• মঙ্গলবার, অক্টোবর ২২, ২০১৯
  • সর্বশেষ আপডেট : ০৮:২০ রাত

‘নির্বাচনের সাথে গ্রেপ্তারের কোনো সম্পর্ক নেই’

  • প্রকাশিত ০২:৫০ দুপুর সেপ্টেম্বর ৮, ২০১৮
পুলিশের মহাপরিদর্শক (আইজিপি) ড. মোহাম্মদ জাবেদ পাটোয়ারী।
পুলিশের মহাপরিদর্শক (আইজিপি) মোহাম্মদ জাবেদ পাটোয়ারী। ফাইল ছবি

আইজিপি জাবেদ পাটোয়ারী বলেন, ‘আমরা কখনো কোনো দলের নেতাকর্মীকে গ্রেপ্তার করি না।' 

আগামী জাতীয় সংসদ নির্বাচনের সঙ্গে গ্রেপ্তারের কোনো সম্পর্ক নেই বলে মন্তব্য করেছে পুলিশের মহাপরিদর্শক (আইজিপি) ড. মোহাম্মদ জাবেদ পাটোয়ারী।

আজ শনিবার বেলা পৌনে ১১টার দিকে রাজধানীর মিরপুরের পুলিশ স্টাফ কলেজে 'বাংলাদেশ পুলিশ মেধাবৃত্তি প্রদান অনুষ্ঠান ২০১৮'-এ সাংবাদিকদের প্রশ্নের জবাবে এ কথা বলেন আইজিপি।

নির্বাচনেরর আগে গ্রেপ্তার আতঙ্ক ও গণগ্রেপ্তার সম্পর্কে বিএনপির বক্তব্য সম্পর্কে জানতে চাইলে জাবেদ পাটোয়ারী বলেন, ‘নির্বাচনের সাথে গ্রেপ্তারের কোনো সম্পর্ক নেই। আমরা কখনো কোনো দলের নেতাকর্মীকে গ্রেপ্তার করি না। শুধু তাদেরই গ্রেপ্তার করি যাদের বিরুদ্ধে মামলা আছে। ওয়ারেন্ট আছে। সেক্ষেত্রে তাদের কী পরিচয় সেটা আমরা দেখি না। গ্রেপ্তারের সাথে নির্বাচন কিংবা কোনো দলের নেতাকর্মীদের সম্পর্ক নেই।’

আইজিপি বলেন, ‘কোনো ধরনের অরাজকতা, নাশকতা, আন্দোলনের নামে কোনো ধরনের হুমকি, দেশকে অস্থিতিশীল করার কার্যক্রম বরদাশত করা হবে না। পুলিশ সেজন্য ব্যবস্থা নিচ্ছে।’

নির্বাচনকে ঘিরে অরাজকতা কিংবা অপচেষ্টা রোধে পুলিশের প্রস্তুতি ও আন্দোলনের হুমকি সম্পর্কে জানতে চাইলে আইজিপি বলেন, ‘নির্বাচনকে কেন্দ্র করে পুলিশ যথাযথ প্রস্তুতি নিচ্ছে। দেশের শান্তিশীল পরিবেশ রক্ষায় বাংলাদেশ পুলিশ যথেষ্ট সক্ষম। যেকোনো ধরনের নাশকতা, জ্বালাও-পোড়াও দমাতে পুলিশ প্রস্তুত রয়েছে এবং নিচ্ছে। আন্দোলনের নামে হুমকি ও শান্ত পরিবেশকে অশান্ত করতে দেওয়া হবে না।’

সম্প্রতি ট্রান্সপারেন্সি ইন্টারন্যাশনাল বাংলাদেশের(টিআইবি) জরিপে উঠে এসেছে, দেশের বিদ্যমান সেবাখাতের মধ্যে সবচেয়ে বেশি দুর্নীতিগ্রস্থ আইনশৃঙ্খলা রক্ষাকারী সংস্থা। ২০১৭ সালে সার্বিকভাবে ৬৬ দশমিক ৫ শতাংশ মানুষ সেবাখাতগুলোতে দুর্নীতির শিকার হয়েছেন। এর মধ্যে সর্বোচ্চ ৭২ দশমিক ৫ শতাংশ আইনশৃঙ্খলা রক্ষাকারী সংস্থা। 

এ বিষয়ে জানতে চাইলে পুলিশের মহাপরিদর্শক বলেন, ‘টিআইবির গবেষণা প্রতিবেদন দেখার সুযোগ হয়নি। তবে পত্রিকায় প্রকাশিত প্রতিবেদন দেখেছি। টিআইবির ওই গবেষণা রিপোর্টটি পর্যালোচনা করতে একটি কমিটি গঠন করে দেওয়া হয়েছে।’

এর আগে অতিরিক্ত আইজিপি (এইচআরএম) মো. মহসিন হোসেনের সভাপতিত্বে বাংলাদেশ পুলিশ কল্যাণ ট্রাস্ট আয়োজিত ওই অনুষ্ঠানে এসএসসি, দাখিল ও সমমানের পরীক্ষায় ভাল ফলাফলের জন্য পুলিশ পরিবারের ৩৬১ কৃতি সন্তানকে বৃত্তি দেন আইজিপি।