• শুক্রবার, ডিসেম্বর ০৬, ২০১৯
  • সর্বশেষ আপডেট : ১১:১৪ সকাল

হিজড়া সর্দারের উপর হামলাকারীরা মুখোশধারী ছিল

  • প্রকাশিত ০৫:২০ সন্ধ্যা সেপ্টেম্বর ১৭, ২০১৮
হিজড়াদের বিলাপ
হিজড়া সর্দারের উপর হামলায় বিলাপ করছে দলের সদস্যরা। ছবি: ঢাকা ট্রিবিউন

আশুলিয়া এলাকার হিজড়া সর্দার আব্দুল্লাহ ওরফে রাশিদা, তার দুই সহযোগী  শিখা, এলাইচ ও গাড়ীর চালক নূর নবী গুলিবিদ্ধ হয়। আব্দুল্লাহ ওরফে রাশিদা আশুলিয়া এলাকার হিজড়া সর্দার।

আশুলিয়ায় হিজড়া সর্দারসহ তার লোকজনের উপর হামলাকারীরা মুখোশ পরিহিত ছিল। তারা আগে থেকেই পরিকল্পনা করেই হিজড়াদের উপর গুলি বর্ষন করে। তবে হামলার কারণ সম্পর্কে হিজড়া সর্দার ও পুলিশ এখন পর্যন্ত কিছুই নিশ্চিত করতে পারেনি। 

এর আগে সোমবার বেলা সাড়ে ১১ টার দিকে আশুলিয়ার জামগড়া এলাকা থেকে উত্তরার উদ্দেশ্যে রওনা দিলে দুর্বৃত্তরা তাদের গাড়ীর গতিরোধ করে গুলি ছুঁড়তে থাকে।

এতে আশুলিয়া এলাকার হিজড়া সর্দার আব্দুল্লাহ ওরফে রাশিদা, তার দুই সহযোগী  শিখা, এলাইচ ও গাড়ীর চালক নূর নবী গুলিবিদ্ধ হয়। আব্দুল্লাহ ওরফে রাশিদা আশুলিয়া এলাকার হিজড়া সর্দার। তিনি জামগড়া এলাকায় থাকেন। এছাড়া ওই এলাকায় তার দলে প্রায় ৫০০শত হিজড়া রয়েছে।

আহত হিজড়া শিখা জানান, তারা একটি প্রাইভেটকারযোগে আশুলিয়ার জামগড়া থেকে ঢাকার উদ্দেশ্যে রওনা দেয়। পরে আব্দুল্লাপুর-বাইপাইল সড়কের আশুলিয়া ব্রীজ পার হওয়ার সময় একটি প্রাইভেটকার তাদের পিছু নেয়। পরে মরাগাং এলাকায় এসে পৌঁছালে তাদের গাড়ী গতিরোধ করে ৪/৫ জন মুখোশ পরিহিত দুর্বৃত্ত তাদের উপর হামলা চালায়।

এসময় তাদের গুলিতে হিজড়া সর্দার ও তার দুই সহযোগীসহ গাড়ীর চালক গুলিবিদ্ধ হয়। স্থানীয়রা তাদেরকে উদ্ধার করে সাভারের এনাম মেডিকেল কলেজ এন্ড হাসপাতালের আইসিউতে ভর্তি করেন।

আশুলিয়া থানার ওসি (তদন্ত) জাবেদ মাসুদ বলেন, “খবর পেয়ে আমরা ঘটনাস্থল পরিদর্শন করেছি। তবে হামলার কারণ সম্পর্কে তেমন কিছু জানা যায়নি। তদন্ত শেষে হামলার কারণ সম্পর্কে জানা যাবে।”