• বৃহস্পতিবার, ডিসেম্বর ১২, ২০১৯
  • সর্বশেষ আপডেট : ০১:৫৪ দুপুর

হিন্দু ছাত্রীদের গরুর গোশতের খিচুড়ি বিতরণের অভিযোগে আটক প্রধান শিক্ষক

  • প্রকাশিত ০৭:১১ রাত সেপ্টেম্বর ৩০, ২০১৮
বিক্ষোভ সমাবেশ
হিন্দু শিক্ষার্থীর মাঝে গরুর গোশতের খিঁচুড়ি বিতরণের অভিযোগে বিক্ষোভ সমাবেশ। ছবি: ঢাকা ট্রিবিউন

দুপুরে ঘটনাস্থলে গিয়ে বিচারের আশ্বাস দিয়ে প্রধান শিক্ষককে গ্রেফতারের ঘটনা নিশ্চিত করেছেন সদর থানার ওসি এসএম বদিউজ্জামান।

বগুড়ার পীরগাছা এএফ বালিকা উচ্চ বিদ্যালয় একটি স্কুলে মা সমাবেশের অনুষ্ঠানে ৬৫ জন হিন্দু শিক্ষার্থীর মাঝে গরুর গোশতের খিচুড়ি বিতরণের অভিযোগে স্কুলের প্রধান শিক্ষক শাখারিয়া ইউনিয়ন বিএনপি নেতা আবদুল হান্নানকে (৪৫) আটক করেছে পুলিশ। 

গত শনিবার (২৯ সেপ্টেম্বর) দুপুরের ওই ঘটনা আজ রবিবার সকালে প্রকাশ পাওয়ার পর এলাকার হিন্দু সম্প্রদায়ের মাঝে প্রচন্ড ক্ষোভের সৃষ্টি হলে বিক্ষোভ প্রদর্শন ও মানববন্ধন করেন তারা।  

দুপুরে ঘটনাস্থলে গিয়ে বিচারের আশ্বাস দিয়ে প্রধান শিক্ষককে গ্রেফতারের ঘটনা নিশ্চিত করেছেন সদর থানার ওসি এসএম বদিউজ্জামান। তিনি ঢাকা ট্রিবিউনকে বলেন, ‘ধর্মীয় অনুভুতিতে আঘাত করায় তাকে গ্রেফতার করা হয়েছে। তার বিরুদ্ধে মামলা ও বিভাগীয় শাস্তির ব্যবস্থা করা হবে।’

বগুড়া সদর সার্কেলের অতিরিক্ত পুলিশ সুপার (মিডিয়া) সনাতন চক্রবর্তী জানান, বিক্ষুব্ধ হিন্দু সম্প্রদায়ের মাদনবন্ধন, বিক্ষোভ প্রদর্শন ও প্রধান শিক্ষক শাখারিয়া ইউনিয়ন বিএনপির সাংগঠনিক সম্পাদক আবদুল হান্নানকে আটক করার খবর পেয়ে বেলা ১টায় ঘটনাস্থলে গিয়ে তদন্ত সাপেক্ষে জড়িতদের বিরুদ্ধে শাস্তিমূলক ব্যবস্থার আশ্বাস ও প্রধান শিক্ষককে গ্রেফতার করলে জনগণ শান্ত হন।

অভিভাবকদের অভিযোগ, গত শনিবার সকালে ওই অনুষ্ঠানের জন্য বাজার থেকে ৭ কেজি গরুর গোশত কেনা হয়। এর মধ্যে ৪ কেজি দিয়ে অতিথিদের জন্য তরকারি ও ৩ কেজি দিয়ে শিক্ষার্থীদের খিচুড়ি রান্না করা হয়েছে। 

অভিযুক্ত প্রধান শিক্ষক আবদুল হান্নান দাবি করেন যে, খাসির গোশত দিয়েই খিচুড়ি রান্না করা হয়েছিল এবং তার বিরুদ্ধে মিথ্যা অভিযোগ আনা হয়েছে। 

সদর থানার ওসি এসএম বদিউজ্জামান বলেছেন, ‘প্রধান শিক্ষক আবদুল হান্নান শাখারিয়া ইউনিয়ন বিএনপির সাংগঠনিক সম্পাদক। ধর্মীয় অনুভুতিতে আঘাত করায় তাকে গ্রেফতার করা হয়েছে। তার বিরুদ্ধে মামলা ও বিভাগীয় শাস্তির ব্যবস্থা করা হবে। খিচুড়িতে গরুর গোশত ছিল, কি ছিল না সে সম্পর্কে তদন্ত চলছে।’