• শুক্রবার, অক্টোবর ১৯, ২০১৮
  • সর্বশেষ আপডেট : ১১:২৩ রাত

সাংবাদিক কল্যাণ ট্রাস্টে ২০ কোটি টাকা অনুদানের ঘোষণা দিলেন প্রধানমন্ত্রী

  • প্রকাশিত ০৩:৩০ বিকেল সেপ্টেম্বর ১৯, ২০১৮
PM
প্রধানমন্ত্রী শেখ হাসিনা। ফাইল ছবি

অনুষ্ঠানে শেখ হাসিনা বলেন, ‘আমরা সংবাদপত্র বা মিডিয়ার কাউকে মুখ বা গলা চেপে ধরিনি। এ কথা কেউ বলতে পারবে না।’

সাংবাদিক কল্যাণ ট্রাস্টে ২০ কোটি টাকা অনুদান দেওয়ার ঘোষণা দিয়েছেন প্রধানমন্ত্রী শেখ হাসিনা। বুধবার (১৯ সেপ্টেম্বর) প্রধানমন্ত্রীর কার্যালয়ে দুস্থ সাংবাদিকদের সহায়তা প্রদান অনুষ্ঠানে তিনি এই ঘোষণা দেন।

প্রধানমন্ত্রী বলেন, ‘আমি সাংবাদিক কল্যাণ ট্রাস্ট গঠন করে দিয়েছি। এই ফান্ডে আমি কিছু টাকা দিয়েছিলাম। পত্রিকার মালিকরা এই ফান্ডে কোনও টাকা দেননি। মাত্র দুজন টেলিভিশন মালিক ফান্ডে সহায়তা করেন। সেখানে এখন ১৪ কোটি টাকা আছে। আমি আরও ২০ কোটি টাকা দেব।’ এ সময় সংবাদমাধ্যম মালিকদের কল্যাণ ট্রাস্টে অনুদান দেওয়ার আহ্বান জানান প্রধানমন্ত্রী।

প্রধানমন্ত্রী বলেন, ‘বাংলাদেশের সার্বিক উন্নয়নে আন্তরিকতার সঙ্গে কাজ করে যাচ্ছি। আমি মনে করি এটি আমার একটা দায়িত্ব। মানুষের অধিকার প্রতিষ্ঠার জন্য যা যা করা দরকার আমরা তা করছি।’


পড়ুন: আজ সংসদে ডিজিটাল নিরাপত্তা বিল পাশ


‘আমরা সংবাদপত্র ও মিডিয়ার স্বাধীনতায় বিশ্বাসী’

অনুষ্ঠানে শেখ হাসিনা বলেন, ‘আমরা সংবাদপত্র ও মিডিয়ার স্বাধীনতায় বিশ্বাসী। আমরা এত উন্নয়ন করার পরও অনেকেই নানাভাবে সমালোচনা করেন। আমরা সংবাদপত্র বা মিডিয়ার কাউকে মুখ বা গলা চেপে ধরিনি। এ কথা কেউ বলতে পারবে না।’

প্রধানমন্ত্রী বলেন, ‘১৯৯৬ সালে ক্ষমতায় এসে একটি টেলিভিশন এবং একটি রেডিও পেয়েছি। এরপর আমরা বেসরকারি খাতে টেলিভিশন উন্মুক্ত করে দেই। সংবাদপত্র এবং রেডিও যে যেভাবে চেয়েছে আমরা অনুমোদন দিয়েছি। তারপরও আমি কখনো সংবাদপত্রে বা মিডিয়ায় ভালো প্রচার পাইনি।’

শেখ হাসিনা বলেন, ‘যারা আমার পক্ষে লিখেন এবং যারা আমার বিরুদ্ধে লিখেন তাদের সম্পর্কে আমি সামান্যই চিন্তা করি। আমরা মনে করি, যেকোনো কাজ এবং সঠিক সিদ্ধান্ত নেয়ার বিষয়ে আমার নিজের ওপর আস্থা রয়েছে। আমি নিজের আত্মবিশ্বাসের সাথে চলি’, বলেন তিনি।

তিনি বলেন, ‘শুধু সাংবাদিক নয়, সব পেশাজীবী মানুষের উন্নয়নে আমরা কাজ করে যাচ্ছি। আমি মনে করি এটা আমার দায়িত্ব ও কর্তব্য। কারণ, বঙ্গবন্ধুও সারা জীবন শুধু মানুষের জন্য কাজ করে গেছেন।’

প্রধানমন্ত্রীর পক্ষ থেকে বিভিন্ন রোগে আক্রান্ত ও অভাবগ্রস্ত মোট ১১৩ জন সাংবাদিক এবং বিভিন্ন ঘটনায় নিহত সাংবাদিকদের পরিবারের সদস্যদের আর্থিক সহায়তা দেয়া হয়।