• বুধবার, সেপ্টেম্বর ২৬, ২০১৮
  • সর্বশেষ আপডেট : ০১:২৩ রাত

খুব শীঘ্রই তিন হাজার রোহিঙ্গার প্রত্যাবাসন

  • প্রকাশিত ১১:৫৬ সকাল সেপ্টেম্বর ৬, ২০১৮
পররাষ্ট্রমন্ত্রী এ এইচ মাহমুদ আলী
রোহিঙ্গা প্রত্যাবাসন প্রক্রিয়ার প্রথম পদক্ষেপ হিসেবে খুব শিগগিরই তিন হাজার রোহিঙ্গাকে মায়ানমারে ফেরত পাঠানো হবে। ছবিঃ এএফপি।

রোহিঙ্গাদের ফেরত পাঠাতে বান্দরবানের নাইক্ষ্যংছড়ি ঘুমধুম ইউনিয়নে প্রত্যাবাসন কেন্দ্র তৈরি হচ্ছে 

রোহিঙ্গা প্রত্যাবাসন প্রক্রিয়ার প্রথম পদক্ষেপ হিসেবে খুব শীঘ্রই তিন হাজার রোহিঙ্গাকে মায়ানমারে ফেরত পাঠানো হবে বলে জানিয়েছেন পররাষ্ট্রমন্ত্রী এ এইচ মাহমুদ আলী। গত বুধবার সকালে রাজধানীর ন্যাশনাল ডিফেন্স কলেজে আয়োজিত 'রোহিঙ্গা সংকট, চ্যালেঞ্জ ও সমাধান' শীর্ষক এক সেমিনার শেষে সাংবাদিকদের এসব তথ্য জানান পররাষ্ট্রমন্ত্রী।

তারিখ ঠিক না হলেও খুব শীঘ্রই প্রত্যাবাসন প্রক্রিয়ার প্রথম পদক্ষেপ হিসেবে প্রাথমিকভাবে তিন হাজার রোহিঙ্গা ফেরত পাঠানো হবে বলে সাংবাদিকদের অবহিত করেন তিনি। 

তিনি বলেন, ‘মুক্তিযুদ্ধের ছবির ব্যবহারের পর মায়ানমার সরকার ক্ষমা চেয়েছে যা খুবই ইতিবাচক। মায়ানমারের সঙ্গে আমাদের যোগাযোগ বেড়েছে। বিভিন্ন বিষয়ে তাদের সঙ্গে আলোচনা হচ্ছে’। আয়োজিত সেমিনারে প্রধান অতিথির বক্তব্যে রোহিঙ্গা প্রত্যাবাসন প্রক্রিয়া সম্পর্কে আলকপাত করতে গিয়ে পররাষ্ট্রমন্ত্রী এসব বিষয় তুলে ধরেন।

এরই মধ্যে মায়ানমার সরকার তিন হাজার লোক যাচাই বাছাই এর প্রক্রিয়া সম্পন্ন করেছে বলেও উল্লেখ করেন তিনি।তবে চলতি বছরেই ওই সব রোহিঙ্গাকে মিয়ানমারে পাঠানো হবে কিনা এ বিষয়ে সাংবাদিকদের প্রশ্নের সুস্পষ্ট কোন জবাব মন্ত্রী দেননি। 

রোহিঙ্গাদের ফেরত পাঠাতে বান্দরবানের নাইক্ষ্যংছড়ির ঘুমধুম ইউনিয়নে প্রত্যাবাসন কেন্দ্র তৈরি হচ্ছে বলে সাংবাদিকদের জানান তিনি। 

সেমিনারে ঢাকা বিশ্ববিদ্যালয়ের আন্তর্জাতিক সম্পর্ক বিষয়ের অধ্যাপক ড. ইমতিয়াজ আহমেদ ও আইওএম এর সাবেক কর্মকর্তা আসিফ মুনীরসহ উপস্থিত ছিলেন, উচ্চ পদস্থ বেশ কয়েকজন সামরিক-বেসামরিক কর্মকর্তা, বন্ধুপ্রতিম ১২টি দেশের ২৩ জন উচ্চ পদস্থ সামরিক কর্মকর্তা, এনডিসির ৭৬ জন প্রশিক্ষণার্থী কর্মকর্তা ও আর্মড ফোর্সেস ওয়ার কোর্সের ৩৫ জন কর্মকর্তা। সেমিনারে রোহিঙ্গা সংকট সম্পর্কে ৩টি গবেষণাপত্র উপস্থাপন করা হয়।