• রবিবার, ডিসেম্বর ১৫, ২০১৯
  • সর্বশেষ আপডেট : ১০:৫৭ রাত

জঙ্গি কথোপকথনের ৩৪ হাজার পৃষ্ঠার নথি উদ্ধার

  • প্রকাশিত ০৩:২৫ বিকেল অক্টোবর ৪, ২০১৮
জঙ্গিবাদ
প্রতীকী ছবি।

পুলিশ ফরেনসিক পরীক্ষার মাধ্যমে পাওয়া এই ৩৪ হাজার পৃষ্ঠার নথি এখনও পুরোপুরি দেখে শেষ করতে না পারলেও ইতোমধ্যে নিলয়ের সাথে ১২জন জঙ্গীর যোগসূত্রের প্রমাণ পেয়েছে।

জাতীয় শোক দিবসের র‍্যালিতে বোমা হামলার মূল পরিকল্পনাকারী হিসেবে অভিযুক্ত আকরাম হোসেন খান নিলয়ের সাথে বিভিন্ন দেশি–বিদেশি জঙ্গিদের কথোপকথনের ৩৪ হাজার পৃষ্ঠার রেকর্ড পুলিশ উদ্ধার করেছে বলে প্রথম আলোর একটি প্রতিবেদনে বলা হয়েছে। এইখান থেকে বিদেশে থাকা দুই বাংলাদেশি জঙ্গির খোঁজও পেয়েছে পুলিশ কর্তৃপক্ষ। 

পুলিশ ফরেনসিক পরীক্ষার মাধ্যমে পাওয়া এই ৩৪ হাজার পৃষ্ঠার নথি এখনও পুরোপুরি দেখে শেষ করতে না পারলেও ইতোমধ্যে নিলয়ের সাথে ১২জন জঙ্গীর যোগসূত্রের প্রমাণ পেয়েছে। এই ১২ জনের মধ্যে সবচেয়ে উল্লেখযোগ্য তানভীর ইসলাম ওরফে আবু ইমরান ও আসিফ আজাদ। এরা দুইজন যথাক্রমে আফগানিস্তান এবং সিরিয়া থেকে নিলয়ের সাথে যোগাযোগ করতেন। তাদের কথোপকথনে মালয়েশিয়া থেকে একজনের যাতায়াতের খবর এবং ভারত থেকে এক অস্ত্র সরবরাহকারীর নাম জানতে পেরেছে পুলিশ।           

কুয়েতের একটি বিশ্ববিদ্যালয় থেকে মেকানিক্যাল ইঞ্জিনিয়ারিং পাস করা তানভীর ইরান হয়ে আফগানিস্তানে যান ২০১৬ সালের মাঝামাঝি। নিলয়ের সাথে মোবাইল চ্যাটে লিখেছেন যে, তাঁর ধারণা, তিনিই সেখানে পৌঁছানো প্রথম বাংলাদেশি। এরপর আগ্রহীদের কিভাবে তার কাছে পৌছাতে হবে তাও তিনি বলে দিয়েছেন। সম্প্রতি আফগানিস্তানের খোরাসান থেকে মার্কিন ঘাঁটিতে হামলা চালানোর দাবি করে বাংলায় একটি ভিডিও প্রকাশ করা হয়। ঐ দলে তানভীর ছিলেন কিনা তা পুলিশ তদন্ত করে দেখছে।

অন্যদিকে, ২০১৬ সালের মার্চে ইরানের ইউনিভার্সিটি অব তেহরানের একটি সেমিনারে অংশ নেওয়ার কথা বলে বাড়ি থেকে বের হয়েছিলেন আসিফ আজাদ। পরে তিনি সিরিয়ার রাকায় চলে যান।

কাউন্টার টেররিজম অ্যান্ড ট্রান্সন্যাশনাল ক্রাইমের উপকমিশনার মহিবুল ইসলাম খান এ বিষয়ে বলেন, 'গুলশানের হোলি আর্টিজানে হামলার আগে–পরে ঢাকার গুলশান, ধানমন্ডি ও মহাখালীতে জঙ্গিবাদে উদ্বুদ্ধ তরুণদের প্রতিটি দলের সঙ্গে আকরাম হোসেন খান নিলয়ের যোগাযোগের তথ্য পাওয়া গেছে। এমনকি, গত বছরের ২৫ মার্চ সিলেটের আতিয়া মহলে অভিযানের সময় নব্য জেএমবির সে সময়কার প্রধান ‘মুসা’র সঙ্গে তাঁর যোগাযোগের প্রমাণ পাওয়া গেছে। এছাড়াও পুলিশ সূত্রে আরও জানা যায় যে, হাজারীবাগে নিয়মিত হোলি আর্টিজানে হামলার মূল পরিকল্পনাকারী তামিম চৌধুরীর সঙ্গে দেখা করতেন আকরাম হোসেন খান নিলয়।   

উল্লেখ্য, ২০১৬ সালে জাতীয় শোক দিবসের র‍্যালিতে হামলার পরিকল্পনা করেছিলেন নিলয়। পরে পুলিশি তৎপরতায় তা ভেঙ্গে যায়।