• শুক্রবার, নভেম্বর ১৬, ২০১৮
  • সর্বশেষ আপডেট : ০৩:৩২ বিকেল

প্রেসক্লাব মিলনায়তনে নাগরিক ঐক্যের আলোচনা সভা

  • প্রকাশিত ১১:৫০ রাত সেপ্টেম্বর ৫, ২০১৮
প্রেসক্লাব মিলনায়তনে নাগরিক ঐক্যের আলোচনা সভা
প্রেসক্লাব মিলনায়তনে নাগরিক ঐক্যের আলোচনা সভা। ছবি: মোঃ মেহেদী হাসান/ঢাকা ট্রিবিউন

নাগরিক ঐক্যের উদ্যোগে আয়োজিত এই আলোচনা সভাটিতে সভাপতিত্ব করেন মাহমুদুর রহমান মান্না।

বুধবার বিকেলে জাতীয় প্রেসক্লাব মিলনায়তনে অনুষ্ঠিত হয়েছে ইভি্এম বর্জন, জাতীয় নির্বাচন ও রাজনৈতিক জোট শীর্ষক আলোচনা সভা। নাগরিক ঐক্যের উদ্যোগে আয়োজিত এই আলোচনা সভাটিতে সভাপতিত্ব করেন মাহমুদুর রহমান মান্না।

আলোচনা সভাটিতে বক্তব্য রাখেন গণফোরামের সভাপতি ড. কামাল হোসেন, বিকল্পধারা বাংলাদেশের চেয়ারম্যান ড. একিউএম বদরুদ্দোজা চৌধুরী, বিএনপি মহাসচিব মির্জা ফখরুল ইসলাম আলমগীর, জাতীয় সমাজতান্ত্রিক দল (জাসদ) সভাপতি আ.স.ম আব্দুর রব, কল্যাণ পার্টির চেয়ারম্যান মেজর জেনারেল (অব:) ইব্রাহিম, বাংলাদেশ ব্যাংকের সাবেক চেয়ারম্যান ড.সালেহ উদ্দিন আহমেদ, ড. দিলারা চৌধুরী, ঢাবি শিক্ষক আসিফ নজরুলসহ আরও অনেকে।

আলোচনা সভায় ড. কামাল হোসেন বলেন, “আজকে আমি আহবান জানাব, যারা অসাম্প্রদায়িক ও গণতন্ত্র বিশ্বাস করেন, আসুন মানুষের স্বার্থে, দেশের স্বার্থে, জাতির স্বার্থে আমরা ঐক্যবদ্ধ হই।” এ ছাড়াও তরুণদের কোটা সংস্কার আন্দোলন এবং শিক্ষার্থী নিরাপদ সড়ক আন্দোলনের প্রশংসা করেন ড. কামাল।

এদিকে বিএনপি মহাসচিব মির্জা ফখরুল ইসলাম আলমগীর বেগম খালেদা জিয়ার গ্রেফতারকে অসংবিধানিক আখ্যা দিয়ে বলেন, “সরকার ইচ্ছাকৃতভাবে বেগম জিয়াকে পুরোনো কেন্দ্রীয় কারাগারে রাখার সিদ্ধান্ত নিয়েছে।”

এ ছাড়াও আলোকচিত্রী শহিদুল আলমের কথা তুলে মির্জা ফখরুল বলেন, “সরকারের নিপীরণ দিন দিন খারাপ হচ্ছে এবং ১৯৭১-এর পাকিস্তানি নিপীরণকেও ছাড়িয়ে যাচ্ছে।” এদিকে জাসদের প্রতিষ্ঠাতা এবং সভাপতি আসম আব্দুর রব বলেন, “রাজনৈতিক দলের মূল দায়িত্ব হলো কাজের মাধ্যমে মানুষের চাহিদা পূরণ করা। দেশের অধিকাংশ মানুষই এখন আর এই সরকারকে সমর্থন করে না, তাদেরকে ক্ষমতায় দেখতে চায় না। এই সরকারকে বিদায় জানানো আমাদের দায়িত্ব।”

তিনি আরও বলেন, “আমরা যদি ব্যর্থও হই, তাহলে রাজনৈতিকভাবে ব্যর্থ হবো।” ঢাকা বিশ্ববিদ্যালয়ের অধ্যাপক আসিফ নজরুল বলেন, “বিশ্বব্যাপী ইভিএম একটি বিতর্কিত ইস্যু। এর কারণে বিশ্বের অনেক দেশ থেকে এটি বাদ দেওয়া হয়েছে। আমার ধারণা, ইভিএম ব্যবহার করে সরকার জনগনের ভোটাধিকার কেড়ে নিতে চাইছে।”