• বুধবার, নভেম্বর ১৪, ২০১৮
  • সর্বশেষ আপডেট : ১০:১৫ রাত

চোরাকারবারীদের পাতা দড়িতে আটকে বিজিবি সদস্যের মৃত্যু

  • প্রকাশিত ১১:২১ সকাল অক্টোবর ২৮, ২০১৮
বিজিবি সদস্যের মৃতদেহ
সাতক্ষীরার কলারোয়ায় চোরাকারবারীদের দড়ির ফাঁদে আটকে সীমান্তবর্তী সোনাই নদীর পানিতে ডুবে মারা গেছেন একজন বিজিবি সদস্য। ছবি: ঢাকা ট্রিবিউন।

নিহত বিজিবি সদস্য রফিক (৩৫) ল্যান্স নায়েক পদে কাকডাঙ্গা বিওপিতে কর্মরত ছিলেন বলে জানা গেছে

সাতক্ষীরার কলারোয়ায় চোরাকারবারীদের দড়ির ফাঁদে আটকে সীমান্তবর্তী সোনাই নদীর পানিতে ডুবে মারা গেছেন একজন বিজিবি সদস্য। গত শনিবার (২৭অক্টোবর) রাত ১০টার দিকে ঘটনাটি ঘটেছে বলে ঢাকা ট্রিবিউনকে নিশ্চিত করেছেন সাতক্ষীরা ৩৩ বিজিবি ব্যাটালিয়নের অধিনায়ক লে.কর্নেল মহিউদ্দীন আহম্মেদ। 

নিহত বিজিবি সদস্য রফিক (৩৫) ল্যান্স নায়েক পদে কাকডাঙ্গা বিওপিতে কর্মরত ছিলেন বলে জানা গেছে। তার গ্রামের বাড়ি কিশোরগঞ্জ জেলায়। 

স্থানীয়সূত্রে জানা গেছে বাংলাদেশ ও ভারতের চোরাকারবারীরা নদীর পানির নিচ দিয়ে অবৈধ পণ্য আনা-নেয়ার জন্য দড়ি ব্যবহার করে থাকে। এক দেশের অবৈধ পণ্য দড়িতে বেঁধে সেই দড়ি অন্যদেশের দিক থেকে টেনে পাচার করা হয়ে থাকে। 

শনিবার রাত সাড়ে ৯টার দিকে সোনাবাড়িয়া ইউনিয়নের দক্ষিণ ভাদিয়ালীর ১নং পোস্টের ১৩/৩ ৬আরবি’র সন্নিকটে সোনাই নদীর ধারে টহলরত অবস্থায় চোরাকারবারিদের তাড়া করে তাদের চোরাই পণ্য উদ্ধার করতে গিয়ে অবৈধ পণ্যবাঁধা দড়ি ধরে ফেলেন কাকডাঙ্গা বিওপির ল্যান্স নায়েক রফিক। সেসময় ভারতের পাশ থেকে সেখানকার চোরাকারবারীরা ভারতের দিকে দড়ি ধরে ওই পাশে টান দেন। অন্যদিকে বিজিবি’র কর্তব্যরত ল্যান্সনায়েক রফিকও দড়ি ধরে বাংলাদেশের দিকে টানতে থাকেন। একপর্যায়ে দড়িতে আটকিয়ে ও জড়িয়ে নদীর মাঝ বরাবর পর্যন্ত চলে গিয়ে পানিতে ডুবে মৃত্যু হয় তার।

এরপর খবর পেয়ে বর্ডার গার্ড বাংলাদেশের(বিজিবি) অন্য সদস্যরা তাকে মৃত অবস্থায় উদ্ধার করে সাতক্ষীরা সদর হাসপাতালে নিয়ে যান। 

উল্লেখ্য, নিহত বিজিবি ল্যান্সনায়েক রফিক মাত্র ২ দিন আগেই কাকডাঙ্গা ক্যাম্পে যোগ দিয়েছিলেন।