• শনিবার, জানুয়ারী ১৮, ২০২০
  • সর্বশেষ আপডেট : ১০:১৯ সকাল

৩২ ঘন্টা পর ছাড়া পেলো আটক ১০১ যুবক!

  • প্রকাশিত ০৮:২২ রাত অক্টোবর ১২, ২০১৮
৩২ ঘন্টা পর ছাড়া পেলো আটক ১০১ যুবক
থানা প্রাঙ্গনে আটক যুবকরা। ছবি: ঢাকা ট্রিবিউন

প্রশিক্ষণে অংশগ্রহনকারী ১০৯ যুবককে নাশকতার সন্দেহে আটক করে ফেনী মডেল থানা পুলিশ

ফেনী মডেল থানায় আটক ১০৯ যুবকদের মধ্যে ১০১ জনকে ৩২ ঘন্টা পর  ছেড়ে দিয়েছে পুলিশ।  বৃহস্পতিবার রাত ১২টার পর থেকে অভিভাবকদের জিম্মায় তাদেরকে ছেড়ে দেয়া হয়। অন্য ৮ যুবকের বিরুদ্ধে নাশকতার অভিযোগ থাকায় শুক্রবার দুপুরে আদালতের মাধ্যমে তাদেরকে কারাগারে পাঠিয়েছে  পুলিশ।

বুধবার (১০ অক্টোবর) বিকাল ৪টার দিকে ফেনী শহরের শহীদ শহিদুল্লাহ কায়সার সড়কের পাশের এক ভবনে টিএনসি নামের একটি ফুড সাপ্লায়ার কোম্পানির প্রশিক্ষণে অংশগ্রহনকারী ১০৯ যুবককে নাশকতার সন্দেহ আটক করে ফেনী মডেল থানা পুলিশ। 

তবে বৃহস্পতিবার (১১ অক্টোবর) তাদের আদালতে উপস্থিত করা হয়নি, রাত ১১টা দিকে ওই যুবকদের ছেড়ে দেওয়ার সিদ্ধান্ত নেওয়া হয়।  

ফেনী মডেল থানার ওসি আবুল কালাম আজাদ এই বিষয় নিশ্চিত করেছে। আটক ব্যক্তিরা ফেনী ও আশপাশের চার জেলার ১৩ থানার বাসিন্দা। খোঁজ নিয়ে যাদের বিরুদ্ধে অপরাধের কোনও তথ্য পাওয়া যায়নি এমন ১০১ জনকে ছেড়ে দেওয়া হয়েছে।

সবুজ, মামুন, হারুন যোবায়েরসহ বেশ কয়েকজন যুবক ছাড়া পাওয়ার পর ঢাকা ট্রিবিউনকে বলেন, “পুলিশ সম্পূর্ণ ভুল তথ্যের ভিত্তিতে আমাদেরকে আটক করেছে।” 

এ সময় তারা ক্ষোভের সঙ্গে বলেন, “টিএনসি কোম্পানির প্রশিক্ষণে অংশগ্রহন কী অপরাধ? না হলে কেন পুলিশ আমাদের নাশকতার সন্দেহে দীর্ঘ ৩২ ঘন্টা আটকিয়ে রাখলো? আমাদেরকে পরিবারের মানুষকে মানসিক ও শারীরিক ভাবে বিপর্যস্ত করলো? কেন আমাদেরকে থানার ছোট্ট গারদে গাদাগাদি করে দাঁড়িয়ে ও বসিয়ে খাওয়া, বিশ্রাম ও টয়েলেট এবং বিশুদ্ধ পানির অভাবসহ এক পোশাকে এত দীর্ঘ সময় শাস্তি দিল? এই হয়রানির বিচার করার কী কেউ নেই? আমরা কী হয়রানির কোনো বিচার পাবো না?”

ফেনী মডেল থানার ভারপ্রাপ্ত কর্মকর্তা (ওসি) আবুল কালাম ঢাকা ট্রিবিউনকে বলেন, “দীর্ঘ ৩২ ঘন্টা আটকের বিষয়টি সত্যি নয়।” তিনি জানান, ‘যুবকদের থানায় নিয়ে আসার পর কোন উদ্দেশ্যে কেন তারা ওই স্থানে জড়ো হয়েছিল তা জানতে ও নাম-ঠিকানা পরিচয় জানতে সময় লেগেছে। এই সময় তাদেরকে আটক দেখানোটা কোনোভাবে গ্রহনযোগ্য নয়। যথাযথ তথ্য সংগ্রহের পর এদের ছেড়ে দিতে বেশি সময় নেওয়া হয়নি।’