• সোমবার, জানুয়ারী ২০, ২০২০
  • সর্বশেষ আপডেট : ১২:৪৫ রাত

এবার ফেনীতেও ‘নো হেলমেট, নো পেট্রোল’

  • প্রকাশিত ১০:১৩ রাত সেপ্টেম্বর ৫, ২০১৮
ফেনীতে ‘নো হেলমেট, নো পেট্রোল’
সঠিক কাগজপত্র ও হেলমেট পরিহিত মোটর সাইকেল আরোহীকে ফুল দিয়ে শুভেচ্ছা জানান পুলিশ। ছবি: ঢাকা ট্রিবিউন

রংপুরে শুরু হওয়া এই অভিযান ঢাকা এবং বরিশালের পর এবার শুরু হল ফেনীতেও। 

বুধবার দিনভর ফেনীতে ‘নো হেলমেট, নো পেট্রোল’ অভিযান শুরু করে ট্রাফিক পুলিশ। সঠিক কাগজপত্র ও হেলমেট পরিহিত মোটরসাইকেল আরোহীকে ফুল দিয়ে শুভেচ্ছা জানান তারা। এর ব্যত্যয়ে চালকদের মামলা দিয়ে গাড়ী জব্দও করছেন তারা।

এদিকে বিভিন্ন পেট্রোল পাম্পে হেলমেট বিহীন মোটরসাইকেল আরোহীকে তেল না নিয়ে ফিরে যেতে দেখা গেছে। এতে করে মোটরসাইকেল চালকরা যাত্রাপথে বিড়ম্বনার শিকার হয়।

জেলা ট্রাফিক পুলিশের ইনচার্জ মীর গোলাম ফারুক ঢাকা ট্রিবিউনকে বলেন, হেলমেটবিহীন মোটরসাইকেল চালককে তেল না দেয়ার নির্দেশ দেওয়া হয়েছে পাম্প মালিকদের । দূর্ঘটনা এড়াতে পুলিশ প্রশাসনের পক্ষ থেকে এ সিদ্ধান্ত নেয়া হয়েছে। এটির মাধ্যমে জনসচেতনার বাড়ার সাথে সাথে দূর্ঘটনা কমবে।

হাজী নজির আহম্মদ ফিলিং স্টেশনের স্বত্ত্বাধিকারী নুর উদ্দিন জানান, প্রশাসনের নির্দেশনা মোতাবেক আমরা হেলমেট বিহীন মোটরসাইকেল আরোহীদের কাছে সব ধরণের জ্বালানি তেল বিক্রি বন্ধ রাখার নির্দেশ দিয়েছি।

সূত্র আরো জানায়, ফেনীতে ছোট বড় ১৮টি পেট্রোল পাম্প রয়েছে। এসব প্রেট্রোল পাম্পে প্রতিদিনই হাজার হাজার মোটরসাইকেল আরোহী জ্বালানি তেল সংগ্রহ করে থাকেন।

উল্লেখ্য, ২৯ আগষ্ট বুধবার রংপুর জেলার অতিরিক্ত পুলিশ সুপার সাইফুর রহমান সাইফ ‘নো হেলমেট, নো পেট্রোল’ থিওরিতে পেট্রোল পাম্প মালিকদের হেলমেট ছাড়া মোটরসাইকেল আরোহীদের কাছে জ্বালানি বিক্রি না করার আহ্বান জানান। সেই আহ্বানে সাড়া দিয়ে ৩০ আগস্ট থেকে হেলমেটবিহীন বাইকারদের কাছে তেল বিক্রি করা বন্ধ করেন পাম্প মালিকরা। পরে দেশব্যাপী এই থিওরি প্রয়োগের প্রবণতা শুরু হয়।