে ভর্তি হয়েছে। অন্যদিকে ৫ম শ্রেণীর এক শিক্ষার্থী  ইতিমধ্যে এ বিদ্যালয় ছেড়েছে। 

বিদ্যালয়ের সহকারী শিক্ষক ফাইজার রহমান জানান, চন্দ্রা গ্রামে জনবসতি কম হওয়ায় এখানে অন্য বিদ্যালয়ের তুলনায় শিক্ষার্থীর সংখ্যা কম। 

প্রধান শিক্ষক মনজুর মোরশেদ জানান, শিক্ষার্থী সংখ্যা বৃদ্ধির জন্য অভিভাবক সমাবেশ সহ নানা কর্মসুচি হাতে নেয়া হয়েছে। তবে তিনি স্কুল ফাঁকি দেয়ার বিষয়টি সঠিক নয় বলে দাবি করেন। 

জানা গেছে, চন্দ্রা স্কুলের আশ-পাশের আরও দুইটি সরকারি স্কুল থাকায় শিক্ষার্থী সংকটে পড়েছে এ শিক্ষা-প্রতিষ্ঠানটি।

এ বিষয়ে পীরগঞ্জ উপজেলা শিক্ষা-অফিসার নজরুল ইসলাম জানান, স্কুল পরিদর্শন করে প্রয়োজনীয় ব্যবস্থা নেবেন তিনি।